হটলাইন

01787-652629

E-mail: teknafnews@gmail.com

সর্বশেষ সংবাদ

জাতীয়প্রচ্ছদ

রুখতে হবে এখনই

টেকনাফ নিউজ ডেস্ক **
‘আমি জানি সবকিছু নষ্টদের অধিকারে যাবে।/নষ্টদের দানবমুঠোতে ধরা পড়বে মানবিক/সব সংঘ-পরিষদ; চলে যাবে, অত্যন্ত উল্লাসে/চ’লে যাবে এই সমাজ-সভ্যতা-সমস্ত দলিল/নষ্টদের অধিকারে ধুয়েমুছে’- সমাজ-রাজনীতির অবক্ষয় ও ধস দেখে কবি হুমায়ুন আজাদ যেন কবিতা নয়- দৈববাণী উচ্চারণ করেছিলেন বিংশ শতাব্দীর শেষ ভাগে। তবে সময়ের পরিক্রমায় এ দেশে এখন একের পর এক যেসব ঘটনা ঘটছে, তাতে মনে হয়, কবির পঙ্‌ক্তিতে কোনো অত্যুক্তি নেই। বরগুনায় রিফাত শরীফ হত্যা এ ধরনের ঘটনার তালিকায় আরও একটি সংযোজন।

এর আগে খুব অল্প সময়ের ব্যবধানে ফেনীর সোনাগাজীর প্রতিবাদী নুসরাত জাহান রাফি ও কিশোরগঞ্জের নার্স শাহীনুর আক্তার তানিয়ার ওপর নেমে আসা পৈশাচিকতায় কেঁপে উঠেছিল জাতির বিবেক। এসব ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই বরগুনার বখাটে ও মাদক ব্যবসায়ী নয়ন বন্ড, রিফাত ফরাজী ও তাদের সাঙ্গোপাঙ্গরা রিফাত শরীফকে যেভাবে কুপিয়ে হত্যা করেছে, তাতে সামাজিক ও পারিবারিক সুরক্ষা এবং নিরাপত্তা আবারও প্রশ্নের মুখোমুখি। সবার মনে একই প্রশ্ন, সবকিছু কি তা হলে সত্যিই নষ্টদের অধিকারে চলে যাবে? সবার এখন একটাই কথা, কোনো কিছুই নষ্টদের অধিকারে দেওয়া যাবে না। এসব নৃশংসতা চলতে দেওয়া যাবে না।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, সম্প্রতি দেশের কয়েকটি এলাকায় চাঞ্চল্যকর যেসব খুনোখুনির ঘটনা ঘটেছে, সেসবের অধিকাংশের পেছনে রয়েছে মাদক। এ ছাড়া এলাকায় আধিপত্য প্রতিষ্ঠা, পুলিশের কিছু অসাধু সদস্যের সঙ্গে অপরাধীদের সখ্য, অনৈতিক সম্পর্ক, রাজনীতির দুর্বৃত্তায়ন ইত্যাদি কারণেও ঘটছে এ ধরনের ঘটনা।

সম্প্রতি রাজধানীতে একটি অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, ‘সর্বগ্রাসী মাদকের কারণে সমাজে এক ধরনের অস্থিরতা কাজ করছে। এ কারণে মর্মান্তিক অপরাধ সংঘটিত হচ্ছে। যে মানবতাবোধ, দেশপ্রেম ও নৈতিকতাবোধ নিয়ে আমাদের শিশুদের বেড়ে ওঠার কথা, শিশুরা তা নিয়ে বেড়ে উঠছে না। আমরা শুধু ভালো ফলের দিকে বেশি নজর দিচ্ছি- যা ঠিক হচ্ছে না। তাই শিক্ষা ব্যবস্থায় পরিবর্তন আনতে হবে।’

যা বলছেন বিশিষ্টজন : এ প্রসঙ্গে শিক্ষাবিদ সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, বরগুনার নয়ন বন্ডের মতো আরও অনেকেই দেশের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে রয়েছে। নয়ন ক্ষমতাসীন দলের কারও কারও আশ্রয়ে ছিল। এতদিন তারা তাকে সুরক্ষা দিয়েছে। স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের উপলব্ধি করা উচিত, এ ধরনের বখাটে আশ্রয় দিলে যে কোনো ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটতে পারে। স্থানীয় প্রশাসন, পুলিশ ও বিচার ব্যবস্থার সঙ্গে যারা জড়িত, তাদের অবশ্যই দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। নয়ন ও তার সহযোগীরা দ্রুত গ্রেফতার না হলে সমাজে অন্যরকম বার্তা যেতে পারে। সোনাগাজীতে নুসরাতের ঘটনায় দেখা গেছে, একজন চরিত্রহীন ব্যক্তি দীর্ঘদিন মাদ্রাসার অধ্যক্ষ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিল। প্রশাসন তা জানার পরও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। আবার বরগুনায় নয়নের কুকর্মের কথা জানার পরও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি সেখানকার প্রশাসন। এসব চলতে পারে না।

সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম আরও বলেন, অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি নৈতিকতা, মূল্যবোধ, সুশাসন ও আইন-শৃঙ্খলার উন্নতি না ঘটলে টেকসই উন্নতি সম্ভব নয়। এ দেশের শিক্ষা ব্যবস্থা এখনও পুরনো বোতলে বন্দি। বিশ্ববিদ্যালয়গামী ছাত্র-ছাত্রীদের অনেকেই তাই সুনাগরিক হিসেবে গড়ে উঠছে না। বরং তাদের মধ্যে নৈতিকতাবিরোধী কাজে জড়ানোর প্রবৃত্তি দেখা যায়।

সাবেক পুলিশ মহাপরিদর্শক নূরুল হুদা বলেন, সমাজে নৈতিক মানদণ্ডের অবক্ষয় ঘটেছে। শিক্ষা ব্যবস্থার সংকট ও মাদকের বিস্তার এর অন্যতম কারণ। সমাজে শান্তি প্রতিষ্ঠার দায়িত্ব কেবল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নয়, জনগণেরও ভূমিকা রয়েছে। কেন সমাজে অশান্তি বাড়ছে, সেটা ভেবে দেখা দরকার। পূর্বপরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড প্রতিরোধ করা যায় না। তবে এমন ঘটনা ঘটলে আইনি পদক্ষেপ আরও দ্রুত নেওয়া উচিত।

মানবাধিকার কর্মী অ্যাডভোকেট সালমা আলী বলেন, যেভাবে পাড়া-মহল্লায় বখাটেদের ছোট-বড় বাহিনী গড়ে উঠেছে, তা বিস্ময়কর। তাদের অধিকাংশই মাদকাসক্ত ও মাদক কারবারি। এদের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স দেখাতে হবে। রাষ্ট্রের সবক্ষেত্রে জবাবদিহি নিশ্চিত করতে হবে।

তবে এ ব্যাপারে বিশিষ্ট আইনজীবী শাহ্‌দীন মালিক ব্যাখ্যা দিতে গিয়ে সমকালকে বলেন, বাংলাদেশে ১৬ কোটির বেশি মানুষের বসবাস। এখানে বছরে গড়ে চার হাজার মানুষ খুন হয়। কিন্তু মেক্সিকোতে লোকসংখ্যা ১৩ কোটি। গড়ে প্রতি বছর সেখানে ৩০-৩২ হাজার খুন হয়। তাই একটি ঘটনা ঘটলেই তা নিয়ে চাঞ্চল্য তৈরি করা ঠিক নয়- সমস্যা কোথায়, বিশ্ব কোন দিকে যাচ্ছে, তা গভীরভাবে বুঝতে হবে।

ভয়ঙ্কর হুমকির মুখে শিশুরাও : বিভিন্ন দৈনিক সংবাদপত্র পর্যালোচনা করে সম্প্রতি একটি প্রতিবেদন দিয়েছে বেসরকারি সংস্থা ‘মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন’। এ প্রতিবেদন থেকে দেখা যায়, ২০১৮ সালে শিশুদের নিয়ে এক হাজার ৩৭টি ইতিবাচক সংবাদ প্রকাশিত হয়। অথচ নেতিবাচক সংবাদ ছিল দুই হাজার ৯৭৩টি। ২০১৮ সালে প্রকাশিত ধর্ষণের ৩৪৫টি সংবাদ অনুযায়ী শিশু ধর্ষণের সংখ্যা ৩৫৬। এই শিশুদের মধ্যে মারা গেছে ২২ জন। আহত হয়েছে ৩৩৪ জন। বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরামের তথ্য অনুযায়ী, ২০১২ সালে ৮৬, ২০১৩ সালে ১৭৯, ২০১৪ সালে ১৯৯, ২০১৫ সালে ৫২১, ২০১৬ সালে ৪৪৬ এবং ২০১৭ সালে ৫৯৩ জন শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে।

চাঞ্চল্যকর কয়েকটি ঘটনা : বরগুনার নৃশংস হত্যাকাণ্ডের আগে চলতি বছর দেশে সবচেয়ে চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটে ফেনীর সোনাগাজীতে। সেখানে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়। কারাগারে বসেই এ হত্যার পরিকল্পনা করেন সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ-দৌলা। এ ঘটনায় ১৬ জনকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করা হয়। গত শুক্রবার সাতক্ষীরায় দুর্বৃত্তদের হামলায় গুরুতর আহত হয় শাহীন নামে এক কিশোর। ওই দিন যাত্রীবেশী কয়েকজন দুর্বৃত্ত তার ভ্যানটি ভাড়া নেয়। তাদের নিয়ে সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা থানার ধানদিয়ার নামক এলাকায় যাচ্ছিল সে। পথিমধ্যে শাহীনের মাথায় আঘাত করে ভ্যানটি নিয়ে পালিয়ে যায় তারা। আঘাত ও রক্তক্ষরণের ফলে অচেতন হয়ে পড়েছিল শাহীন। সে বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। গত বুধবার সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় অবসরপ্রাপ্ত এক সেনাসদস্য ও তার বৃদ্ধ মাকে গলাকেটে হত্যা করা হয়েছে। ঠাকুরগাঁওয়ে যৌন হয়রানির প্রতিবাদ করায় তানজিলা আক্তারের ওপর হামলা চালায় এক প্রতিবেশী। আহতাবস্থায় চিকিৎসাধীন থাকার পর গত বৃহস্পতিবার মারা গেছেন তিনি। যৌতুকের মামলা করায় গত মঙ্গলবার জামালপুরের মাদারগঞ্জে এক গৃহবধূকে গাছে বেঁধে নির্যাতন করেছে তার স্বামী। বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে প্রতারণা করে একাধিক ছাত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের অভিযোগে স্কুলশিক্ষককে গণপিটুনি দিয়েছেন স্থানীয়রা।

গত বুধবার রূপগঞ্জে চাপাতি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে ইউপি সদস্য বিউটি আক্তার কুট্টিকে। নরসিংদীতে দুর্বৃত্তদের আগুনে দগ্ধ ফুলন রানী বর্মণও ১৩ দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়ে না ফেরার দেশে চলে গেছেন ২৬ জুন। একই দিন পাওনা ১০০ টাকা চাওয়ায় কুমিল্লার লাকসামে এক যুবককে কুপিয়ে হত্যা করেছে তার খালাতো ভাই। ২৫ জুন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে খুন করে এক ব্যক্তির কাটা মাথা নিয়ে থানায় হাজির হন মাদকাসক্ত লবু দাস। ২৩ জুন রাজধানীর কলাবাগানে বান্ধবীকে খুঁজতে গিয়ে যৌন নিপীড়নের শিকার হন এক তরুণী। ২৪ জুন শরীয়তপুরের নড়িয়ায় যুবলীগ নেতা ইমরান হোসেন সরদারকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। ১৭ জুন নওগাঁর মান্দায় মাকে গলা কেটে খুন করে লাশের পাশে মেয়েকে ধর্ষণ করে দুর্বৃত্তরা। এ ছাড়া চলতি বছর মে মাসে কিশোরগঞ্জে নার্স শাহীনুর আক্তার তানিয়াকে চলন্ত বাসে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়।

Leave a Response

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.