টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

সাগরে জলদস্যূতা ও ত্রাসের রাজত্ব ..আতঙ্কে জেলে সম্প্রদায়

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১২
  • ২০৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

মোহাম্মদ সিরাজুল হক সিরাজ, মহেশখালী….সাগরে জলদস্যূতা বীরদর্পে জাম্বু বাহিনী অন্যান্য বাহিনীরা ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করিতেছে। হাজার হাজার জেলে সম্প্রদায় আতঙ্কে সাগরে যেতে পারছে না, রুখবে কে এ জলদস্যুতা? এ কারণে হাজার হাজার জেলে পরিবার সুমৌসুমে সাগওে যেতে পারছে না অস্ত্রধারী ডাকাতদের জলদস্যুতার কারণে। শীত মৌসুম আসার সাথে সাথে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে বিভিন্ন হত্যা মামলা, অস্ত্র মামলা, জঙ্গী, অস্ত্রধারী বাহিনী গঠন করে সাগরে জলদস্যুতা, অপহরণ, মুক্তিপন, ডাকাতি, হত্যা, অত্যাচার, ধর্ষণ, গুম, অহরহ করিয়া যাইতেছে বঙ্গোপসাগরে বীরদর্পে। বিগত নভেম্বর থেকে এই ডিসেম্বরে বঙ্গোপসাগরে ২৪টির মত রক্তক্ষয়ী ডাকাতি, গুম, অপহরণ, লুন্ঠন, হত্যা, সাগরে নিক্ষেপ করেছে। স্থানীয় সোনাদিয়া, ঘটিভাঙ্গা সূত্রে খবরে জানা যায়, মোকারম মিয়া প্রকাশ জাম্বু ডাকাত, পিতা- বাহাদুর মিয়া, সাং- সোনাদিয়া, কুতুবজোম, দীর্ঘদিন ধরিয়া বঙ্গোপসাগরে বিভিন্ন জাতের, বিভিন্ন রকমের জেলেদের ফিশিং বোট, ফিশিং নৌকার জাল, মাছ, তেল, বাজার, ইঞ্জিনসহ ফিশিং বোটসহ ডাকাতি করিয়া তাদের গোপন আস্তানা খ্যাত প্যারাবনের বিভিন্ন সাগর সংলগ্ন নদীতে, খালে ডুকিয়া রাখে। ফিশিং বোটের মালিকদের মুঠোফোনের মাধ্যমে খবর দেয় মুক্তিপনের টাকার জন্য। এই ভাবে জলদস্যূরা মুক্তিপন আদায় করে থাকে দেশের বিভিন্ন স্থানের ফিশিং বোট মালিকদের কাছে। যেমন চট্টগ্রাম, বাঁশখালী, পটিয়া, কক্সবাজার, খুরুশকুল, টেকনাফ, মহেশখালীর বিভিন্ন জায়গায় মুক্তিপনের টাকা দিতে কোন ফিশিং বোটের মালিক টাকা দিতে অপরাকতা প্রকাশ করিলে জেলেদেরকে বেধম মারধর, হত্যা, নির্যাতন, অত্যাচার, এমনকি জেলেদেরকে সাগরে নিক্ষেপ করে গুম হত্যা করিয়া থাকে অহরহ ভাবে। আরেক সূত্রে খবর পাওয়া যায়, বর্তমান সোনাদিয়ার মেম্বার আব্দুল গফুর প্রকাশ নাগু এর ছত্র ছায়ায় এসব জলদস্যুতা ডাকাতি করিয়া যাইতেছে বীরদর্পে জাম্বু বাহিনী। বিশ্বস্থ সূত্রে জানা যায়, বিগত নভেম্বর ও বর্তমান ডিসেম্বরে প্রায় বঙ্গোপসাগরে ও অন্যান্য সূত্রে প্রকাশ ৪টি স্পীড বোট, ২টি শক্তিশালী ফিশিং বোট লইয়া জাম্বু বাহিনী প্রায় ৯০ জন দলের বাহিনী অস্ত্রসহ, অস্ত্রধারী ক্যাডার বাহিনী গঠন করে সংঘবদ্ধ হয়ে স্পীড বোট ও ফিশিং বোট করে এই নারকীয় হত্যাযজ্ঞ সাগরে জলদস্যুতা করিয়া যাইতেছে বীরদর্পে। তবে স্থান বেধে যেমন- খুলনা এলাকায় অন্যান্য বাহিনী, বরিশাল এলাকায় অন্যরকম সোনার চর, দক্ষিণ হাতিয়ার দিকে আরেক রকমের, টেকনাফের দিকে আরেক রকমের, মহেশখালী, কক্সবাজার, কুতুবদিয়া, চকরিয়া দিকে এই জাম্বু বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে করে এ ভাবেই বঙ্গোপসাগরে জলদস্যুতা করে শীত মৌসুমে। এদিকে জেলে পরিবারের হাজার হাজার নারী-পুরুষ থেকে জানা যায়, এই জলদস্যুতা, ডাকাতিতে আর কত মায়ের বুক খালি করবে। এই জলদস্যুদেরকে কে রুখবে? জানতে চায় হাজার হাজার জেলে পরিবারের লোকজন ও মৎস্যজীবি, ফিশিং বোট মালিকেরা।মোহাম্মদ সিরাজুল হক সিরাজ, মহেশখালী, কক্সবাজার-১০ ইং ডিসেম্বর

মহেশখালীতে জামাত, বিএনপি, নৈরাজ্যর অরাজকতার প্রতিবাদে পৌর আওয়ামীলীগের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ১০ই ডিসেম্বর সকাল ১০ ঘটিকায় উপজেলা প্রাঙ্গনে মহেশখালী পৌর আওয়ামীলীগের উদ্যোগে এক মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। উক্ত মতবিনিময় সভায় নেতৃত্বে ছিলেন মহেশখালী পৌরসভা আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক জনাব ছৈয়দুল ইসলাম সাবেক কমিশনার, পৌর আওয়ামীলীগের যুগ্ন আহ্বায়ক প্রনব কুমার দে, পৌরসভা আওয়ামীলীগের যুগ্ন আহ্বায়ক ও বর্তমান কমিশনার রফিকুল ইসলাম, পৌর আওয়ামীলীগের তরুণ নেতা আবু বক্কর ছিদ্দিক, পৌর আওয়ামীলীগের ৮নং ওয়ার্ডের সভাপতি মিজান, অত্র ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদ, ৫নং ওয়ার্ডের সভাপতি ননী পদ দে, সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলম, ৬নং ওয়ার্ডে সভাপতি রতন কান্তি দে, অত্র ওয়ার্ডের সাধারণ সম্পাদ, ৯নং ওয়ার্ডের সভাপতি মাষ্টার জামাল হোসেন, সাধারণ সম্পাদক সালামত উল্লাহ, ৩নং ওয়ার্ডের সভাপতি মোস্তফা কামাল সোহাগ, সাধারণ সম্পাদক ফিরোজ খান, ১নং ওয়ার্ডের সভাপতি মোহাম্মদ হাসেম, সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলম, ২নং ওয়ার্ডে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, গোরকঘাটার শফিউল আলম বাঙ্গালী, ডাঃ মাহবুব আলম সহ পৌরসভার শতশত কর্মী সমর্থক মতবিনিময় সভায় অংশ গ্রহণ করেন। মতবিনিময় সভায় জয় বাংলা শ্লোগানের মধ্যদিয়ে পৌরসভার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে এবং জামাত বিএনপি দেশের নৈরাজ্য জ্বালাও পোড়াও ধ্বংসাত্বক কার্যকলাপ করে যুদ্ধপরাধীকে বাচানো যাবে না। গোলাম আজম, দেলোওয়ার হোছেন সাঈদী, মতিউর রহমান নেজামী, আলী আহসান মোহম্মদ মুজাহিত, কাদের মুল্লা, সালালউদ্দিন কাদের চৌধুরী আরোও অনেক যুদ্ধপরাধীর বিচার বানচাল করার জন্য বেগম খালেদা জিয়া দেশে অরাজকতা, নৈরাজ্য সৃষ্টি করিতেছে। খালেদা জিয়ার নিজের ছেলে দূর্নীতি বাজদেরকে মুক্ত করার জন্য দেশের অবৈধ অবরোধ হরতাল দিয়া দেশের সম্পদ জ্বালাইয়া পোড়াইয়া ধ্বংস করিতেছে। এর বিরোদ্ধে পৌর আওয়ামীলীগ এর শত শত কর্মী অঙ্গসংঘটনের নেতৃবৃন্দ মতবিনিময় সভায় উপস্থিত থেকে অংশ গ্রহণ করেন এবং বলেন অবিলম্বে জামাত বিএনপির নৈরাজ্য কার্যকলাপের বিরোদ্ধে জনগণকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান।

