টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

মেসি-ম্যাজিকে শীর্ষে আর্জেন্টিনা..ব্রাজিলের কষ্টের জয়

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০১২
  • ১৮০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এই ম্যাচের আগে মেসি বলেছিলেন, প্যারাগুয়ের বিপক্ষে তাদের নিজেদের ফর্ম ধরে রাখার লড়াই। সেই লড়াইয়ে জিতেছে লিওনেল মেসির আর্জেন্টিনা। নিজে গোল করে সামনে থেকেই নেতৃত্ব দিলেন প্যারাগুয়ের বিপক্ষে ৩-১ গোলের এই জয়ে। আরেকটি মেসি-হিগুয়েইন-ডি মারিয়া শোতে ভর করে দক্ষিণ আমেরিকান বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে চলে এলো আর্জেন্টিনা। এদিকে দিনের অন্য বাছাইপর্বের ম্যাচে ফেবারিট উরুগুয়েকে ৪-০ গোলের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে কলম্বিয়া।
খেলার আক্ষরিক অর্থেই প্রথম মিনিট থেকে সফরকারী প্যারাগুয়েকে চেপে ধরে আর্জেন্টিনা। দ্বিতীয় মিনিটে প্রথম গোল পেয়ে যায় তারা। দারুণ ক্রস করে বল বক্সে পাঠান এজেকুয়েল লাভেজ্জি। লাভেজ্জি আবার বল ফেরত পাঠান বক্সের বাইরে থাকা ডি মারিয়ার কাছে। বাইরে থেকেই দারুণ এক বাম পায়ের শটে প্রথম দলকে এগিয়ে দেন রিয়াল তারকা ডি মারিয়া।
আর্জেন্টিনার হয়ে এরপরের গোলটাও আরেক রিয়াল মাদ্রিদ তারকার। তার আগে অবশ্য ১৭ মিনিটে পেনাল্টি থেকে সমতায় ফেরে প্যারাগুয়ে। কিন্তু সে আনন্দ বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি। ৩১ মিনিটে ডিফেন্সের ভুলের সুযোগ নিয়ে এ সময়ের অন্যতম সুযোগসন্ধানী স্ট্রাইকার হিগুয়েই আবার লিড এনে দেন আর্জেন্টিনাকে।
এরপর ডি মারিয়ার কর্নার কিক কোনোক্রমে একবার বাঁচিয়ে দেন প্যারাগুয়ের গোলরক্ষক জাস্টো ভিলার। দ্বিতীয়ার্ধের একদম শুরুতে লিওনেল মেসির দুর্দান্ত শট কাছের পোস্টে লেগে ফিরে আসে। মিস করেন একটা হিগুয়েইনও। ফলে ব্যবধানটা ততো বড় হয়নি। তারপরও মেসির একটু ম্যাজিক বাকি ছিল।
খেলার ৬৫ মিনিটে বক্সের বাইরে ফ্রি কিক পায় আর্জেন্টিনা। গত সপ্তাহেই বার্সেলোনার হয়ে এরকম জায়গা থেকে ফ্রি কিকে গোল করে বোকা বানিয়েছিলেন ইকার ক্যাসিয়াসকে। এবার বোকা হলেন জাস্টো ভিলার। খেলোয়াড়দের ওপর থেকে গিয়ে বল নিচু হয়ে বার ঘেঁষে ঢুকে পড়ে জালে!
বাকি সময় গোল হয়নি। তাতেও আর্জেন্টিনার সমস্যা নেই। ১৯৭৩ সালের পর এই প্রথম আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের ম্যাচে হারাতে পারল প্যারাগুয়েকে। আর এই জয়ের ফলে বাছাইপর্বে অংশ নেয়া লাতিন আমেরিকা অঞ্চলের দলগুলোর মধ্যে ১৩ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে আছে আর্জেন্টিনা। এক পয়েন্ট কম নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে চিলি। এছাড়া ইকুয়েডরের ঝুলিতে আছে ১২, উরুগুয়ের ১১ ও কলিম্বয়ার পয়েন্ট ১০। এই অঞ্চলের আরেক খেলায় কলম্বিয়া ৪-০ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে উরুগুয়েকে। জোড়া গোল করেন তিওফিলো গুতিয়েরেস। একটি করে গোল করেন রামাদেল ফ্যালকাও এবং সুনিকা।
এদিকে বাছাইপর্বে উত্তর আরেমিকা অঞ্চলের খেলায় হন্ডুরাস ৩-০ গোলে কিউবাকে, কানাডা ১-০ ব্যবধানে পানামাকে, মেক্সিকো ২-০ এ কোস্টারিকাকে এবং গুয়েতেমালা ৩-১ গোলে হারিয়েছে আন্টিগুয়াকে। হোঁচট খেয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। তাদের ২-১ গোলে হারিয়েছে জামাইকা।
অন্যদিকে ইউরোপীয় অঞ্চলের খেলায় জয় পেয়েছে নেদারল্যান্ডস, জার্মানি, ফ্রান্স, ইংল্যান্ড ও পর্তুগাল। নেদারল্যান্ডস ২-০ গোলে তুরস্ককে, জার্মানি ৩-০ তে ফারো আইল্যান্ডকে, ইংল্যান্ড ৫-০ এ মোলদোভাকে, ফ্রান্স ১-০ গোলে ফিনল্যান্ডকে এবং পর্তুগাল ২-১ ব্যবধানে লুক্সেমবার্গকে হারিয়েছে। আর বুলগেরিয়ার সঙ্গে ২-২ গোলে ড্র হয়েছে ২০১২’র ইউরো ফাইনালিস্ট ইতালির খেলা bbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbbb
আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে স্ট্রাইকার হাল্কের দেয়া একমাত্র গোলে জয় পেয়েছে চারবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন দল ব্রাজিল। অন্যদিকে এশিয়ার দেশ দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৫-০ গোলের লজ্জায় ডুবিয়েছে বর্তমান বিশ্ব ও ইউরো চ্যাম্পিয়ন স্পেন। ম্যানো মেনেজেসের অধীনে প্রায় এক বছর পর নিজেদের মাঠে খেলতে নেমে প্রথমার্ধে মাঠে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না সেলেকাওদের। বরং প্রথমার্ধে দারুণ ফুটবল উপহার দিয়েছে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা। ১২ মিনিটেই এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছিল বাফানা বাফানারা। তবে ডিনো এনলভুর আক্রমণ প্রতিহত করেন ব্রাজিলের গোলরক্ষক ডিয়েগো অ্যালভেস। এর পাঁচ মিনিট পর সুযোগ পায় ব্রাজিল দল। তবে দক্ষিণ আফ্রিকার গোলরক্ষক আইস্যাক খুনের কৃতিত্বে গোল করতে ব্যর্থ হন ব্রাজিল ফরোয়ার্ড নেইমার। ৩৪ মিনিটে আবারো সুযোগ নষ্ট করে ব্রাজিল। লুকাস মোরার জোরালে শিট প্রতিহত করেন খুনে।
গোলশূন্য প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার পর দর্শকদের দুয়োধ্বনির মাঝেই দ্বিতীয়ার্ধে মাঠে নামে ব্রাজিল। দলে বেশ কয়েকটি পরিবর্তন আনেন ব্রাজিল কোচ ম্যানো মেনেজেস। ৬৩ মিনিটে মিডফিল্ডার দামিয়াওয়ের পরিবর্তে মাঠে নামেন হাল্ক। ৭৪ মিনিটে দলের হয়ে একমাত্র গোল করেন তিনি। ৫০ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে রাশিয়ান ক্লাব জেনিথ সেন্ট পিটার্সবার্গে যোগ দেয়া হাল্ক ডেভিড লুইজের নেয়া ক্রস থেকে দারুণ এক ভলিতে দলকে এগিয়ে দেন। এরপরই ব্যবধান দ্বিগুণ করার সুযোগ পায় স্বাগতিকরা। তবে হাল্কের ক্রস থেকে নেয়া নেইমারের হেড গোলবারের বাইরে দিয়ে চলে যায়। খেলা শেষে ব্রাজিলের গোলদাতা ২৬ বছর বয়সী হাল্ক বলেন, “মাঠে দর্শকদের আরো সমর্থন পেলে আমরা আরো বড় ব্যবধানে ম্যাচ জয় করতে পারতাম। প্রতিদিন একটি দল ভালো খেলার নিশ্চয়তা দিতে পারে না। এর পরও আসরা জিতেছি। সবার উচিত আমাদের উত্সাহ যোগানো।”

দিনের আরেক খেলায় শক্তিশালী স্পেন দলের কাছে ৫-০ গোলে নাস্তানাবুদ হয়েছে সৌদি আরব। গোল বন্যার শুরু হয় খেলার ২২ মিনিটে। গোল করে দলকে এগিয়ে নেন স্যান্টি ক্যাজোলা। এর ৬ মিনিট পর পেড্রোর গোলে ব্যবধান দ্বিগন করে স্পেন। ২-০ গোলে প্রথমার্ধ শেষ করার পর ৪৭ মিনিটে আবারো গোল করে স্পেন। গোল করেন জাভি হার্নান্দেজ। ৬৩ মিনিটে দীর্ঘদিন পর স্পেনের হয়ে খেলতে নামা ডেভিড ভিয়া পেনাল্টি থেকে দলের চতুর্থ গোল করেন। এর দশ মিনিট পর নিজের দ্বিতীয় এবং দলের পঞ্চম গোল করেন পেড্রো। ৫-০ গোলের বিশাল ব্যবধানের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে স্পেন।
দিনের অন্যান্য খেলায় উজবেকিস্তান ৩-০ গোলে কুয়েতকে ও ফিলিপাইন ২-০ গোলে সিঙ্গাপুরকে পরাজিত করেন।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT