টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
২৩ জন রোহিঙ্গা ও টেকনাফের ৬ জনসহ ১৭ মে জেলায় ১১০ জন করোনা রোগী শনাক্ত কোয়ারেন্টাইনে তরুণীকে ধর্ষণ : সেই এএসআই বরখাস্ত ফিলিস্তিনে মানবাধিকার লঙ্ঘন চোখে পড়েনি হিউম্যান রাইটস ওয়াচের’ সচিবালয়ে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রাখল প্রথম আলোর সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে সাবরাংয়ের জাফর ও রফিক ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার বাড়ছে তাপমাত্রা সঙ্গে দাবদাহ ও অস্বস্তি: থাকবে ৫ দিন টেকনাফে শাহজাহান চৌধুরীর ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়,ইউনিটে ইউনিটে খালেদা জিয়ার জন্য দোয়া কওমি মাদ্রাসায় সব ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রাখার নির্দেশ লকডাউনে ব্যাংকিং কার্যক্রম চলবে যেভাবে টেকনাফে শাহজাহান চৌধুরীর ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়, ইউনিটে ইউনিটে খালেদা জিয়ার জন্য দোয়া

সাগরে ট্রলার ডাকাতি মাছ লুট : ১১ জেলে অপহৃত : দেড় কোটি টাকার সম্পদ লুট

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১২
  • ৯০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

(টেকনাফ নিউজ ডটকম)-সাগরে আবারও মাছ ধরার ট্রলার ডাকাতি হয়েছে। জিম্মি করা হয়েছে ১১ জেলেকে। লুট হয়েছে প্রায় দেড় কোটি টাকারসম্পদ। বরগুনার পাথরঘাটা থেকে পূর্ব-দক্ষিণে প্রায় ১১০ কিলোমিটার দুপুরে বঙ্গোপসাগরে সোনার চরের কাছে মঙ্গলবার এ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। বুধবার দুপুরে জেলেরা পাথরঘাটায় ফিরে এ খবর জানায়। জেলা ট্রলার মালিক সমিতি ও জেলা ট্রলার শ্রমিক ইউনিয়ন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছে। ডাকাতির বিষয়ে কোষ্টগার্ড কিছুই জানাতে পারেনি।

ডাকাতের কবল থেকে ফিরে আসা জেলে ও মাঝি মাল্লাদের বরাত দিয়ে জেলা ট্রলার মলিক সমিতি বুধবার জানায়, সাগরের সোনারচরের কাছে অপেক্ষমাণ প্রায় ২০টি ট্রলারে জলদস্যুরা ডাকাতি করে। সেখানে মাছ শিকার শেষে বরগুনা, পটুয়াখালী ও ভোলার জেলেরা ট্রলার নিয়ে অপো করছিল। মঙ্গলবার সকালে দ্রুতগতি সম্পন্ন একটি মাছ ধরার ট্রলারে করে ডাকাতদল এসে জেলে বহরে আক্রমন করে। একে একে সব ট্রলারেই ডাকাত দল লুটপাট চালায়। ডাকাত দল সব জেলেকে মারধর করে ট্রলারে থাকা মাছ, জাল, ফুয়েল ও যন্ত্রাংশ লুট করে। এসময় পাথরঘাটার আলম মোল্লার মালিকানাধীন এফবি মোহসেন আউলিয়া-৩ এবং বরগুনার রাসেল মিয়ার এফবি ফাতিমা নামক ট্রলার দুটি ডাকাতি শেষে ডাকাতরা নিয়ে যায়। মালিকরা জানায়, লুণ্ঠিত দুটি ট্রলারের দাম প্রায় দেড় কোটি টাকা।

ডাকাতি শেষে মুক্তিপণের জন্য ১১ ট্রলার থেকে ১১ জেলেকে অপহরণ করে সুন্দরবনের গহীনে নিয়ে যায়। যাওয়ার সময় অপহৃত জেলেদের মুক্তিপণ দিয়ে মুক্ত করার জন্য দুটি মোবাইল ফোন নাম্বার দিয়ে গেছে। জেলা ট্রলার শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি মন্নান মাঝি বলেন, ২/১ দিনের মধ্যে ডাকাত দল মুক্তিপণের মাধ্যমে জেলেদের ছাড়িয়ে নিতে চাপ দিবে। জেলা ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী জানান, সংবাদপত্রে খবর ছাপা হওয়ায় ইদানিং ডাকাত দল বেশী টাকা দাবী করে বিধায় ক্ষতিগ্রস্ত জেলেরা মিডিয়ার কাছে মুখ খুলতে চায় না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক ট্রলার মালিক দাবী করেন ডাকাতির সঙ্গে স্থানীয় জেলেরা জড়িত না থাকলে জলদস্যুরা নিরাপদে মুক্তিপণের টাকা নিতে পারত না।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT