টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

হ্নীলা ইউনিয়ন ভূমি অফিসে অনিয়ম ও দূর্ভোগের শেষ নেই

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ৬ জানুয়ারি, ২০১৩
  • ১৫৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

টেকনাফ প্রতিনিধি, টেকনাফ,
টেকনাফের হ্নীলা ও হোয়াইক্যং ইউনিয়নের একমাত্র ভূমি অফিসে নানান অনিয়ম ও দূর্ভোগের শেষ নেই। নামজারী জমাভাগ খতিয়ান সৃজন, দাখিলা কাটা ও নানান অনিয়মসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তার অনিয়মিত উপস্থিতি নিয়ে ভূক্তভোগীদের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। বিভিন্ন অজুহাতে ভূমি অফিস কর্মকর্তা মোঃ সাইফুল ইসলাম সপ্তাহে ৩/৪  দিন অফিসে অনুপস্থিত থাকেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এতে করে হ্নীলা ও হোয়াইক্যং ইউনিয়ন সংশ্লিষ্ট শত শত ভূমির মালিক ও ভূক্তভোগী লোক জনকে সীমাহীন দূর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে বলেও অভিযোগ উঠেছে। এব্যপারে সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন হ্নীলা ও হোয়াইক্যংবাসী।
অফিস এলাকায় দূর্ভোগের শিকার লোকজন জড়ো হয়ে ঘন্টার পর ঘন্টা অফিসারের অপেক্ষায় অবস্থান করছে। অথচ সরকার টেকনাফের দুই জনবহুল ইউনিয়ন হ্নীলা ও হোয়াইক্যংয়ের ভূমি মালিকদের সুবিধার্থে টেকনাফ যাতায়াতসহ নানানমুখি দূর্ভোগ থেকে লোকজনকে রক্ষার কথা বিবেচনায় এনে হ্নীলা ইউনিয়ন ভুমি অফিসটির কার্য্যক্রম চালু রাখেন। কিন্তু ভূমি কর্মর্কতা সাইফুল ইসলাম যোগদানের পর থেকে অফিসটিতে চলছে নানা অনিয়ম দূর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেশ কয়েকজন ভুক্ত ভোগী লোকজন এই প্রতিবেদক কে অভিযোগ করে জানান যোগদানের পর থেকে ভূমি কর্মকর্তা নানান অজুহাতে অফিসে নিয়মিত উপস্থিত থাকেনা। ২/৩ জন কর্মচারীকে ব্যবহার করে অফিসের কার্য্যক্রম চালানোর ফলে শতশত লোকজনের ফাইল অফিস বন্ধি হয়ে পড়েছে শুধু মাত্র কর্মকর্তার একটি স্বাক্ষরের জন্য। নির্দিষ্ট কয়েকজন অফিস পিয়ন ভুক্তভোগী লোকজনের কাছ থেকে ফাইল গুলো নিয়ে লেখা লেখির যাবতীয় কার্য্যক্রম সম্পাদন করার পরও কর্মকর্তা উপস্থিত না হওয়াতে সপ্তাহর পর সপ্তাহ সময় ক্ষেপন করে চলে। হঠাৎ কর্মকর্তা সপ্তাহে ১/২ দিন অফিসে বসে নামজারী জমাভাগ খতিয়ান সৃজন, দাখিলা কাটার সময় নির্ধারিত ফিঃ’র  অতিরিক্ত টাকা দাবি করে বসে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। তাছাড়া খতিয়ান তামিলের রেজিষ্ট্রার নাই বলে বারবার সময় ক্ষেপন করে যাচ্ছেন। নির্ধারিত ফি: প্রদানের পরও অতিরিক্ত টাকা না দিলে রিসিভ ও ফাইলে স্বাক্ষর করে না বলে গুরুতর অভিযোগ ভুক্ত ভোগীদের।
এছাড়াও তার সাথে সখ্যতা রয়েছে এমন কিছু সুবিধাভোগী ব্র্রোকারদের কাজ পেলে মোটা অংকের টাকার চুক্তিতে দ্রুত কাজ করে দেয় বলেও জানা গেছে। ফলে মোটা অংকের মাধ্যমে কাজ করে দেয়ার সুবাধে শতশত গরীব লোকজন টাকার অভাবে কাজ করতে পারেনা। এব্যপারে হ্নীলা ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা সাইফুল ইসলামের সাথে মুঠো ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি অফিসে উপস্থিতির বিষয়ে বিভিন্ন অফিস বা মাঠ পর্যায়ে সময় দেয়ার কথা বলে অন্য সব বিষয় এড়িয়ে যান।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT