সেন্টমার্টিনের ৮ শতাধিক বাসিন্দা টেকনাফে আটকা

প্রকাশ: ১০ নভেম্বর, ২০১৯ ৭:২২ : অপরাহ্ণ

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ … ১০ নভেম্বরও পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল করেনি। ৮ নভেম্বর থেকে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল এর প্রভাবে সাগর উত্তাল থাকায় টেকনাফ-সেন্টমার্টিনে নৌপথে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ রয়েছে। দ্বীপে আটকা পড়েছেন প্রায় দেড় হাজার পর্যটক। ঘুর্ণিঝড় কেটে গেলেও এখনও ৩নং স্থানীয় সতর্ক সংকেত বহাল থাকায় পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল করার অনুমতি দেয়নি স্থানীয় প্রশাসন। এ কারণে শুক্রবার থেকে পর্যটকবাহী কোনো জাহাজ সেন্টমার্টিনে চলাচল করেনি। ফলে সেখানে আগে থেকে অবস্থান করা দেড় হাজার পর্যটক টেকনাফে ফিরতে পারেননি। আর এদিকে কেনাকাটা, চিকিৎসা, মামলা-মোকদ্দমায় হাজিরাসহ জরুরী কাজে টেকনাফে এসে আটকা পড়েছেন ৮ শতাধিক সেন্টমার্টিনদ্বীপের বাসিন্দা। তারা প্রশাসনের সহানুভুতি বা হোটেল থেকে কোন প্রকার সহযোগিতা পাচ্ছেননা বলে জানা গেছে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রথম দিকে ফিরতে না পেরে আটকা পড়া পর্যটকরা কিছুটা উৎকণ্ঠায় থাকলেও প্রশাসনের তদারকিতে তারা এখন সেখানে নিরাপদ অবস্থানে রয়েছেন। উপজেলা প্রশাসনসহ, ইউনিয়ন পরিষদ, হোটেল-মোটেল ও রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ীদের পক্ষ থেকে তাদেরকে সার্বক্ষণিক সব ধরনের সুবিধা দেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে। আটকা পড়া পর্যটকদেরকে আবাসিক হোটেল ও খাবার হোটেলের বিলে অর্ধেক দাম রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে।
সেন্টমার্টিনদ্বীপ ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ নূর আহমদ বলেন, ‘হঠাৎ করে জাহাজ চলাচল বন্দ হওয়ায় দ্বীপে আটকা পড়া পর্যটকদের ব্যাপারে সব ধরনের তদারকি করা হচ্ছে। তাঁরা সকলেই সুস্থ এবং ভালো আছেন। প্রশাসনের তদারকিতে আতংক ভাব কেটে গিয়ে বরং খুশীতে আছেন। দ্বীপে অবস্থিত সব আবাসিক হোটেল ও রেস্টুরেন্ট ব্যবসায়ীদের এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এছাড়া আটকা পড়া পর্যটকদের থাকা খাওয়াতে সর্বোচ্চ আর্থিক ছাড় দিতে বলা হয়েছে। কিন্ত একই কারণে টেকনাফে গিয়ে আটকা পড়েছেন ৮২৬ জন সেন্টমার্টিনদ্বীপের বাসিন্দা। কেনাকাটা, চিকিৎসা, মামলা-মোকদ্দমায় হাজিরাসহ জরুরী কাজে টেকনাফে এসে হঠাৎ করে জাহাজ চলাচল বন্দ হওয়ায় সেন্টমার্টিনদ্বীপে ফিরতে পারেনি। সেন্টমার্টিনদ্বীপে আটকা পড়া পর্যটকদেরকে আমরা আবাসিক হোটেল ও খাবার হোটেলের বিলে অর্ধেক দাম রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে। কিন্ত আটকা পড়া সেন্টমার্টিনদ্বীপের বাসিন্দাগণ টেকনাফ বা অন্য কোথাও সে সুবিধা পাচ্ছেনা। আমি এ ব্যাপারে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি’। ##


সর্বশেষ সংবাদ