টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা সবচেয়ে বড় ভুল : ডা. জাফরুল্লাহ মাদক কারবারি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত সাংবাদিক আব্দুর রহমানের উদ্দেশ্যে কিছু কথা! ভারী বৃষ্টির সতর্কতা, ভূমিধসের শঙ্কা মোট জনসংখ্যার চেয়েও ১ কোটি বেশি জন্ম নিবন্ধন! বাড়তি নিবন্ধনকারীরা কারা?  বাহারছড়া শামলাপুর নয়াপাড়া গ্রামের “হাইসাওয়া” প্রকল্পের মাধ্যমে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ ও বার্তা প্রদান প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর উদ্বোধন উপলক্ষে টেকনাফে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফ্রিং টেকনাফের ফাহাদ অস্ট্রেলিয়ায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছে নিখোঁজের ৮ দিন পর বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা মিয়ানমারে পিডিএফ-সেনাবাহিনী ব্যাপক সংঘর্ষ ২শ’ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস বিল গেটসের মেয়ের জামাই কে এই মুসলিম তরুণ নাসের

হেফাজতের স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচিতে পুলিশের লাঠিচার্জ

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৩
  • ১৮৩ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

back-হেফাজতে ইসলাম গতকাল স্মারকলিপি দিতে গেলে পুলিশ লাঠিচার্জ করে : নয়া দিগন্ত রাজধানীতে হেফাজতে ইসলামের পূর্বঘোষিত স্মারকলিপি দেয়ার কর্মসূচিতে বাধা দিয়েছে পুলিশ। এ সময় বায়তুল মোকাররম এলাকায় হেফাজতকর্মীদের ওপর পুলিশ লাঠিচার্জ করে। এ ছাড়া গোলাপশাহ মাজার ও হাইকোর্ট এলাকায় নেতাকর্মীরা জড়ো হওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ ধাওয়া দিয়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এরই মধ্যে একটি প্রতিনিধি দল ঢাকা জেলা প্রশাসকের কাছে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেন। ‘কওমি মাদরাসা শিা কর্তৃপ আইন-২০১৩’ জাতীয় সংসদে পাস করা থেকে বিরত থাকা ও হেফাজতে ইসলাম ঘোষিত ১৩ দফা বাস্ত—বায়নের জন্য প্রধানমন্ত্রী বরাবরে হেফাজতের প থেকে এই স্মারকলিপি দেয়া হয়। কেন্দ্রঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে বুধবার প্রধানমন্ত্রী বরাবর জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর স্মারকলিপি দেয়ার পূর্বঘোষিত কর্মসূচি ছিল হেফাজতের। সে অনুযায়ী সকাল সাড়ে ১০টার দিকে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা বায়তুল মোকাররম মসজিদের দণি গেটে জড়ো হতে থাকে। এ সময় পুলিশ তাদের বাধা দেয় ও একপর্যায়ে লাঠিচার্জ করে তাদের সেখান থেকে সরিয়ে দেয়। পরে হেফাজতের নেতাকর্মীরা গুলিস্তান গোলাপশাহ মাজারের সামনে আবার জড়ো হওয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ ফের লাঠিচার্জ করে এবং সেখান থেকেও তাদের সরিয়ে দেয়। এ ঘটনায় বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন বলে হেফাজতের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে। পরে পুলিশি বাধা অতিক্রম করে অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী জজ কোর্ট মসজিদ প্রাঙ্গণে বেলা সকাল সাড়ে ১১টায় জমায়েত হয়। এ সময় সেখানে মিছিলের চেষ্টা করলে পুলিশ আবারো বাধা দেয়। দুপুর ১২টায় সময় হেফাজতের ঢাকা মহানগর নায়েবে আমির মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনীর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল ঢাকা জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে গিয়ে স্মারকলিপি দেন। প্রতিনিধি দলে আরো ছিলেন মাওলানা ফজলুল করীম কাসেমী, মাওলানা শফিক উদ্দীন, মাওলানা হাবীবুল্লাহ মিয়াজী, মাওলানা মহিউদ্দীন ইকরাম, মাওলানা আলতাফ হোসাইন, মাওলানা ফখরুল ইসলাম, মাওলানা ফয়সাল আহমদ ও মাওলানা আনছারুল হক ইমরান প্রমুখ। স্মারকলিপি দিয়ে শেষে কোর্ট মসজিদ প্রাঙ্গণে দোয়ার মাধ্যমে কর্মসূচি সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়। স্মারকলিপিতে বলা হয়, কওমি মাদরাসা প্রধানত কুরআন-সুন্নাহভিত্তিক পাঠ্যক্রমের আলোকে উন্নত নৈতিক চরিত্রের অধিকারী ধর্মতত্ত্ববিদ ও আদর্শ নাগরিক তৈরির বিশেষায়িত শিাপ্রতিষ্ঠান। এর অন্তর্নিহিত তাৎপর্য, আবেদন ও প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে সম্যক জ্ঞান অর্জন ছাড়া কোনো ব্যবস্থা, নীতিমালা বা তথাকথিত সংস্কার চাপিয়ে দেয়া হলে ঈমান-আমলের এই সোনালি পরিবেশ ধ্বংস হয়ে যেতে বাধ্য, যা প্রকারান্তরে সাধারণ মুসলমানদের আকিদা-বিশ্বাস, আমল ও ধর্মীয় কর্মকাণ্ডের বুনিয়াদ ধসিয়ে দেয়ার শামিল। কওমি কর্তৃপক্ষ গঠনের লক্ষ্যে আইন পাসের সরকারি উদ্যোগের কথা উল্লেখ করে বলা হয়, এই আইন পাস হলে এ দেশে কওমি মাদরাসার অস্তিত্ব ও স্বাধীন ধর্মীয় চর্চার অপমৃত্যু ঘটবে। কওমি শিাধারাকে বিলুপ্ত করার আইনটি কিছুতেই মেনে নেয়া যায় না। দেশে বিদ্যমান হাজার হাজার কওমি মাদরাসার পে এ নীতিমালা কিছুতেই মেনে নিতে পারে না। স্মারকলিপিতে বল হয়, ‘কওমি মাদরাসা শিা কর্তৃপ-২০১৩ খসড়া নীতিমালাকে আইনে রূপান্তরিত করার তৎপরতা অবিলম্বে বন্ধ করা হোক। দেশ ও জাতির বৃহত্তর কল্যাণে হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা বাস্তবায়ন করা হোক। অন্যথায় দেশের সব কওমি মাদরাসার প থেকে হেফাজতে ইসলাম এ ব্যাপারে কঠিন কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবে। গাজীপুর সংবাদদাতা জানান, হেফাজতের গাজীপুর জেলা শাখার উদ্যোগে গতকাল স্মারকলিপি দেয়া হয়। হেফাজতের গাজীপুর জেলা সভাপতি মুফতি মাসুদুল করিম, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা ফজলুর রহমান ও জেলা কমিটির সদস্য মাওলানা নিজাম উদ্দিনের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল জেলা প্রশাসকের কাছে এই স্মারকলিপি দেন। চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, পূর্বঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী ‘কওমি মাদরাসা শিা কর্তৃপ-২০১৩ খসড়া নীতিমালাকে আইনে রূপান্তরিত করার তৎপরতা অবিলম্বে বন্ধ করা এবং দেশ ও জাতির বৃহত্তর কল্যাণে হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা বাস্তবায়নের দাবিসংবলিত জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দিয়েছে হেফাজতে ইসলাম। হেফাজতে ইসলাম চট্টগ্রাম মহানগরীর উদ্যোগে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসকের কাছে দুপুর ১২টায় স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। স্মারকলিপি প্রদানের সময় উপস্থিত ছিলেন মহানগর হেফাজতে ইসলাম নেতা মাওলানা মঞ্জুরুল কাদের চৌধুরী, মুহাদ্দিস মাওলানা নুরুল হক, অ্যাডভোকেট নেজাম উদ্দীন, মাওলানা আনোয়ার হোসেন রব্বানী, মাওলানা হাফেজ সাইফুল হক, মাওলানা আবু সালেহ, কে এম আলী হাসান, মাওলানা বশির আহমদ প্রমুখ। উল্লেখ্য, হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের উদ্যোগে গত ২১ সেপ্টেম্বর বাবুনগর মাদরাসায় অনুষ্ঠিত জাতীয় ওলামা-মাশায়েখ সম্মেলনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান কর্মসূচি পালন করা হয়। পটিয়া উপজেলার স্মারকলিপি প্রদান : হেফাজতে ইসলাম পটিয়া শাখার উদ্যোগে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে স্মারকলিপি দেন। চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার যুগ্ম সম্পাদক মাওলানা মাহবুবুর রহমান হানিফ, মাওলানা নুরুল আলম চৌধুরী, মাওলানা মকসুদুর রহমান, মাওলানা বেলাল উদ্দীন, মাওলানা আবদুর রহীম, মাওলানা রেজোয়ান প্রমুখ এ সময় উপস্থিত ছিলেন। লোহাগাড়া উপজেলা স্মারকলিপি প্রদান : হেফাজতে ইসলাম লোহাগাড়া শাখার উদ্যোগে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। উপজেলা সভাপতি মাওলানা আবদুল মুবিন, সহসভাপতি মাওলানা আবুল হাসান আশরাফী, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা শোয়ায়েব চৌধুরী, মাওলানা মাহমুদুল করিম, মাওলানা শাহ আলম প্রমুখ স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন। সিলেট ব্যুরো জানায়, কওমি মাদরাসার শিার স্বকীয়তা রার দাবিতে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ কেন্দ্রঘোষিত দেশব্যাপী প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশের কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল বুধবার সিলেট মহানগর হেফাজতের উদ্যোগে জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। দুপুর ১২টায় সিলেটের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সিলেট মহানগর নেতৃবৃন্দ স্মারকলিপি পেশ করেন। স্মারকলিপি পেশ শেষে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সম্মুখে অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন মহানগর সভাপতি আল্লামা আব্দুল বাছিত বরকতপুরী। ময়মনসিংহ অফিস জানায়, ইত্তেফাকুল উলামা বৃহত্তর মোমেনশাহীর সব জেলা ও উপজেলা শাখার পক্ষ থেকে গতকাল প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। বুধবার সকালে ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক মুস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকীর কাছে স্মারকলিপি প্রদানকালে সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল্লামা খালেদ সাইদুল্লাহ সাদী, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মনসুরুল হক খান, জেলা সভাপতি অধ্যাপক মুফতি মুহিববুল্লাহ, সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মঞ্জুরুল হক, কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক মাওলানা আবুল কালাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। বগুড়া অফিস জানায়, প্রধানমন্ত্রী বরাবর হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ, বগুড়ার প থেকে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল বগুড়া জেলা প্রশাসকের কাছে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদানে নেতৃত্ব দেন হেফাজতের কেন্দ্রীয় শূরা সদস্য ও বগুড়া জেলা সদস্যসচিব ইঞ্জিনিয়ার শামসুল হক ও মুখপাত্র মুফতি আব্দুল ওয়াহেদ। সিরাজগঞ্জ সংবাদদাতা জানান, হেফাজতে ইসলামের সিরাজগঞ্জ জেলা শাখা গতকাল প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করেছে। বুধবার দুপুরে শহরের বাজার স্টেশন স্বাধীনতা স্কয়ারে জেলার ৯টি উপজেলা থেকে হেফাজতকর্মীরা জমায়েত হন। সেখানে জেলার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আম্বার আলীসহ হেফাজত ইসলামের নেতারা সংপ্তি সমাবেশে বক্তৃতা করেন। ফরিদপুর অফিস জানায়, হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা মেনে নেয়ার দাবিতে দেশব্যাপী কর্মসূচির অংশ হিসেবে ফরিদপুরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। এ সময় হেফাজতে ইসলামের এক নেতাকে আটক করেছে পুলিশ। গতকাল দুপুর ১২টায় জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর একযোগে এ স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। ফরিদপুরের রাজবাড়ী রাস্তার মোড়ের ফেরি মসজিদের ইমাম হেফাজতে ইসলামের নেতা মাওলানা আসাদুজ্জামান ও মুফতি ইউনুস আলীর নেতৃত্বে ফরিদপুরের জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। স্মারকলিপি প্রদান শেষে বের হয়ে আসার পথে আসাদুজ্জামানকে আটক করে পুলিশ। এ ছাড়া নগরকান্দা উপজেলা হেফাজতে ইসলামের সিনিয়র সহসভাপতি মাওলানা লিয়াকত আলী, সেক্রেটারি হাফেজ মোস্তফার নেতৃত্বে নগরকান্দা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে স্মারকলিপি প্রদান করেন। সালথায় উপজেলা হেফাজতে ইসলামের সভাপতি মাওলানা নিজামুদ্দিন এবং মুফতি ইসমতউল্লাহর নেতৃত্বে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। এ ছাড়া জেলার অন্যান্য উপজেলায়ও স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। নাটোর সংবাদদাতা জানান, নাটোরে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বুধবার হেফাজতে ইসলাম বিােভ মিছিল করে স্মারকলিপি প্রদান করেছে। হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীরা নাটোর শহরের ফুলবাগান এলাকা থেকে বিােভ মিছিল নিয়ে সদর উপজেলা পরিষদ চত্বরে যান। বিােভ মিছিল শেষে তারা প্রধানমন্ত্রী বরাবর একটি স্মারকলিপি সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে হস্তান্তর করেন। এ সময় অন্যান্যের মধ্যে নাটোর জেলা হেফাজতে ইসলামের সভাপতি মাওলানা মুফতি ইলিয়াস উসমানী এবং সদস্যসচিব মাওলানা রফিকুল ইসলামসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। নোয়াখালী সংবাদদাতা জানান, হেফাজতে ইসলাম নোয়াখালী শাখার উদ্যোগে গতকাল বেলা ১১টায় হেফাজতে ইসলাম নোয়াখালী জেলা সভাপতি মাওলানা নজির আহামেদ সেক্রেটারি মাওলানা এয়াকুব কাসেমীর নেতৃত্বে হেফাজতের নেতাকর্মীরা নোয়াখালী জেলা প্রশাসক সিরাজুল ইসলামের কাছে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশ করেন। একই দাবিতে দুপুর ১২টায় হেফাজতে ইসলাম জেলা সদর শাখার সভাপতি মাওলানা শিব্বির আহমেদ সেক্রেটারি মাওলানা রুহুল আমিন চৌধুরীর নেতৃত্বে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইশরাত জাহানের কাছে আরো একটি স্মারকলিপি পেশ করা হয়। দিনাজপুর সংবাদদাতা জানান, কওমি মাদরাসা শিা কর্তৃপ ২০১৩ নামে প্রস্তুতকৃত আইনের খসড়া প্রত্যাহার ও উল্লিখিত আইন বাতিলের দাবিতে দিনাজপুরে বিােভ মিছিল করেছে ও স্মারকলিপি দিয়েছে দিনাজপুর জেলা কওমি মাদরাসা শিা সংরণ পরিষদ। গতকাল দুপুরে পরিষদের নেতৃবৃন্দ জেলা প্রশাসক আহমদ শামিম আল রাজীর কাছে প্রধানমন্ত্রী বরাবর এ স্মারকলিপি হস্তান্তর করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন পরিষদের নেতা মাওলানা মতিউর রহমান কাসেমী, মাওলানা জামাল উদ্দীন, মাওলানা আফজাল হোসেনসহ অন্যান্য ওলামায়ে কেরাম। নারায়ণগঞ্জ সংবাদদাতা জানান, হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা বাস্তবায়নের জন্য জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দিয়েছেন নারায়ণগঞ্জ হেফাজতে ইসলামের নেতৃবৃন্দ। জেলা প্রশাসকের হয়ে স্মারকলিপিটি গ্রহণ করেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট হাসানুল মতিন। স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন, জেলা হেফাজতে ইসলামের আহ্বায়ক মাওলানা আবদুল আউয়াল, আজিজুল হক, মাওলানা আবদুল কাদের, মাওলানা মহিবুল্লাহ, মাওলানা আবদুর রহমান, মাওলানা হারুনুর রশিদ প্রমুখ। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংবাদদাতা জানান, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গতকাল ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতে ইসলামের প থেকে উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ড. আশরাফুল আলমের কাছে স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন হেফাজত নেতা হাফেজ মাওলানা মোহাম্মদ ইদ্রিস, মাওলানা শরীফ উদ্দিন আফতাবী, মুফতি আব্দুল হক, মাওলানা আব্দুল হাফিজ, মাওলানা আব্দুল্লাহ, মাওলানা আতাহার আলী, মুফতি এনামুল হাসান প্রমুখ। টাঙ্গাইল সংবাদদাতা জানান, ১৩ দফা বাস্তবায়নের জন্য হেফাজতে ইসলাম টাঙ্গাইল জেলা শাখা গতকাল বুধবার জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর একটি স্মারকলিপি পেশ করেছে। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছেও একটি স্মারকলিপি দেয়া হয়। হেফাজতে ইসলামের জেলা আমির মাওলানা আব্দুল আজিজের নেতৃত্বে দলের কয়েকজন নেতা দুপুরে স্মারকলিপি নিয়ে জেলা প্রশাসকের কার্যলয়ে যান। এ সময় জেলা প্রশাসকের অনুপস্থিতিতে তার পক্ষে এনডিসি জামসেদ খন্দকার তাদের স্মারকলিপি গ্রহণ করেন। জেলা হেফাজতের সদস্যসচিব মুফতি আব্দুর রহমান, যুগ্মসচিব মাওলানা জাকির আহামদ ও মুফতি ইলিয়াস হাকিম এ সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT