টেকনাফে পূজামণ্ডপ পরিদর্শনে :ইউএনও রবিউল হাসান

প্রকাশ: ৫ অক্টোবর, ২০১৯ ৭:৩৭ : পূর্বাহ্ণ

সাইফুদ্দিন মোঃ মামুন,টেকনাফ:
ক্ষণে ক্ষণে উলুধ্বনি, শঙ্খ, কাঁসর আর ঢাকের বাদ্যি জানান দিচ্ছে ঠাকুরঘরে উদ্ভাসিত মৃন্ময়ী রূপ প্রতিমাবরণ। চিন্ময়ী আনন্দরূপিণীর বোধন হয়েছে গতকাল। শুরু হয়েছে বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রাণের উৎসব, শারদীয় দুর্গোৎসব।

টেকনাফে দেবী দুর্গার বোধন শেষে জমজমাট আয়োজনে ষষ্ঠীর মধ্যে দিয়ে শুরু হলো সনাতন ধর্মাবল্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব
শারদীয় দুর্গাপূজা।মণ্ডপে মণ্ডপে বিরাজ করছে উৎসবমুখর পরিবেশ।পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃরবিউল হাসান।শুক্রবার(৪অক্টোবর)রাতে তিনি পৌর শহর ঘুরে বিভিন্ন পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করেন।
জগতের মঙ্গল কামনায় দেবী দুর্গা এবার ঘোড়ায় চড়ে স্বর্গলোক থেকে মর্ত্যে এসেছেন।বিদায়ও নেবেন ঘোড়ায় চড়ে।ধর্মীয় উৎসব দূর্গাপূজাকে সামনে রেখে মন্দিরে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।উপর বাজার পূজামণ্ডপ থেকে শুরু করে,ডেইল পাড়ার কেন্দ্রীয় দূর্গা পূজামণ্ডপ পরিদর্শন করা হয়।এসময়,পৌর কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের সাধারণ সম্পাদক নুরুল হোসাইন,সদর ইউনিয়নের কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সাধারণ সম্পাদক মাহাবু,সদর ইউপি ৬নংওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের সাধারণ সম্পাদক বদিউল আলমসহ প্রশাসনিক কর্মকর্তা বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। ৮অক্টোবর দেবীর বির্সজনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় এ উৎসব।

শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে সারাদেশেই নেওয়া হয়েছে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা টেকনাফ উপর বাজার পূজামণ্ডপ থেকে শুরু করে,ডেইল পাড়া,হৃীলা নাটমুড়া পাড়া,হোয়াইক্যং, বাহারছড়া দূর্গা পূজামণ্ডপ সহ পরিদর্শন করা হয়।

পৌর কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সাধারণ সম্পাদক নুরুল হোসাইন বলেন, টেকনাফ উপজেলায় ৬ টি পূজামণ্ডপ কেন্দ্র রয়েছে। উক্ত ৬ টি কেন্দ্রে প্রত্যেকটা ইউনিয়ন থেকে ৬ জন করে পূজামণ্ডপে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।

পরিদর্শনকালে পুলিশ পরিদর্শক ও অপারেশন (ওসি) রাখিবুল ইসলাম বলেন, পূজাকে কেন্দ্র করে কোনো সহিংস ঘটনার তথ্য আমাদের কাছে নেই। ঝুঁকিপূর্ণ কোনো মণ্ডপও পাওয়া যায়নি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রবিউল হাসান বলেন,ধর্ম যার যার উৎসব সবার। আমাদের সম্প্রীতির বন্ধন আরো দৃঢ় হোক। সবাই মিলে আমরা এগিয়ে যাই স্বপ্নের বাংলাদেশ গড়ার পথে।


সর্বশেষ সংবাদ