সেচ কাজে হোয়াইক্যং বিট অফিসারের বাধা

প্রকাশ: ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ১১:৩১ : অপরাহ্ণ

জাহাঙ্গীর আলম, টেকনাফ :: টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের দৈংগ্যাকাটা গ্রামের পানিরছড়ার পাওয়ার পাম্প স্কীমের পানি’র বাদ সংস্কারের বাধা প্রদান ও ক্ষতিগ্রস্থ স্থানীয় লোকজনদের হুমকি প্রদানের অভিযোগ উঠেছে হোয়াইক্যং রেঞ্জের বিট অফিসার সৈয়দ আশিক আহমদের বিরুদ্ধে।। স্থানীয় ভুক্তভোগী লোকজন এবিষয় কক্সবাজার জেলা প্রশাসক ও কক্সবাজার জেলার ফরেস্ট বিভাগের বন সংরক্ষক সহ উপজেলার নিবার্হী অফিসার টেকনাফের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছে বলে জানা যায়।
জানা যায়,হোয়াইক্যং ইউনিয়ন ৪নং ওয়ার্ডের দৈংগ্যাকাটা গ্রামের প্রায় ২/৩ শত পরিবার পানিরছড়া পাওয়ার পাম্প স্কীমের পানি’র বাদ থেকে ধানের চাষ ও ফসল চাষ করার জন্য ও নিজেদের প্রয়োজনে উক্ত পানি’র বাদ থেকে পানি ব্যবহার করে থাকেন। বর্ষার মৌসুমে পানি’র বাদ থেকে পানি’র প্রয়োজন না থাকায় পানি’র বাদের কিছু অংশ কেটে দিয়ে পানি ছেড়ে দিয়ে থাকে।এরপরে শীতের মৌসুমে পানি জমা রাখার প্রয়োজনে পানিরছড়া পাওয়ার পাম্প স্কীম পানি’র বাদ টি আবারও মেরামত করতে হয় কারণ শীতের মৌসুমে পানি’র বাদে পানি জমা রেখে ওইখান থেকে পানি ব্যবহার করে।

অভিযোগে আরও জানা যায়, পানি’র বাদ থেকে পানি ব্যবহারের জন্য স্থানীয়রা বিগত ১৯৭৯ সাল থেকে কক্সবাজর জেলা বন সংরক্ষক অফিস থেকে অনুমতি পত্র পাই।কিন্তু অনুমতি তাকার পরও বর্তমানে বিট অফিসার আর্থিক সুবিধার প্রয়োজনে দৈংগ্যাকাটা পানিরছড়ার পানি’র বাদটি স্থানীয়দের সংস্কার করতে বাধা দিতেছে।

এবিষয় হোয়াইক্যং রেঞ্জের বিট অফিসার সৈয়দ আশিক আহমদ জানান, স্থানীয় কৃষক কেউ বাচাঁতে হবে বনও বাচাঁতে হবে কেউ যদি কৃষকের দোহায় দিয়ে বাণিজ্যিক চিন্তায় বাদ নির্মান করে পানি নেই তাহলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে তবে বাদ নির্মান করতে গেলে পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় থেকে অনুমতি নিতে হবে।
অভিযোগকারী হোয়াইক্যং ৪নং ওয়ার্ডের সাবেক মেম্বার আবুল হাসেম বলেন,কক্সবাজার জেলা বন সংরক্ষক বিভাগ থেকে বিগত ১৯৭৯ সাল থেকে দৈংগ্যাকাটা পানিরছড়া পাওয়ার পাম্প স্কীমের পানি’র বাদের পানি সংরক্ষণ ও বাদের পানি ব্যবহার সহ স্থানীয় কৃষকগন চাষাবাদ করার অনুমিত পত্র তাদের থাকার পরও বর্তমান বিট অফিসার শীতকাল মৌসুমে পানি’র বাদটি সংস্কার করতে চাইলে বিভিন্ন ধরণের হুমকিসহ বাধা প্রদান করে আসছে। তিনি স্থানীয়দের পক্ষ থেকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক,জেলার প্রধান বন সংরক্ষক,সহ টেকনাফ উপজেলার নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন বলে জানান।


সর্বশেষ সংবাদ