হ্নীলা ও সাবরাং উপ-নির্বাচনে ‘হেভিওয়েট’ প্রার্থীদের জমজমাট প্রচারণা

প্রকাশ: ২২ জুলাই, ২০১৯ ১:৪৫ : পূর্বাহ্ণ

 

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ … ৩ জন হেভিওয়েট চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীদের জমজমাট প্রচারণা চলছে টেকনাফ উপজেলার ২নং হ্নীলা ইউনিয়নে। অপরদিকে ৪নং সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের সংরক্ষিত মহিলা আসন নং-১ উপ-নির্বাচনেও একই অবস্থা। এখানেও প্রার্থীর সংখ্যা ৩। কেউ কারও চেয়ে কম নন। ১০ জুলাই প্রতীক বরাদ্দের পরপরই প্রচারণা শুরু করেছেন প্রার্থীরা। হাতেগোনা মাত্র কয়েকটা দিন প্রচারণার সুযোগ পেয়েছেন। ঘোষিত তপসীল মতে ২৫ জুলাই বৃহষ্পতিবার অনুষ্টিত হবে উপ-নির্বাচন। হ্নীলা ইউনিয়নের ৯টি কেন্দ্রে মোট ভোটার সংখ্যা ২৫ হাজার ২০৩ জন। তম্মধ্যে পুরুষ ১২ হাজার ৫৫৮ জন এবং মহিলা ১২ হাজার ৬৪৫ জন। সাবরাং ইউনিয়নের সংরক্ষিত মহিলা আসন-১ (ওয়ার্ড নং-১,২,৩) ৩টি কেন্দ্রে মোট ভোটার সংখ্যা ৯ হাজার ৫৬৬ জন। তম্মধ্যে পুরুষ ৪ হাজার ৬৬৭ জন এবং মহিলা ৪ হাজার ৮৯৯ জন।
১০ জুলাই সকালে রিটার্ণিং অফিসার টেকনাফ উপজেলা নির্বাচন অফিসার বেদারুল ইসলামের কার্যালয়ে হ্নীলা ও সাবরাং ইউপি উপ-নির্বাচনে প্রতিদ্বন্ধী প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ দেওয়া হয়। হ্নীলা ইউনিয়নেচেয়ারম্যান পদপ্রার্থী আওয়ামীলীগ মনোনীত রাশেদ মাহমুদ আলী (নৌকা), এড. মীর মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (মোটর সাইকেল) আলহাজ¦ জালাল উদ্দিন চৌধুরী (আনারস) এবং সাবরাং ইউনিয়নে সংরক্ষিত মহিলা আসন-১ (ওয়ার্ড নং-১,২,৩) পদে আমিনা খাতুন (হেলিকপ্টার), শাহেনা বেগম (মাইক), ছেনুয়ারা বেগম (সূর্যমুখী ফুল) পেয়েছেন। প্রার্থীগণ প্রতীক বরাদ্দ পেয়ে স্ব-স্ব এলাকায় আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করেছেন। দুই ইউনিয়নের ৬ জন প্রার্থীই নির্বাচন সুষ্ট ও নিরপেক্ষ হওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী।
হ্নীলা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদন্ধীতাকারী ৩ জনই হেভিওয়েট প্রার্থী। ৩ জনই রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। পাশাপাশি ৩ জনেরই রয়েছে পারিবারিক সুখ্যাতি ও ঐতিহ্য। এদের মধ্যে ১জন সাবেক চেয়ারম্যানও রয়েছেন।
এলাকার ভোটারগণ জানান, ৩ জন প্রার্থীরই বাড়ি কাছাকাছি অবস্থানে। এড. মীর মোঃ জাহাঙ্গীর আলমের (মোটরসাইকেল) বাড়ি ১নং ওয়ার্ডে। আওয়ামীলীগের মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী রাশেদ মাহমুদ আলীর (নৌকা) বাড়ি ৩নং ওয়ার্ডে। আলহাজ¦ জালাল উদ্দিন চৌধুরীর (আনারস) বাড়ি ৪নং ওয়ার্ডে। ভৌগলিক অবস্থানে ২নং ওয়ার্ডটি এড. মীর মোঃ জাহাঙ্গীর আলমের (মোটরসাইকেল) বাড়ির নিকটবর্তী। অবশিষ্ট ৫টি ওয়ার্ড খালি। উক্ত ৫টি ওয়ার্ড থেকে যে প্রার্থী বেশী ভোট পাবেন তিনিই জয়ী হবেন। বর্তমানে সমান তালে চলছে প্রচারণা।
সাবেক এমপি ও টেকনাফ উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ¦ অধ্যাপক মোহাম্মদ আলীর পুত্র আওয়ামীলীগের মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী রাশেদ মাহমুদ আলী (নৌকা) বলেন, ‘জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলীয়ভাবে আমাকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দেওয়ায় আমি চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দিতা করছি। আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, ওলামালীগ, মহিলালীগ, কৃষকলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ, মৎস্যজীবিলীগ, তাঁতীলীগসহ অন্যান্য অঙ্গ-সংগঠন সমন্বিতভাবে কাজ করলে ইনশল্লাহ জনগণের রায়ে নৌকা প্রতীককে জয়ী করে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে পারব। এতে মরহুম এইচকে আনোয়ারের অসমাপ্ত উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করতে সক্ষম হবো’।
প্রয়াত আলহাজ¦ আবদুল গফুর চৌধুরীর পুত্র সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ¦ জালাল উদ্দিন চৌধুরী (আনারস) বলেন, ‘আমি দীর্ঘ ৫ বছর অত্র ইউনিয়নের জনগণের সেবায় নিয়োজিত ছিলাম। তারাই আমার সম্পর্কে ভালো জানেন। অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলে ইনশাআল্লাহ জনগণের রায়ে আমি বিজয়ী হব’।
প্রয়াত চেয়ারম্যান মাস্টার মীর কাসেমের পুত্র এড. মীর মোঃ জাহাঙ্গীর আলম (মোটরসাইকেল) বলেন, ‘নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটারগণ ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারলে ইনশাআল্লাহ আমি জয়ী হব’।
উল্লেখ্য, গত বছরের ১৮ অক্টোবর সকাল সাড়ে ১১টায় টেকনাফ উপজেলা পরিষদ এলাকায় হার্টস্ট্রোক হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে সাবরাং ইউনিয়নের (১, ২ ও ৩নং ওয়ার্ডের) সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার আয়েশা বেগম ইন্তেকাল করেন। অপরদিকে চলতি বছরের ১৮ মার্চ সন্ধ্যায় উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের সাবরাং বাজারে নির্বাচনী জনসভায় বক্তব্য রাখার পর হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার নেয়ার পথে হ্নীলা ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ¦ এইচকে আনোয়ার সিআইপি মৃত্যুবরণ করায় আসন ২টি সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় শুন্য ঘোষণা করেন। ##


সর্বশেষ সংবাদ