হটলাইন

01787-652629

E-mail: teknafnews@gmail.com

সর্বশেষ সংবাদ

ধর্ম ও দর্শনবিনোদন

রাত পোহালেই খুশির ঈদ

টেকনাফ নিউজ ডেস্ক…৩০ দিনের সিয়াম সাধনার পর এলো খুশির ঈদ। পশ্চিম আকাশে এক ফালি চাঁদ দেখে দেশজুড়ে শুরু হয়েছে ঈদের আমেজ। রাত পোহালেই ঈদের খুশিতে ভাসবে দেশ। নারী, পুরুষ, শিশু বৃদ্ধ সবার মধ্যে বয়ে যাবে এক অনাবিল আনন্দের ধারা। পরিবার পরিজন নিয়ে সবাই ভাগাভাগি করে নেবেন ঈদের আনন্দ। ঈদ মুসলিম জাহানের সর্ববৃহৎ ধর্মীয় উৎসব। আনন্দ আবেগে উদযাপন করা হয় এই ঈদ উৎসব। পরিজনদের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করতে ইতোমধ্যে রাজধানী ফাঁকা করে লাখো মানুষ পাড়ি জমিয়েছেন নাড়ির টানে। আর তাই রাজধানীর চিরচেনা রূপ বদলে অনেকটা অচেনাই হয়ে গেছে এই নগরী। অন্যদিকে গ্রামে গঞ্জে বিরাজ করছে ভিন্ন এক পরিবেশ। এদিকে সারা দেশে সোমবার একযোগে ঈদ উদযাপন করলেও দেশের কিছু এলাকায় মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে সঙ্গতি রেখে রোববারই ঈদ উদযাপন করা হয়েছে।
প্রতি বছরের মতো এবারও মধ্যপ্রাচ্যের সঙ্গে মিল রেখে দেশের ১০টি জেলার শতাধিক গ্রামে পবিত্র ঈদ-উল ফিতর উদযাপিত হচ্ছে। চট্টগ্রাম, চাঁদপুর, ভোলা, মাদারীপুর, পটুয়াখালী, ফরিদপুর, শরীয়তপুর, শেরপুর, বরগুনা ও ঝিনাইদহ জেলার কয়েকটি গ্রামের লোকজন একদিন আগেই ঈদ উৎসব করছেন। এসব গ্রামের লোকরা রোজাও শুরু করেছিলেন একদিন আগে থেকে।
মোরশেদ আলম, চাঁদপুর থেকে জানান, চাঁদপুরের ৫ উপজেলার প্রায় ৩০টি গ্রামে রোববার পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত হয়। বিশ্বের যে কোন দেশে চাঁদ দেখার খবরের উপর ভিত্তি করে এসব গ্রামে রোজা শুরু ও ঈদ পালিত হয়ে আসছে প্রায় শত বছর ধরে। যার ধারাবাহিকতায় এবারও এসব গ্রামে বাংলাদেশের চেয়ে একদিন আগে রোজা রাখা শুরু হয়।
চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার সাদ্রা গ্রামের মরহুম পীর মাওলানা ইসহাকের বড় ছেলে ও সাদ্রা দরবার শরীফের বর্তমান গদ্দিনশীন পীর মাওলানা আবু জোফার মো. আবদুল হাই শুক্রবার রাতে জানান, আরব বিশ্বের সাথে মিল রেখে আমরা ঈদসহ ধর্মীয় বিভিন্ন অনুষ্ঠানাদি পালন করে থাকি। মাওলানা আবু জোফার বলেন, আগাম ঈদ উদযাপনের ল্েয আমরা ইতোমধ্যে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। স্থানীয় লোকজন ইতোমধ্যে তাদের ঈদের কেনাকাটা সম্পন্ন করেছে। হাজীগঞ্জ উপজেলার সাদ্রা গ্রামের সাদ্রা হামিদিয়া ফাযিল ডিগ্রি মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে রোববার সকালে ঈদের জামায়াত অনুষ্ঠিত হয়।
চট্টগ্রাম থেকে স্টাফ রিপোর্টার জানান, চট্টগ্রামের সাতটি উপজেলার ৩০টি গ্রামে রোববার সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে উদযাপিত হয় পবিত্র ঈদ-উল ফিতর। একদিন আগে ঈদুল ফিতর উদযাপনকারীদের অধিকাংশই চট্টগ্রামের সাতকানিয়ার সিলসিলিয়া আলিয়া জাহাগীর পীর দরবার শরিফের অনুসারী। সবচেয়ে বড় ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে সাতকানিয়ার মীর্জারখীল জাহাগীর পীরের দরবার শরিফে। আনোয়ারার সরকার হাট এলাকার হযরত লতিফ শারের মাজার সংলগ্ন তৈলারদ্বীপ মসজিদেও জামায়াত হয়েছে।
ভোলার পাঁচ উপজেলার ১০টি গ্রামের প্রায় পাঁচ হাজার পরিবারের সদস্যরাও রোববার ঈদ পালন করছেন। সদরের ইলিশা, বোরহানউদ্দিনের মুলাইপত্তন, টবগী, পয়িত্তা ও পশ্চিম মুলাইপত্তন গ্রাম, লালমোহন পৌর এলাকার কিছু অংশ এবং উপজেলার ফরাজগঞ্চ ও লাঙ্গলখালী গ্রাম, তজুমদ্দিন উপজেলার শিবপুর ও সম্ভুপুর গ্রাম এবং চরফ্যাশন উপজেলার আমিনাবাদ গ্রামের প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ ঈদ উদযাপন করছেন আজ। মাদারীপুর জেলার চরকালিকাপুর, পূর্ব পাচখোলা, কালকিনি উপজেলার সাহেবরামপুরের আন্ডারচর ও কয়ারিয়া গ্রামসহ অন্তত ২০টি গ্রামে ঈদ-উল ফিতর উদযাপন হবে।
পটুয়াখালীর বদরপুর, আউলিয়াপুর, পূর্ব কেওয়াবুনিয়াসহ কয়েকটি গ্রামেও রোববার ঈদ-উল ফিতর উদযাপিত হচ্ছে।
কলাপাড়া, রাঙ্গাবালী ও গলাচিপা উপজেলার ১০ সহস্রাধিক মুসলমানও ৩০ রমজান পূর্ণ করে রোববার পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উদযাপন করবেন।
শরীয়তপুরের ৩০ গ্রামে রোববার সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে রমজানের ঈদ পালন করা হবে। সুরেশ্বর দরবার শরিফের প্রতিষ্ঠাতা সৈয়দ জান শরীফ শাহ সুরেশ্বরী ওরফে মাওলানা আহাম্মদ আলীর আমল থেকে চন্দ্র মাস গণনা সাপেে সৌদি আরবের সঙ্গে মিল রেখে এ দরবারে রোজা ও ঈদ উদযাপন করা হচ্ছে।
শেরপুর জেলার ৪টি গ্রামে রোববার ঈদ-উল ফিতর পালন হচ্ছে। পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার শাপলেজা ইউনিয়নের দণি শাপলেজা, ভাইজোড়া, কচুবাড়িয়া, খেতাচিড়া ও চড়কগাছিয়া গ্রামেও ঈদ পালন করা হচ্ছে। বরগুনার জেলার নয়টি গ্রামে রোববার ঈদ উদযাপন করা হচ্ছে। এছাড়া ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডু উপজেলার ১২ গ্রামের শতাধিক মানুষ রোববার ঈদ উদযাপন করছেন। এছাড়া ফরিদপুরের বোয়ালমারি উপজেলার ৫টি এবং আলফাডাঙা উপজেলার দুুটি গ্রামে পালিত হচ্ছে ঈদুল ফিতর।

Leave a Response

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.