টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭সহকারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে অর্থআত্বসাত মামলা -দুদকে মিথ্যার আশ্রয় !

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ৫ নভেম্বর, ২০১২
  • ১৪০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

রমজান উদ্দিন পটল… টেকনাফের হ্নীলা হাই স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান তাঁর নিজের বিরুদ্ধে অব্যাহত দুর্নীতি, প্রতারণা ও জালিয়াতির অভিযোগ ঢাকাতে উল্টো ৭ সহকর্মির বিরুদ্ধে অর্থআত্মসাথের অভিযোগ দিতে খোদ দুদকে গিয়েও দুনীতির ঘটনা ঘটিয়েছে। সোমবার দুপুরে চট্টগ্রাম দুর্নীতি দমন কমিশনের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ মাহমুদুর রহমানের দপ্তরে ওই স্কুলের ৬ শিক্ষককে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে এ ঘটনা ধরা পড়ে।

সংশ্লিষ্ট সুত্রে জানা যায়, সোমবার  দুপুর ১১টার দিকে হ্নীলা হাই স্কুলের ৬ শিক্ষক মোস্তফা কামাল, প্রবাল চন্দ্র পাল, শ্বেতলাল চন্দ্র দাশ, ছিদ্দিক আহমদ,  মোহাম্মদ ছলাহ উদ্দিন ও মোস্তাক আহমদ সজেক-২ এর সহকারী পরিচালকের তলবীপত্র পেয়ে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদস্থ দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদুক) কার্যালয়ে যান। ওই স্কুলের তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত প্রধান  বর্তমানে সহকারী প্রধান শিক্ষক আব্দুস সালাম তাদের বিরুদ্ধে ইতিপূর্বে দুদকে সাড়ে ৪ লাখ টাকার অর্থআত্মসাতের অভিযোগ দায়ের করেছেন। সে প্রেক্ষিতে দুদকের  সহকারী পরিচালক গতকাল সোমবার ৬ শিক্ষককে জিজ্ঞাসাবাদকালে তাদের সপক্ষে ভাউচার, রেজুলেশনসহ বিভিন্ন নথি-প্রমাণ পত্র উত্থাপন করা কালে দেখা যায়, শিক্ষকদের উত্থাপিত নথিপত্র এবং ইতিপূর্বে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুস সালাম কর্তৃক দুদক কার্যলয়ে জমা দেয়া একই ধরণের নথিপত্রে ব্যাপক গড়মিল পরিলক্ষিত হয়। এসময়  দুদক সহকারী পরিচালকের দুই ঘন্টা ব্যাপি অনুসন্ধানে দেখা যায়, ভারপ্রাপ্ত প্রধান আব্দুস সালাম নিজেকে বাঁচাতে এবং সহকর্মীদের ফাঁসাতে বেশ কয়েকটি স্পর্শকাতর নথি পত্রের বিভিন্ন স্বাক্ষর, তথ্য, টাকার অংক, হাতে লেখা মন্তব্য ইত্যাদি ফ্লুইড কালি দিয়ে মুছে তা ফটোকপি করেছেন। এছাড়া দু’জন শিক্ষকের স্বাক্ষর কম্পিউটার স্কেনারের মাধ্যমে স্কেনিং করে জাল করা হয়েছে।

নিরীহ সহকর্মীদের ফাঁসাতে গিয়ে খোদ দুদক কার্যলয়ে এহেন ও জালিয়াতি দেখে সয়ং তদন্ত কর্মকর্তা দুদক সহকারী পরিচালক হতভাগ হয়ে যান। এ খবর বিকালের দিকে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রচারিত হলে সচেতন মানুষের মাঝে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়। উল্লেখ্য স্কুলের ভারপ্রাপ্ত শিক্ষক বাদী হয়ে আদালতে মামলা দায়ের করলে আদালত দু উপরোক্ত বিষয়ে দককে তদন্তের দায়িত্বভার দেয়।  তৎকালীন বাদী আব্দুস সালামের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করে তার অনিয়ম দুর্নীতি ধামাচাপা দেয়ার অপচেষ্টা বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন- দুর্নীতি, প্রতারণা ও জালিয়াতির অভিযোগ ঢাকাতে উল্টো ৭ সহকর্মির বিরুদ্ধে অভিযোগ এমন কথা সত্য নয়। তাদের বিরুদ্ধে সু নির্দিষ্ট অভিযোগের বিত্তিতে আইনের আশ্রয় নিয়েছি।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT