শাহপরীরদ্বীপ থেকে ইয়াবা ও বিয়ার উদ্ধার

প্রকাশ: ২ এপ্রিল, ২০১৮ ১:১৮ : অপরাহ্ণ

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ … টেকনাফের শাহপরীরদ্বীপ থেকে বিজিবি অভিযান চালিয়ে ১০ হাজার পিস ইয়াবা এবং ১২১ ক্যান বিদেশী বিয়ার উদ্ধার করেছে বলে জানা গেছে। তবে অন্ধকারের সুযোগে মাদক চোরাকারবারীরা পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়েছে। উদ্ধারকৃত ইয়াবা ট্যাবলেট ও বিয়ারগুলো ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে। যা পরবর্তীতে উর্ধতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে।
টেকনাফ-২ বিজিবি’র পরিচালক অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল মোঃ আছাদুদ-জামান চৌধুরী ২ এপ্রিল জানান
‘১ এপ্রিল রাতে ২ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের অধীনস্থ শাহপরীরদ্বীপ বিওপির নায়েক মোঃ আজানুর রহমানের নেতৃত্বে একটি বিশেষ টহল দল ৫নং ¯øুইচ গেইট বরাবর বেড়ীবাঁধের নিকটবর্তী এলাকায় নিয়মিত টহলে গমন করে। অতঃপর বিশ্বস্থ গোয়েন্দা তথ্যের মাধ্যমে জানতে পারেন উক্ত এলাকা দিয়ে একটি ইয়াবার চালান মায়ানমার হতে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে পারে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে টহল দল বর্ণিত এলাকায় ঔঁৎ পেতে থাকে। পরবর্তীতে ২ এপ্রিল গভীর রাত ১.৩০টায় বেঁড়ী বাধের নিচ দিয়ে ২ জন ব্যক্তিকে একটি প্লাষ্টিকের বস্তা মাথায় করে আসতে দেখে সন্দেহ হওয়ায় টহল দল তাদের চ্যালেঞ্জ করে। টহল দলের আকষ্মিক উপস্থিতিতে ইয়াবা চোরাকারবারীরা বেড়ীবাঁধ অতিক্রম করে পার্শ্ববর্তী গ্রামে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে টহল দল ইয়াবা চোরাকারবারীর পিছনে ধাওয়া করে। এক পর্যায়ে ইয়াবা পাচারকারীরা তাদের মাথায় থাকা প্লাষ্টিকের বস্তাটি ফেলে অন্ধকারের সুযোগ নিয়ে দ্রæত দৌড়ে পার্শ্ববর্তী গ্রামে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে ইয়াবা পাচারকারী কর্তৃক ফেলে যাওয়া বস্তাটি তল্লাশী করে ৩০ লক্ষ টাকা মূল্যমানের ১০ হাজার পিস ইয়াবা ট্যাবলেট এবং ৩০ হাজার ২৫০ টাকা মূল্যমানের ১২১ ক্যান বিয়ার উদ্ধার করতে সক্ষম হয়। উদ্ধারকৃত ইয়াবা ট্যাবলেট ও বিয়ারগুলো ব্যাটালিয়ন সদরে জমা রাখা হয়েছে। যা পরবর্তীতে উর্ধতন কর্মকর্তা, মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের প্রতিনিধি, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও মিডিয়া কর্মীদের উপস্থিতিতে ধ্বংস করা হবে’। ##


সর্বশেষ সংবাদ