 

নারী ও শিশু নির্যাতন মামলার পলাতক আসামী সন্ত্রাসী জসিম উদ্দিন গ্রেফতার

মোহাম্মদ সিরাজুল হক সিরাজ, মহেশখালী- ১০ই ডিসেম্বর

নারী ও শিশু নির্যাতন মামলার পলাতক আসামী সন্ত্রাসী জসিম উদ্দিন গ্রেফতার হয়েছে। গত ১০ই ডিসেম্বর ভোর ৬ ঘটিকার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মহেশখালী থানার সেকেন্ড অফিসার ওসমান গণি এস,আই এর নেতৃত্বে এক দল পুলিশ সন্ত্রাসী নারী ও শিশু নির্যাতন মামলার পলাতক আসামী জসিম উদ্দিন, পিতা- মোহাম্মদ, সাং- হোয়ানক, কেরুনতলীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছে। তার বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন মামলাসহ ডজন খানেক মামলা রহিয়াছে। মহেশখালী থানার নারী নির্যাতন মামলা নং-৭৩/১২, ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রী অপহরণ, ডাকাতি করিয়া লইয়া গিয়াছে, সন্ত্রাসী উদ্দিন। এখনো ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ছাত্রীকে উদ্ধার করা হয়নি। নারী, শিশু নির্যাতন ট্রাইবুন্যাল নং-৬৯৩/১২ এছাড়া অনেক অভিযোগ তার বিরুদ্ধে রহেছে।

 

দুধর্ষ সন্ত্রাসী ৮ বছর ৫ মাস সাজাপ্রাপ্ত আসামী আব্দুল খালেক গ্রেফতার।

মোহাম্মদ সিরাজুল হক সিরাজ, মহেশখালী- ১০ ডিসেম্বর।

দুধর্ষ সন্ত্রাসী ৮ বছর ৫ মাস সাজাপ্রাপ্ত আসামী আব্দুল খালেক গ্রেফতার হয়েছে। গতকাল ৯ ডিসেম্বর সকাল ৬ ঘটিকার সময় কুতুবজোম পশ্চিমপাড়ার হোছন আহমদের পুত্র আব্দুল খালেক ডাকাত মহেশখালী থানার সেকেন্ড অফিসার ওসমান গণি এস.আই এর নেতৃত্বে একদল পুলিশ দুঃসাহসীক অভিযান চালিয়ে জলদস্যু ডাকাত আব্দুল খালেককে এস.আই ওসমান গণি ঝাপিয়ে পড়ে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। জি.আর ৯৫/২০০৬ ডাকাতি মামলা সহ ডজনখানেক মামলা রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এদিকে পুলিশের মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ হাবিবুর রহমান থেকে জানতে চাইলে সে বলেন, সন্ত্রাসীদের ব্যাপারে দিনরাত অভিযান অব্যহত থাকবে। এখানে যথদিন আছি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান আরো জোরদার করা হবে। এদিকে সন্ত্রাসী সাজাপ্রাপ্ত আসামী আব্দুল খালেককে আদালতে সৌপর্দ করা হয়েছে। আদালত জেল হাজতে প্রেরণ করে। তাকে গ্রেফতার করায় এলাকায় স্বস্তির নিশ্বাস ফেলেছে। এ ব্যাপারে এলাকাবাসী থেকে জানতে চাইলে থানা পুলিশকে এলাকাবাসী অভিনন্দন জানিয়েছে।

 

সমুদ্র কেড়ে নিল ধলঘাটার শারীরিক প্রতিবন্ধি আবুল ছৈয়দের বসত বাড়ি

তার জীবন ও পরিবার রক্ষার্থে প্রধান মন্ত্রীর বরাবরে আবেদনপত্র প্রেরণ

মহেশখালী নিজস্ব প্রতিনিধি – ১০ ডিসেম্বর

মহেশখালী উপজেলার ২নং ধলঘাট ইউনিয়নের শরইতলা গ্রামের মৃতু রফিক উদ্দিনের পুত্র আবুল ছৈয়দের দিন কাটছে খোলা আকাশের নিচে। সূত্রে খবরে জানা যায়, বঙ্গোপসাগরের সাথে সংযুক্ত দ্বীপ ধলঘাটা ইউনিয়নটি দিন দিন সাগরে তলিয়ে যাচ্ছে। সরকারের উন্নয়নের মুখী বিভিন্ন সংস্থার মাধ্যমে বেড়ী বাধের সংস্কারের কাজ চললেও তা সাগরের ¯্রােতের টানে বিলীন হয়ে গিয়েছে ধলঘাটা ইউনিয়নের প্রায় কয়েকটি গ্রাম। আবুল ছৈয়দ প্রচুর ধন সম্পদের মালিক ছিলেন। সমুদ্র সব কেড়ে নিয়েছে। বিগত কয়েক বছর আগে স্থানীয় একদল দুষস্কৃতকারীর হামলায় নিজের একটি অমূল্য পাঁ হারালেন অন্যায়ের প্রতিবাদ করতে গিয়ে। তখন তিনি ধলঘাট ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের জনপ্রতিনিধি মেম্বার ছিলেন। পাঁ হারিয়ে শারীরিক প্রতিবন্ধি হয়ে নিদারুণ কষ্টে চলছে তার জীবন ও তার পরিবার। তার ঘরে তিন কন্যা ও তিন শিশু ছেলে নিয়ে জীবন অতিবাহিত করছেন। সরজমিন পরিদর্শনে দেখা যায়, আবুল ছৈয়দের সংসারে বর্তমানে বিবাহ উপযূক্ত মেয়ে রয়েছে, অভাব অনটনের কারণে উপযূক্ত হওয়ার পরও তার মেয়েদের বিবাহ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। সমাজের ভিত্তবানদের কাছে ধন্না দিয়েও কোন লাভ হচ্ছে না। নিরূপায় হয়ে আবুল ছৈয়দ সরকার ও মানবিক সহয়তায় এগিয়ে আসা এনজিওদের ত্রান তহবিল থেকে আর্থিক সাহায্যের জন্য পথ চেয়ে আছে। আবুল ছৈয়দের স্ত্রী ফাতেমা বেগম জানান দুষষ্কৃতকারীদের হামলায় স্বামী পাঁ হারিয়েছে। প্রকৃতি ভিটা বাড়ীসহ সব কেড়ে নিয়েছে সমুদ্রে। স্বামী ভিক্ষুক হতে চায়নি? এই লজ্জা রাখি কোথায়। যেখানে কোনদিন হাত টানি নি, সেখানে আজকে ভিক্ষুক হয়ে যেতে হচ্ছে। খোদার লিলা বুঝা বড়ই মুশকিল। স্বামীর অঢ়েল সম্পদ ছিল আজ সব নিঃশ্বেষ হয়ে গেছে। যে বসত ভিটায় ছিলাম আজ তা সাগরে বিলীন হয়ে গেছে। একটি আওয়ামীলীগ পরিবার হয়েও আজ পর্যন্ত সরকারের ত্রান তহবিল থেকে কোন আর্থিক সুবিধা পায়নি। বড় আশা নিয়ে আর্থিক সাহায্য পাব বলে পত্রিকার মাধ্যমে সাহায্য পাওয়ার আবেদন জানাচ্ছি ও প্রাণপ্রীয় প্রধান মন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যার দিকে প্রতিনিয়ত তার পরিবার আকুতি মিনতি জানাচ্ছে। এ ব্যাপারে কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক এড. সিরাজুল মোস্তফা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক এম.আজিজুর রহমান তার আবেদন দরখাস্তে মানবিকভাবে সাহায্য করার জন্য প্রধান মন্ত্রীর বরারে সুপরিশ করে রেজিঃ ডাকযোগে আবেদন পত্রখানা পাঠাইয়াছেন। অধির আগ্রহে প্রধান মন্ত্রীর সাহায্যের দিকে থাকিয়ে আছে আবুল ছৈয়দ ও তার পরিবার বর্গ।

 

মোহাম্মদ সিরাজুল হক সিরাজ,

০১৭২৭৬২৮২৯৫

স্থায়ী ঠিকানা ঃ

(প্রেরক ঃ আবুল ছৈয়দ)

পিতা ঃ মৃত রফিক উদ্দিন

গ্রাম ঃ সরইতলা

ডাকঘর ঃ ধলঘাটা

থানা ঃ মহেশখালী

জেলা ঃ কক্সবাজার।

 

মোহাম্মদ সিরাজুল হক সিরাজ

০১৭২৭৬২৮২৯৫

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT