টেকনাফে পৃথক অভিযানে ৪৩ হাজার ৮৮৫ পিস ইয়াবা উদ্ধার, রোহিঙ্গা নারী আটক

প্রকাশ: ১৪ মে, ২০১৯ ১০:২৮ : অপরাহ্ণ

 

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ … বিজিবি এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের সমন্বয়ে একটি যৌথ যানবাহন তল্লাশী অভিযানে ১১ লক্ষ ৬৫ হাজার ৫০০ টাকা মূল্যমানের ৩ হাজার ৮৮৫ পিস ইয়াবাসহ ১জন রোহিঙ্গা নারীকে আটক করা হয়েছে। এছাড়া পৃথক আরেকটি অভিযানে ১ কোটি ২০ লক্ষ টাকা মূল্যমানের ৪০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধারকৃত ৪০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে। যা পরবর্তীতে উর্ধতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে এবং আটককৃত মহিলাকে ৩ হাজার ৮৮৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আইনী কার্যক্রম গ্রহনের নিমিত্তে টেকনাফ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর সার্কেলে সোপর্দ করা হয়েছে।
টেকনাফ-২ বিজিবির অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান পিএসসি জানান, ‘১৩ মে গভীর রাতে টেকনাফ ব্যাটালিয়ন ২ বিজিবির অধীনস্থ দমদমিয়া চেকপোষ্টের পশ্চিমে পাকা রাস্তার উপর বিজিবি এবং মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের সমন্বয়ে একটি যৌথ যানবাহন তল্লাশী অভিযান পরিচালিত হয়। যানবাহন তল্লাশীকালীন সময়ে সিএনজি আরোহী মহিলা মোচনী রোহিঙ্গা ক্যাম্প ‘বি’ বøকের বাসিন্দা মোঃ ইউসুফের স্ত্রী মোছাম্মৎ খালেদা বেগমকে (২০) সন্দেহ হলে বিজিবি নারী সৈনিক দ্বারা তার দেহ তল্লাশী করা হয়। তল্লাশীকালীন উক্ত মহিলার কোমরের দুই পার্শ্বে থামী দিয়ে পেঁচানো ১১ লক্ষ ৬৫ হাজার ৫০০ টাকা মূল্যমানের ৩ হাজার ৮৮৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেট উদ্ধার করা হয়’।
তিনি আরও জানান, ‘নিজস্ব গোয়েন্দা তথ্যের মাধ্যমে জানা যায় টেকনাফ ব্যাটালিয়ন ২ বিজিবির অধীনস্থ টেকনাফ বিওপির দায়িত্বপূর্ণ এলাকা নাইট্যংপাড়া গ্রামের বাসিন্দা মৃত সৈয়দ হোসেন জনৈক মোঃ ইউনুছ আলীর (৩০) বাড়ীতে ইয়াবা ট্যাবলেট লুকায়িত থাকতে পারে। উক্ত সংবাদের ভিক্তিতে ১৩ মে বকালে টেকনাফ-২ বিজিবির অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোহাম্মদ ফয়সল হাসান খান পিএসসির নেতৃত্বে একটি টহল দল উক্ত এলাকায় গমন করতঃ অভিযান পরিচালনা করেন। পরবর্তীতে টহল দল বর্ণিত মোঃ ইউনুছ আলী এর বাড়ী সংলগ্ন ড্রেনের মধ্যে তল্লাশী করে পরিত্যক্ত অবস্থায় একটি প্লাষ্টিকের ব্যাগে মোড়ানো অবস্থায় ইয়াবা ভর্তি ৪টি প্যাকেট জব্দ করতে সক্ষম হয়। বাড়ির মালিককে এসময় বাড়িতে পাওয়া যায়নি। দোষী ব্যক্তিকে আইনের আওতায় আনার প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। প্যাকেটগুলো খুলে গণনা করে ১ কোটি ২০ লক্ষ টাকা মূল্যমানের ৪০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট পাওয়া যায়। উদ্ধারকৃত ৪০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে। যা পরবর্তীতে উর্ধতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে এবং আটককৃত মহিলাকে ৩ হাজার ৮৮৫ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ আইনী কার্যক্রম গ্রহনের নিমিত্তে টেকনাফ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর সার্কেলে সোপর্দ করা হয়েছে’। ##


সর্বশেষ সংবাদ