টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

শেষ বলে হার বাংলাদেশের

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০১২
  • ৫৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এতদিন আক্ষেপ ছিল ব্যাটিংয়ে। তবে তার আড়ালে ঢাকা পড়ে ছিল বাংলাদেশ মহিলা দলের ফিল্ডিং ব্যর্থতা। সীমাহীন ফিল্ডিং ব্যর্থতার খেসারত হিসেবে সালমাদের প্রাপ্তি ৬ উইকেটে পরাজয়। সেই সঙ্গে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে আরেক বার সিরিজ জয়ের স্বপ্ন ঝুঁকির মধ্য পড়ে গেল। সালমারা ওয়ানডে সিরিজের অশুভ ভূত থেকে মুক্ত হতে পারেনি টি-২০ সিরিজেও। ওয়ানডের মতো টি-২০ সিরিজের প্রথম ম্যাচে হেরেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। তবে গতকাল এই জয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার কৃতিত্বের চেয়ে বেশি দায়ী বাংলাদেশের ফিল্ডারদের ব্যর্থতা। বিশেষ করে উইকেটের পিছনে উইকেট রক্ষক নুজহাত তাসনিম টুম্পার ব্যর্থতা ছিল চোখে পড়ার মতো। আর তাই মহিলা ক্রিকেটের টানে মাঠে আসা বিপুল সংখ্যক দর্শক ক্ষোভে ফেটে পড়ার কারণ ছিলেন তিনি। টসজয়ী দক্ষিণ আফ্রিকার আমন্ত্রণে ব্যাট হাতে বাংলাদেশের সংগ্রহ ১০৫ রান ৬ উকেটের বিনিময়ে। আর ফিল্ডারদের ব্যর্থতায় সুসান বিনাডি ও অ্যালিসন হজকিন্সের ৭৩ রানের জুটি দক্ষিণ আফ্রিকার জয় সহজ করে দেয়। ব্যক্তিগত ১৭ রানে জীবন পেয়ে সুসান অর্ধশত হাঁকাতে ভুল করেননি। তিনি করেন অপরাজিত ৫৩ রান। শেষ পর্যন্ত ৪ উইকেট হারিয়ে শেষ বলে জয় তুলে নেন তারা। দক্ষিণ তাই এই পরাজয়ে শুক্রবারের সিরিজ নির্ধারণী তৃতীয় টি-২০ ম্যাচটি হয়ে গেছে ফাইনালের মতো।
মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে ১০৬ রানের টার্গেট লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে জাহানারা আলমের মারাত্মক বোলিংয়ে ১৫ রানেই দুই উইকেট হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু তৃতীয় উইকেটে ৩৭ রান করা অ্যালিসন হজকিন্সের সঙ্গে সুসান বেনাডির ৭৩ রানের জুটি ধাক্কা সামলে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে আসে দক্ষিণ আফ্রিকার হাতে। তবে দলীয় ৮৮ রানে অ্যালিসন লতা মণ্ডলের দুর্দান্ত ক্যাচে পরিণত হলে স্বাগতিকদের জন্য বিপজ্জনক হয়ে ওঠা এই জুটি ভাঙে। এর আগে দু’বার ক্যাচ দিয়েও বেঁচে যান অ্যালিসন-সুসান। উইকেটরক্ষক নুজহাত তাসনিয়াও দু’টি স্ট্যাম্পিংয়ের সুযোগ হাতছাড়া করেন। উনিশতম ওভারের ২য় বলে রানের খাতা খোলার আগে অধিনায়ক মিগনন দু প্রিজকে ফিরিয়ে দিয়ে ম্যাচ জমিয়ে তোলেন জাহানারা। তবে খেলা জমে উঠে শেষ ওভারে। জয়ের জন্য শেষ ওভারে দারকার ছিল ৯ রান। ওভারে প্রথম বলে রান পাননি দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটসম্যানরা। কিন্তু দ্বিতীয় বলে বাজে ফিল্ডিংয়ের কারণে ২ রান পেয়ে যায় তারা। এরপর তৃতীয় বলে কোন রান না পেলেও চতুর্থ বলে সুসান চার মেরে দলের জন্য জয় সহজ করে ফেলেন। এরপরও সম্ভাবনা ছিল বাংলাদেশের। কিন্তু পঞ্চম বলে আবারও মিস ফিল্ডিংয়ে ২ রান দিলে ৬ উইকেটের এই হার এড়াতে পারেনি বাংলাদেশ। ম্যাচ শেষে ৫৩ রানে অপরাজিত থাকেন চারবার জীবন পাওয়া সুসান। তার ৪৮ বলের ইনিংসে ৩টি চার ও দু’টি ছক্কা। ১৬ রানে ৩ উইকেট নেন জাহানারা।
এর আগে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমে অনেকটা একাই লড়াই করতে হয়েছে বাংলাদেশ অধিনায়ক সালমা খাতুনকে। দলীয় ৯৩ রানে তিনি বিদায় নেয়ার আগে ৪২ রান করেন। তার ইনিংসে ছিল ৫টি চারের মার। তিনি ছাড়াও দলের পক্ষে লতা মণ্ডলের করা ১০ ছাড়া আর কেউ দুই অঙ্কের ঘরে পৌঁছতে না পারায় কোন রকমে ২০ ওভারে ১০৫ রানে থামে বাংলাদেশের ইনিংস। অতিরিক্ত থেকে আসে তৃতীয় সর্বোচ্চ ১৮ রান। ১৬ রানে ২ উইকেট নেন ভ্যান নিকার্ক।
সংক্ষিপ্ত স্কোর
টস: দক্ষিণ অফ্রিকা মহিলা দল (ফিল্ডিং)
বাংলাদেশ মহিলা দল: ২০ ওভারে ১০৫/৬ (সালমা ৪২, লতা ১০, ডেন ভ্যান নিকার্ক ২/১৬)
দক্ষিণ আফ্রিকা মহিলা দল: ২০ ওভারে ১০৬/৪ (বেনাডে ৫৩*, হজকিংসন ৩৭; জাহানারা ৩/১৬)।
ফল: দক্ষিণ আফ্রিকা মহিলা ক্রিকেট দল ৬ উইকেটে জয়ী।
ম্যাচ সেরা: সুসান বেনাডে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT