টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা সবচেয়ে বড় ভুল : ডা. জাফরুল্লাহ মাদক কারবারি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত সাংবাদিক আব্দুর রহমানের উদ্দেশ্যে কিছু কথা! ভারী বৃষ্টির সতর্কতা, ভূমিধসের শঙ্কা মোট জনসংখ্যার চেয়েও ১ কোটি বেশি জন্ম নিবন্ধন! বাড়তি নিবন্ধনকারীরা কারা?  বাহারছড়া শামলাপুর নয়াপাড়া গ্রামের “হাইসাওয়া” প্রকল্পের মাধ্যমে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ ও বার্তা প্রদান প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর উদ্বোধন উপলক্ষে টেকনাফে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফ্রিং টেকনাফের ফাহাদ অস্ট্রেলিয়ায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছে নিখোঁজের ৮ দিন পর বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা মিয়ানমারে পিডিএফ-সেনাবাহিনী ব্যাপক সংঘর্ষ ২শ’ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস বিল গেটসের মেয়ের জামাই কে এই মুসলিম তরুণ নাসের

মোহালিতে এগিয়ে যাওয়ার লড়াইয়ে আজ মুখোমুখি ভারত- অস্ট্রেলিয়া

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শনিবার, ১৯ অক্টোবর, ২০১৩
  • ৯৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে
মোহালি: ভারত – অস্ট্রেলিয়া সাত ম্যাচ ওডিআই  সিরিজে এখন ১-১-এ সমতা। প্রথম দুটো ওডিআই ম্যাচেই দর্শকরা দেখেছেন ১২৫৭ রান। ১৯৩.১ ওভারে এত রান নিঃসন্দেহে গাঁটের পয়সা খরচ করে স্টেডিয়ামে আসা দর্শকদের আনন্দ দিয়েছে।  মোহালির পাঞ্জাব ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন স্টেডিয়ামে সিরিজের তৃতীয় ম্যাচে আজ শনিবার দুইদল মুখোমুখি হওয়ার সময়টাতে উভয় দলেরই লক্ষ্য থাকবে এগিয়ে যাওয়ার।
জয়পুরে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় ওডিআই ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে যেভাবে স্বাগতিক দল পরাজিত করেছে, তাতে করে আত্মবিশ্বাসের পাল্লাটা তাদের দিকেই বেশি ভারী। কাজেই তৃতীয় ওডিআই ম্যাচে মানসিকভাবে অনেকটাই ব্যাকফুটে অস্ট্রেলিয়ান দল। সীমিত ওভারের ক্রিকেটে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান তাড়ায় জয় পাওয়া ভারতীয়রা মোহালিতে জয়ের বিকল্প কিছু ভাবছে না।
মহেন্দ্র সিং ধোনি অ্যান্ড কোং এখন বাতাসে উড়ছে। কাজেই জর্জ বেইলির নেতৃত্বাধীন লড়াকু বাহিনীর দ্রুত জয়পুরের হতাশা কাটিয়ে ওঠার ওপরই নির্ভর করছে সফরকারীদলের সাফল্য। জয়পুরে ভারতীয় দল  মাত্র ৪৪ ওভারের মধ্যে ৩৬০ রানের বড় সংগ্রহ টপকে গিয়ে প্রমাণ করেছে যে, কোনো ইনিংসই তাদের কাছে অসম্ভব কিছু নয়। অন্তত শিখর ধাওয়ান রোহিত শর্মা এবং বিরাট কোহলির অস্ত্র ভান্ডারের সবকিছু ঠিকঠাক কাজ করলে প্রতিপক্ষকে নাকাল হতেই হবে।
এই তিন ব্যাটসম্যানের শক্তি তিনটি ভিন্ন জায়গায়। তবে একটা দিকে মিল রয়েছে। সেটা হলো প্রতিপক্ষকে ভড়কে দেয়ার ক্ষমতা। জয়পুরে ধাওয়ানের ৯৫ রান ছিল শক্তির প্রদর্শন। কব্জির মোচড়ের  ক্ষমতার কারিশমা দেখিয়ে রোহিত শর্মা খেলেছেন ১৪১ রানের ঝকঝকে ইনিংস। সীমিত ওভারের ক্রিকেটকে শাসন করার ইংগিত দিয়েছে কোহলির ৫২ বলে ১০০ রানের অপরাজিত ইনিংস।
ম্যাচ পরবর্তী  প্রেস কনফারেন্সে অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক জর্জ বেইলিও ভারতীয় ব্যাটিং লাইন আপের দক্ষতার বিষয় স্বীকার করেছেন। তার মতে, ভারতীয় টপ অর্ডারের সাতজনই ওডিআই ফরম্যাটের সেরাদের অন্যতম।
প্রথম ম্যাচে হতাশাজনক পারফরম্যান্সের পর যেভাবে ভারতীয় দল ঘুরে দাঁড়িয়েছে, তাতে করে পাঞ্জাবের ব্যাটিং স্বর্গে প্রতিপক্ষ বোলারদের খুন করা ছাড়া অন্য কিছুই সম্ভবত ভাবছে না ভারতীয় ব্যাটিং লাইন আপ।
অভিষেক টেস্টে পাঞ্জাবের এই স্টেডিয়ামেই সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন  ভারতীয় ওপেনার শিখর ধাওয়ান। আবারো এই মাঠে খেলার সুযোগটা তিনি নিঃসন্দেহে উদযাপন করতে চাইবেন রানের বন্যা দিয়ে।
টপ অর্ডারের উইলো থেকে যেভাবে রান আসছে, তাতে করে সুরেশ রায়না, অভিজ্ঞ অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি এবং যুবরাজ সিংয়ের হাত নিঃসন্দেহে নিশপিশ করছে। দলের জয়ে অবদান রাখার সুযোগ পেলে (টপ অর্ডার ব্যর্থ না হলে) তারাও চেষ্টার ত্রুটি করবেননা।
ভারতীয়দের দুর্বলতা বরাবরই বোলিং ইউনিট নিয়ে। এবারের সিরিজেও তার ব্যতিক্রম দেখা যাচ্ছে না। এ পর্যন্ত দুটো ওডিআই এবং একমাত্র টুয়েন্টি টুয়েন্টি ম্যাচে ১২০ ওভারে ৭.২০ গড়ে  ভারতীয় বোলাররা রান দিয়েছে ৮৬৪টি। এটা কোনোভাবেই বিশ্ব চ্যাম্পিয়নদের কাছ থেকে আশা করা যায়না।
ভারতীয় অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি উইনিং কম্বিনেশন ঠিক রাখার স্বার্থে একাদশে পরিবর্তন আনার পক্ষে ছিলেন না। তবুও ইশান্ত শর্মাকে বাদ পড়তেই হয়েছে। তার পরিবর্তে একাদশে ঠাঁই হয়েছে মোহাম্মদ সামির। আর বিনয় কুমার কোনোরকমে এ যাত্রা একাদশে টিকে গেছেন। বিনয়  কুমার এবং ইশান্ত শর্মা অস্ট্রেলিয়ান ব্যাটসম্যানদের রান আটকাতে রীতিমত হতাশ করেছেন।
এবার অস্ট্রেলিয়ান দলের দিকে তাকানো যাক। হতাশাজনক পরাজয়ের পরও (জয়পুরে ৩৫৯ রানের পুঁজি নিয়েও পরাজয়) সফরকারী দলের মূল শক্তি তাদের ব্যাটিং ইউনিট। এ পর্যন্ত খেলা তিন ম্যাচেই ব্যাটসম্যানরা নিজেদের সামর্থ্যরে পরিচয় দিয়েছেন।
অ্যারন ফিঞ্চ এবং জর্জ বেইলি আছেন দূর্দান্ত ফর্মে। ফিল হিউজেস চলতি বছরের শুরুতে ভারত সফরে টেস্ট সিরিজে বাজে পারফরম্যান্সকে পেছনে ফেলে এসেছেন বলেই মনে হয়। ব্যাট হাতে শেন ওয়াটসনও ভালো করছেন। সেই সাথে যে কোনো মুহুর্তে ম্যাচের মোড় ঘোরানোর ক্ষমতাসম্পন্ন ‘এক্স ফ্যাক্টর’ গ্লেন ম্যাক্সওয়েল তো আছেনই।
পুনেতে অনুষ্ঠিত প্রথম ওডিআই ম্যাচে অস্ট্রেলিয়ান পেসারদের বোলিং ছিল দূর্দান্ত। জয়পুরে তারা লাইন এবং লেংথ খুঁজে না পেলেও মোহালিতে পুনের পুনরাবৃত্তি ঘটানোর ক্ষমতা তাদের রয়েছে। জয়পুরে মিচেল জনসন এবং শেন ওয়াটসন ভারতীয় ওপেনারদের মাঝে মাঝেই পরাস্ত করলেও বিরাট কোহলির কাছে অবশ্য কোনো বোলারই পাত্তা পাননি।
ধারণা করা হচ্ছে মোহালির পিচে রান বন্যা দেখার পাশাপাশি মেধাবী ভারতীয়দের সাথে লড়াকু অস্ট্রেলিয়ানদের জমজমাট একটা যুদ্ধ দেখতে পারবেন ক্রিকেটভক্তরা।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT