টেকনাফের সন্তান ড.আব্দুস সালাম দুবাইতে বাংলাদেশর গর্ব

প্রকাশ: ৮ ডিসেম্বর, ২০১৯ ৯:২৬ : অপরাহ্ণ

মুহাম্মদ শাহজাহান ইউ.এ.ই. থেকে::

৮ই অক্টোবর দুবাই ধর্ম মন্ত্রনালয়ে অনুষ্ঠিত শ্রেষ্ঠ ইমাম ২০১৫ এর ইমাম ও খতিব ক্যাটাগরীতে শ্রেষ্ঠ ইমাম হিসেবে স্বীকৃতি পেল টেকনাফের সন্তান দুবাইতে বাংলাদেশর গর্ব ড.আব্দুস সালাম সাইয়েদ করিম। ধর্ম মন্ত্রনালয়ের পরিচালক হামদ আল সাইবানির হাত থেকে তিনি পুরস্কার গ্রহন করেন। কক্সবাজার জেলার টেকনাফ থানার স্থানীয় মাদ্রাসা হতে টাইটেল ও আলিম পাস করে উচ্চ শিক্ষার জন্য তিনি মিশরে যান। সেখানকার আল আম’র ইউনিভারসিটি হতে অনার্স পাশ করে আরও উচ্চ ডিগ্রী অর্জনের জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাতে চলে আসেন। বর্তমানে তিনি শারজাহ ইউনিভার্সিটিতে পিএইচডি করছেন। তার পাশাপাশি তিনি দুবাই ইন্টারন্যাশনাল সিটি মসজিদের ইমাম হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। শ্রেষ্ঠ ইমাম হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ার পর দুবাই কন্সুলেটের কনস্যাল জেনারেল মাসুদুর রহমান সহ সকল স্তরের প্রবাসীরা তাকে অভিনন্দন জানান।

আন্তর্জাতিক কনফারেন্সে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন টেকনাফের মাওলানা আব্দুস সালাম”
“বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় উদারতা” শীর্ষক শিরোনামে প্রবন্ধ উপস্থাপিত হয়েছে। প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন শারজাহ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিকাহ বিশেষজ্ঞ, পিএইচ. ডি গবেষক শাইখ আব্দুস সালাম সাঈদ করীম। সোমবার বিকেল ৩ টায় বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষদ ভবনের ৪০৩ নং কক্ষে এ প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়।
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) থিওলজি অ্যান্ড ইসলামিক স্টাডিজ অনুষদ ও তুরস্কের ইস্তাম্বুল ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্দ্যোগে ‘গ্লোবাল পিস অ্যান্ড হারমোনি’ রিসালা-ই-নূর পারস্পেকটিভ শীর্ষক দু’দিনব্যাপি আন্তর্জাতিক কনফারেন্সে যোগদান করে তিনি এ প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। প্রবন্ধ উপস্থাপন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ইশারত আলী মোল্লা। এর আগে তিনি কনফারেন্সে বক্তব্য রাখেন। শাইখ করীম বাংলাদেশ ওয়াকফাহ নীতিমালা বিষয়ে গবেষণারত বিশিষ্ট আরবি সাহিত্যিক ও ফেকাহবিদ এবং দুবাই ঈমাম আবুহানিফা রিসার্স সেন্টারের আরবি প্রভাষক হিসেবে নিযুক্ত রয়েছেন।
সংযুক্ত আরব আমিরাতের শারজাহ ইউনিভার্সিটিরর আমন্ত্রনে তিনি এ কনফারেন্সে যোগ দেন। তিনি একাধারে দুবাই ইন্টারন্যাশনাল সিটি জামে মসজিদের খতিব, ২০১৫ সালে দুবাইয়ের নির্বাচিত শ্রেষ্ট ঈমাম, চট্টগ্রাম সমিতি-ইউএই’র উপদেষ্টা, আরব আমিরাতস্থ বাংলাদেশ সমিতির উপদেষ্টা ও বৃহত্তর টেকনাফ সমিতির সভাপতি, শারজাহ্ গভর্ণর থেকে ২০১৫ সালে সেরা গবেষণার প্রথম পুরষ্কারপ্রাপ্ত।
সকাল ১০ টায় অনুষ্ঠিত কনফারেন্সে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. রাশীদ আসকারীর সভাপতিত্বে আরব, ইরাক, সংযুক্ত আরব আমিরাত, মালয়েশিয়া ও বাংলাদেশসহ মোট ৮টি দেশের প্রতিনিধিবৃন্দ অংশ গ্রহণ করেন। দু’দিনব্যাপী এ সেমিনারের পৃথক পৃথক ৮টি সেশনে ৭১টি প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়। এর মধ্যে ইংরেজি প্রবন্ধ ৩৮টি এবং আরবি প্রবন্ধ ৩৩টি। এছাড়াও বিদেশী প্রবন্ধকার ও বিশেষ্ণজ্ঞদের প্রবন্ধ ১০টি এবং দেশীয় প্রবন্ধকারদের প্রবন্ধ ৬১টি। মঙ্গলবার এক আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে দুই দিন ব্যাপী এ সেমিনারের সমাপ্তি হয়।।

 


সর্বশেষ সংবাদ