টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
রোহিঙ্গাদের এনআইডি কেলেঙ্কারি : নির্বাচন কমিশনের পরিচালকের বিরুদ্ধে দুপুরে মামলা, বিকালে দুদক কর্মকর্তা বদলি সড়কের কাজ শেষ হতে না হতেই উঠে যাচ্ছে কার্পেটিং! আপনি বুদ্ধিমান কি না জেনে নিন ৫ লক্ষণে ৫৫ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশি ভোটার: নিবন্ধিত রোহিঙ্গাও ভোটার! ইসি পরিচালকসহ ১১ জন আসামি হ’ত্যার পর মায়ের মাংস খায় ছেলে ব্যাংকে লেনদেন এখন সাড়ে ৩টা পর্যন্ত আগামী ১৫ জুলাই পর্যন্ত লকডাউন বাড়ল মডেল মসজিদগুলোয় যোগ্য আলেম নিয়োগের পরামর্শ র্যাবের জালে ধরা পড়লেন টেকনাফ সাংবাদিক ফোরামের সদস্য ও ইয়াবা কারবারি বিপুল পরিমাণ টাকা ও ইয়াবা উদ্ধার রোহিঙ্গাদের তথ্য মিয়ানমারে পাচার করছে জাতিসংঘ: এইচআরডব্লিউ

৭ উইকেটে জিতেছে পাকিস্তান

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর, ২০১৩
  • ১৯৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

            স্পোর্টস ডেস্ক,

ঠিক এক মাস আগে জিম্বাবুয়ের কাছে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে হেরে সিরিজ ড্র করে স্বদেশে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছিল পাকিস্তান। অথচ তারাই আইসিসি টেস্ট র‌্যাঙ্কিংয়ের এক নম্বর দল দক্ষিণ আফ্রিকাকে প্রথম টেস্টে ৭ উইকেটে হারিয়ে দিয়েছে।

দুবাইয়ে দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট শুরু হবে ২৩ অক্টোবর থেকে।
আবু  ধাবির শেখ জায়েদ স্টেডিয়ামে তৃতীয় দিনেই জয়ের সুবাস পাওয়া পাকিস্তানের সামনে  বৃহস্পতিবার চতুর্থ দিনে প্রতিরোধ গড়ার চেষ্টা করেছিলেন এবি ডি ভিলিয়ার্স ও রবিন  পিটারসন। তবে এই দুজনের প্রচেষ্টা ইনিংস হার এড়ানো ছাড়া আর কিছু দিতে পারেনি দক্ষিণ  আফ্রিকাকে।
সকালে ৪ উইকেটে ৭২ রান নিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নামার সময়  ইনিংস হার এড়াতে ১২১ রান প্রয়োজন ছিল অতিথি দলের।
প্রথম পানি-পানের বিরতির  কিছুক্ষণ আগে ‘নাইটওয়াচম্যান’ ডেল স্টেইনকে হারিয়ে ফেলে দক্ষিণ আফ্রিকা। তৃতীয় দিন  শেষে শূন্য রানে অপরাজিত স্টেইন অভিষিক্ত জুলফিকার বাবরের বাঁহাতি স্পিনে বোল্ড  হওয়ার আগে ৭ রান করেন।
পরের ব্যাটসম্যান জেপি ডুমিনি কোনো রানই করতে  পারেননি। বাঁহাতি পেসার জুনায়েদ খানের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে শূন্য হাতে ফিরতে  হয়েছে তাকে।
ডুমিনির পর নামা আরেক বিশেষজ্ঞ ব্যাটসম্যান ফাফ দু প্লেসিও তেমন  সুবিধা করতে পারেননি। ৯ রান করে সাঈদ আজমলকে ফিরতি ক্যাচ দেন তিনি। ৭ উইকেটে ১৩৩  রানে পরিণত দক্ষিণ আফ্রিকার সামনে তখন ইনিংস হারের শঙ্কা।
তবে ১১ রান নিয়ে  দিন শুরু করা ডি ভিলিয়ার্সের সঙ্গে পিটারসনের ৫৭ রানের জুটিতে দূর হয়ে যায় সেই  শঙ্কা।
শুরু থেকে আস্থার সঙ্গে খেলা ডি ভিলিয়ার্স শতকের দিকে এগোচ্ছিলেন।  কিন্তু ৯০ রান করে জুনায়েদের বলে কাভারে শান মাসুদকে সহজ ক্যাচ দিয়ে ফিরে আসতে  হয়েছে তাকে। ডি ভিলিয়ার্সের ১৫৭ বলের ইনিংসে ৭টি চার ও একটি ছক্কা।
এরপর  একাই খেলতে হয়েছে পিটারসনকে। তার অপরাজিত ৪৭ রানের সুবাদে ৩৯ রানের লিড পেয়েছে  দক্ষিণ আফ্রিকানরা।
৭৪ রানে ৪ উইকেট নিয়ে আজমল পাকিস্তানের সবচেয়ে সফল  বোলার। জুনায়েদ তিনটি ও বাবর নেন দুই উইকেট।
মাত্র ৪০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট  করতে নামা পাকিস্তানকে দুর্ভাবনায় ফেলে দিয়েছিলেন প্রতিপক্ষের দুই নতুন বলের বোলার  স্টেইন ও ভার্নন ফিল্যান্ডার।
ইনিংসের দ্বিতীয় এবং ফিল্যান্ডারের প্রথম  ওভারের দ্বিতীয় বলেই অভিষিক্ত শান মাসুদ ক্যাচ দেন উইকেটরক্ষক ডি  ভিলিয়ার্সকে।
পরের ওভারে আজহার আলীকে স্লিপে জ্যাক ক্যালিসের ক্যাচে পরিণত  করেন স্টেইন।
প্রথম ইনিংসে ১৪৬ রান করা খুররাম মনজুর তার পরের ওভারেই আউট।  তিনি ফিল্যান্ডারের বলে ডি ভিলিয়ার্সকে ক্যাচ দিলে স্কোর দাঁড়ায় ৭/৩।
তবে  দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান মিসবাহ-উল-হক ও ইউনুস খানের দৃঢ়তায় আর কোনো ক্ষতি হয়নি  পাকিস্তানের।
দ্বিতীয় ছক্কা মেরে দলকে জয় এনে দেয়া মিসবাহ অপরাজিত থেকে যান  ২৮ রানে। ইউনুসের অবদান অপরাজিত ৯।
সংক্ষিপ্ত স্কোর:
দক্ষিণ  আফ্রিকা: ২৪৯ (আমলা ১১৮, ডুমিনি ৫৭; ইরফান ৩/৪৪, বাবর ৩/৮৯) ও ২৩২ (স্মিথ ৩২,  পিটারসেন ১৭, আমলা ১০, ক্যালিস ০, ডি ভিলিয়ার্স ৯০, স্টেইন ৭, ডুমিনি ০, দু প্লেসি  ৯, পিটারসন ৪৭*, ফিল্যান্ডার ১০, মরকেল ০; আজমল ৪/৭৪, জুনায়েদ ৩/৫৭, বাবর ২/৫১,  ইরফান ১/৪২)
পাকিস্তান: ৪৪২ (মনজুর ১৪৬, মিসবাহ ১০০, মাসুদ ৭৫, শফিক ৫৪;  ফিল্যান্ডার ৩/৮৪, স্টেইন ৩/৮৮) ও ৪৫/৩ (মনজুর ৪, মাসুদ ০, আজহার ৩, ইউনুস ৯*,  মিসবাহ ২৮*; ফিল্যান্ডার ২/১১, স্টেইন ১/৭)
ম্যাচ সেরা: খুররাম  মনজুর।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT