সাগরে তলিয়ে যাওয়া মোঃ আলী এখনো খোজ মিলেনি: মা’র আহাজারি

প্রকাশ: ১৫ আগস্ট, ২০১৯ ১:০৭ : পূর্বাহ্ণ

নুরুল হোসাইন,টেকনাফ:
টেকনাফে মেরিন ড্রাইভ সীবীচে ফুটবল খেলতে গিয়ে স্রোতের টানে ভেসে গিয়ে মো. আলী (১৫) নামে একজন মাদ্রাসার ছাত্র নিখোঁজ রয়েছেন। সাগরে তলিয়ে যাওয়া মোঃ আলী এখনো খোজ মিলেনি।

টেকনাফ পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা রমিজ আহমদের ছেলে ও গোদারবিল বায়তুশ শরফ দাখিল মাদ্রাসার অষ্টম শ্রেণির ছাত্র ছিলেন।
গতকাল বুধবার বিকেল ৪ টার দিকে টেকনাফ জিরো পয়েন্টে সে নিখোঁজ হয়।
প্রত্যক্ষদর্শী ও ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, বুধবার বিকেলে সমবয়সী একদল কিশোর ফুটবল খেল ছিলেন সৈকতে। খেলার এক পযার্য়ে বলটি পানিতে গিয়ে পড়লে সেটি আনতে যান মোহাম্মদ আলী। সাগরের স্রোতের টানে ভেসে গিয়ে নিখোঁজ হয়ে পড়েন। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের উদ্ধার কর্মীরা ঘটনাস্থলে আসলেও অভিযান চালানোর মতো জনবল ও যন্ত্রপাতি না থাকায় কোনো ব্যবস্থা নিতে পারেননি।
টেকনাফ ফায়ার সার্ভিস ষ্টেশনের দলনেতা মুকুল কুমার নাথ বলেন, সাগর উত্তাল থাকায় তারা উদ্ধার তৎপরতা চালাতে পারিনি। তাই তারা কোস্টগার্ড সদস্যদের বিষয়টি অবহিত করেছেন।

সার্ভিসের কতৃপক্ষ বলেন, মোঃ আলী নিখোঁজ এর খবর পেয়ে উদ্ধারের জন্য সৈকতে যান টেকনাফের ফায়ার সার্ভিস। ফায়ার সার্ভিসের কতৃপক্ষ টেকনাফ সাংবাদিক ইউনিটির সভাপতি সাইফুল ইসলাম সাইফীকে বক্তব্যে বলেন,মোঃ আলী সাগরে তলিয়ে গেছে খবর পেয়ে আমরা ফায়ার সার্ভিস এসেছি। তবে সাগরে গিয়ে ছেলে উদ্ধার করার মত জনবল ও যন্ত্রপাতি আমাদের নেই। যন্ত্রপাতি না থাকার কারনে উদ্ধার করতে পারিনি। নেই কোন ব্যবস্থা। নেই কোন কিছু। এ মুহুর্তে আমাদের কিছু করার নেই।
সাইফুল ইসলাম সাইফী আরো বলেছেন, ব্যবস্থা না থাকলে কেন এখানে এসেছেন। টেকনাফের মানুষ কে খুশি করার জন্য। উদ্ধারের ব্যবস্থা না থাকলে এখান থেকে চলে যান। মোঃ আলীকে উদ্ধারের প্রয়োজন নেই।
ফায়ার সার্ভিস বললেন ভাই আমরা কি করব, দেখে তাখিয়ে থাকার মত আর কিছুই দেখছিনা। রাত ১ টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত তাঁর সন্ধান মেলেনি।
মোঃ আলীর পরিবার আলা উদ্দিন বলেন, মোঃ আলী সাগরে তলিয়ে যাওয়ার পর এখনো তাকে পাওয়া যায় নি। রাত ১ টার সময় টেকনাফ জিরো পয়েন্ট থেকে শাপলাপুর বীচ পয়েন্ট পযর্ন্ত ৮ টি মোটরসাইকেল নিয়ে অনেক খোজাখোজি করেও পাওয়া যায় নি। পানিতে ভেসে আসলে সকালের দিকে পাওয়া যেতে পারে। তিনি আরো বলেন, আলীর মা’র আহাজারি। মা বলেন আমার আলী কোথায়। আমার ছেলেকে ফিড়িয়ে দাও বলে বলে কাঁদছে।


সর্বশেষ সংবাদ