টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

৬১ জন নিহতের তালিকা জমা দিয়েছে ‘অধিকার’

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শনিবার, ১৭ আগস্ট, ২০১৩
  • ১৬৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

odhiker1-300x180 রাজধানীর মতিঝিলে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের সমাবেশে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর (র‌্যাব, পুলিশ ও বিজিবির যৌথ বাহিনী) হাতে ‘৬১ জন’ নিহত হয়েছে বলে মানবাধিকার সংস্থা অধিকার দাবি করে আসছে। এর উপযুক্ত তথ্যপ্রমাণও তাদের কাছে আছে বলে দাবি সংগঠনটির। ‘৬১ জনের’ এই তালিকা অধিকার জাতিসংঘের বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড বন্ধের স্পেশাল র‌্যাপোর্টার, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, এশিয়ান হিউম্যান রাইটস কমিশন এবং আইন ও সালিশ কেন্দ্রের (আসাক) কাছে পাঠিয়েছে। এ ব্যাপারে আসাকের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তাদের পক্ষ থেকে জানানো হয়, তারা এখনো এ ধরনের কোনো তালিকা পায়নি। তবে ৬১ জনের এই তালিকা চাইলেও সরকারকে না দিয়ে ওপরে উল্লিখিত সংগঠনগুলোর কাছে পাঠানো হয়েছে বলে আজ শুক্রবার এক বিবৃতিতে দাবি করেছে অধিকার। অধিকারের পুরো বিবৃতিটি নিচে তুলে ধরা হলো— অধিকার গত ১০ জুন ২০১৩ ‘হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ-এর সমাবেশ এবং মানবাধিকার লঙ্ঘন’ শীর্ষক একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। ৫ মে ২০১৩ হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ যে সমাবেশ ডাকে সেই সমাবেশকে কেন্দ্র করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীসহ যৌথ বাহিনীর হাতে ৬১ জন নিহত হয়েছে বলে অধিকার জানতে পারে। গত ১০ জুলাই তথ্য মন্ত্রণালয় থেকে মৃতের তালিকা অধিকারের কাছে চাওয়া হলে গত ১৭ জুলাই অধিকার পরিষ্কারভাবে ব্যাখ্যা করেছে যে, ভিকটিমদের পরিবারগুলোর আশঙ্কা তাদের পরিবারের সদস্যদের হয়রানি করতে পারে, তাই ভিকটিমদের নিরাপত্তার স্বার্থে সরকার যদি নিরপেক্ষ তদন্ত কমিশন গঠন করে, তবেই অধিকার ৫ ও ৬ মে ঘটনায় নিহতের তালিকা প্রকাশ করবে। কারণ তদন্ত কমিশন আইন ১৯৫৬ অনুযায়ী সরকারকে তদন্ত কমিশন গঠনের ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। কিন্তু সরকার অধিকারের এই সুপারিশ আমলে না নিয়ে গত ১০ আগস্ট অধিকারের সেক্রেটারি আদিলুর রহমান খানকে অন্যায়ভাবে গ্রেপ্তার করে। ১১ আগস্ট ডিবি পুলিশ অধিকারের দুটি ল্যাপটপ ও তিনটি সিপিইউ জব্দ করে, যার মধ্যে এ ঘটনার বেশ কিছু ভিকটিমের তথ্য ছিল। এই উদ্ভূত পরিস্থিতিতে অধিকার মনে করে, ভিকটিম পরিবারগুলোর নিরাপত্তার স্বার্থে আন্তর্জাতিক ও জাতীয় মানবাধিকার সংগঠনগুলোকে তালিকা দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনায় নেওয়া উচিত। কারণ ইতিমধ্যেই ডিবি পুলিশ ভিকটিম পরিবারগুলোর ওপর নজরদারি করতে শুরু করেছে। এই প্রেক্ষাপটে অধিকার ৬১ জনের তালিকাটি জাতিসংঘের বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড বন্ধের স্পেশাল র্যাপোর্টার, হিউম্যান রাইটস ওয়াচ, অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, এশিয়ান হিউম্যান রাইটস কমিশন এবং আইন ও সালিশ কেন্দ্রকে আজ ১৬ আগস্ট প্রেরণ করলো। প্রথম আলো

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT