টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা সবচেয়ে বড় ভুল : ডা. জাফরুল্লাহ মাদক কারবারি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত সাংবাদিক আব্দুর রহমানের উদ্দেশ্যে কিছু কথা! ভারী বৃষ্টির সতর্কতা, ভূমিধসের শঙ্কা মোট জনসংখ্যার চেয়েও ১ কোটি বেশি জন্ম নিবন্ধন! বাড়তি নিবন্ধনকারীরা কারা?  বাহারছড়া শামলাপুর নয়াপাড়া গ্রামের “হাইসাওয়া” প্রকল্পের মাধ্যমে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ ও বার্তা প্রদান প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর উদ্বোধন উপলক্ষে টেকনাফে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফ্রিং টেকনাফের ফাহাদ অস্ট্রেলিয়ায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছে নিখোঁজের ৮ দিন পর বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা মিয়ানমারে পিডিএফ-সেনাবাহিনী ব্যাপক সংঘর্ষ ২শ’ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস বিল গেটসের মেয়ের জামাই কে এই মুসলিম তরুণ নাসের

৩০ আগস্ট প্রস্তুতির আহ্বান:আল্লামা শফীর পূর্ণ কন্ট্রোলেই হেফাজতে ইসলাম

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ২৫ আগস্ট, ২০১৩
  • ১৪৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

sofiশুরু থেকে এখন পর্যন্ত হেফাজতে ইসলামের সব কিছু নিজের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে বলে দাবি করেছেন আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী।

শনিবার এক বিবৃতিতে তিনি এই দাবি করেন। মূলত গণমাধ্যম ও ব্যক্তি বিশেষের হেফাজত সম্পর্কে বিভ্রান্তিকর তথ্যের প্রতিবাদে বিবৃতি দেন দারুল উলূম হাটহাজারীর এই মহাপরিচালক।

এতে আল্লামা শাহ আহমদ শফী বলেন, ‘হেফাজতে ইসলামের প্রতিষ্ঠাকাল থেকে এখন পর্যন্ত সকল কর্মসূচি ও তৎপরতা আমার পূর্ণ অবগতি ও নিয়ন্ত্রণে পরিচালিত হচ্ছে। কেন্দ্রীয় কোনো কর্মসূচিই আমার অগোচরে পরিচালিত হয়নি।’

তিনি বলেন, ‘ঢাকা অবরোধ পরবর্তী ৫ মে শাপলা চত্বরে মহাসমাবেশ ও অবস্থান সম্পর্কে সাংবাদিক সম্মেলন ও বিবৃতির মাধ্যমে প্রকৃত ঘটনা জাতির সামনে আমি বার বার তুলে ধরেছি। হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কমিটির কোনো নেতাকর্মীই আমার নিয়ন্ত্রণের বাইরে নেই। নতুন করে কাউকে বহিষ্কার ও সংগঠনে যুক্ত করার ব্যাপারে কোনো আলোচনাই হয়নি।’

আল্লামা শফী অভিযোগ করেন, ‘অথচ নাস্তিক্যবাদী ও তাদের আশ্রয়-প্রশ্রয়দাতাদের পাতা ফাঁদে পা দিয়ে কেউ কেউ উলামায়ে কেরাম ও তৌহিদী জনতার বর্তমান মজবুত ঐক্যে ফাটল ধরাবার ঘৃণ্য প্রয়াসে লিপ্ত হয়েছেন। এটা চরম অগ্রহণযোগ্য ও নিন্দনীয়।’

তিনি এ ব্যাপারে সতর্ক ও সজাগ দৃষ্টি রাখার জন্য নেতাকর্মী ও তৌহিদী জনতার প্রতি আহ্বান জানিয়ে আরো বলেন, ‘হেফাজতের নাম ও পদবি ব্যবহার করে রাজনীতি সংশ্লিষ্ট, বিভেদ তৈরি ও ঐক্যবিরোধী কোনো বক্তব্য ও তৎপরতা কারো কাছ থেকে প্রকাশ পেলে তাৎক্ষণিকভাবে তাকে সতর্ক করতে হবে। এরপরও নিবৃত্ত না হলে তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিকভাবে কঠোর সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

হেফাজত আমির বলেন, ‘ইসলাম ও মুসলমানদের বর্তমান সংকটময় সময়ে যারাই এমন অপতৎপরতায় জড়িত হবে, তারা ঘৃণিত ও প্রত্যাখ্যাত হবে।’

বিবৃতিতে তিনি আবারো উল্লেখ করেন, ‘হেফাজতে ইসলাম ঈমান-আক্বীদাভিত্তিক একটি আধ্যাত্মিক ও অরাজনৈতিক সংগঠন। আমরা জোরালভাবে স্পষ্ট করছি যে, এ সংগঠন গদি ও ক্ষমতা দখলের প্রতিযোগিতায় কখনো শামিল হবে না। সুতরাং হেফাজতের নাম ও পদবি ব্যবহার করে বক্তব্য দেওয়ার সময় নেতাকর্মীদের সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।’

হেফাজত আমির সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘মিথ্যা প্রচারণা ও জুলুম-অত্যাচার বন্ধ করে এখনো সময় আছে দেশ ও জাতির স্বার্থে হেফাজতের ১৩ দফা দাবি মেনে নিন। উলামা-মাশায়েখ ও মুসলমানরা কখনো জেল-জুলুম ও অন্যায়ের কাছে মাথা নত করতে জানে না।’

তিনি অবিলম্বে নারায়ণগঞ্জসহ সারা দেশে গ্রেপ্তারকৃত মাদ্রাসা পরিচালক, উলামা-মাশায়েখ ও খতিব-ইমামদের মুক্তি দেওয়ার এবং হেফাজতের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের আহ্বান জানান।

আল্লামা শফী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় বর্তমানে এত বেশি মিথ্যাচার হচ্ছে যে, সাধারণ মানুষ সত্য উদ্ঘাটনে চরম বিভ্রান্ত হচ্ছেন। ৫ মে শাপলা চত্বরে রাতের আঁধারে তৌহিদী জনতার উপর বর্বরোচিত হামলার ঘটনায় সরকার কোনো নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠন করেনি। অথচ এই অপতৎপরতার কথা কেউ প্রকাশ করলে তাকে নির্যাতনের শিকার হতে হচ্ছে।

তিনি সরকারের প্রতি মিথ্যা প্রচারণা বন্ধ করে ৫ ও ৬ মে শাপলা চত্বরের গণহত্যা এবং কুরআন পোড়ানোর ঘটনার নিরপেক্ষ বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে দোষীদের চিহ্নিত করে কঠোর শাস্তিদানের আহ্বান জানান।

এদিকে, হেফাজতের মৌলভীবাজার জেলা আমির মাওলানা শেখ সৈয়দ মাসউদের নেতৃত্বে ৪৪ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল শনিবার কেন্দ্রীয় কার্যালয় হাটহাজারী মাদ্রাসায় হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফীর  সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন।

এ সময় আল্লামা শফী তাদের বলেন, ‘সরকারের পক্ষ থেকে যত ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত চলুক ১৩ দফার আন্দোলন থেকে আমরা নড়ব না। ঈমান-আক্বীদা রক্ষার এ আন্দোলনে সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের সর্বোচ্চ তাকওয়া, এখলাছ এবং ত্যাগের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।’

আগামী ৩০ আগস্ট যথাযথভাবে দোয়া দিবস পালনের আহবান জানিয়ে তিনি আরো বলেন, ‘যত বাধা-বিপত্তি আসুক না কেন আমাদের সিসাঢালা প্রাচীরের মত ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে।’

৪৪ সদস্যের এ প্রতিনিধি দলে আরো উপস্থিত ছিলেন- হেফাজতের মৌলভীবাজার জেলার সিনিয়র সহ-সভাপতি মাওলানা কাজী মাহমুদুল হাসান রায়পুরী, জেলা নেতা মাওলানা মাসুকুর রহমান, প্রথম যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক  শরীফ খালেদ সাইফুল্লাহ, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা আবদুল হাকীম, জেলা সহ-সাধারণ সম্পাদক মাহমুদল করিম রুবেন, সহ-সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মাসুক আহম্মদ, মাওলানা আবদুল গাফ্‌ফার, ইউকে হেফাজত নেতা মাওলানা নুরে আলম হামিদী, মাওলানা লুৎফুর রহমান, মাওলানা ফজলুল হক, মাওলানা খন্দকার সাব্বির আহম্মদ, মাওলানা আকরাম আলী, ছাত্রনেতা রিয়াজুল হাসান সেজুল, হাফেজ আতিকুর রহমান, আরতাফুর রহমান, রেদওয়ান আহম্মদ রাজু, সাব্বির আহম্মদ প্রমুখ।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT