হটলাইন

01787-652629

E-mail: teknafnews@gmail.com

সর্বশেষ সংবাদ

কক্সবাজারপ্রচ্ছদ

মেরিন ড্রাইভ নয়, গাড়ি চলছে সমুদ্রসৈকতে ভেসে!

সুনিল বড়ুয়া:: সৈকতের বালুচরে এভাবেই চলছে যানবাহন

কক্সবাজার: কক্সবাজারের কলাতলী-মেরিন ড্রাইভ সংযোগ সড়কের সংস্কার কাজে ধীরগতির কারণে বিপাকে এ রুটে চলাচলকারী পরিববহনগুলো। ভোগান্তি যাত্রীদেরও। মেরিন ড্রাইভ ভ্রমণে আসা পর্যটকদের ভোগান্তিও বাড়ছে। শুধু তাই নয়, জরুরি প্রয়োজনে বিকল্প পথ হিসেবে সমুদ্রসৈকত দিয়ে চলতে হচ্ছে গাড়ি। আর এতে প্রায়েই ঘটছে দুর্ঘটনা।
‘গাড়ির অতিরিক্ত চাপ ও দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় পর্যটন নগরীর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কের বেহাল দশার কারণে ছোটখাটো দুর্ঘটনা ঘটছে প্রতিদিন। তাই সড়কটি জরুরি ভিত্তিতে সংস্কার প্রয়োজন’।
একথা জানিয়ে সড়কটির সংস্কার কাজ করতে গত ২ ফেব্রুয়ারি তিনমাসের জন্য এ সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ রাখতে একটি গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে কক্সবাজার পৌরসভা। এসময় ভ্রমণে আসা পর্যটক, রোহিঙ্গা শিবিরে কর্মরত এনজিও সংস্থার যানবাহন শহরের লিংক রোড থেকে কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কের কোর্টবাজার হয়ে মেরিন ড্রাইভ সড়ক ব্যবহারের অনুরোধ জানানো হয়। কিন্তু সেই তিনমাস সময় প্রায় ২৫ দিন আগে পেরিয়ে গেলেও এখনো পর্যন্ত ৪০ শতাংশ কাজও সম্পন্ন হয়নি। ফলে ভ্রমণে আসা পর্যটক ও স্থানীয়দের ভোগান্তির শেষ নেই।


তবে এ প্রকল্প সংশ্লিষ্ট প্রকৌশলী বলছেন, বারবার প্রকল্পের ডিজাইন পরিবর্তন ও সড়কের ড্রেন নির্মাণে এলাকাবাসীর জমি না ছাড়ার কারণে প্রকল্পের কাজে এ ধীরগতি। আগামী দেড় মাসের মধ্যে এ প্রকল্পের কাজ সম্পন্ন হবে। এমন আশাবাদ ব্যক্ত করেন তারা।
রোববার (২৫ মে) বিকেলে সরেজমিনে দেখা যায়, আরসিসি ঢালাই ও একপাশে ড্রেন- দুই ভাগে সড়কের সংস্কার কাজ শুরু করা হলেও ওইদিন শুধু প্রায় ১৫ জন শ্রমিককে আরসিসি ঢালাইয়ের কাজ করতে দেখা গেছে। লাতলী হাঙর ভাস্কর্য মোড় থেকে বেইলি হ্যাচারি পর্যন্ত প্রায় দেড় কিলোমিটার (১৩শ মিটার) সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। স্থানীয় লোকজন, চাকরিজীবী, স্কুল-কলেজগামী শিক্ষার্থীরা হেঁটে সেই পথ পাড়ি দিচ্ছেন।
সাংবাদিক আহমদ গিয়াস বাংলানিউজকে বলেন, আমার বসতি দরিয়া নগর এলাকায়। তাই এখান থেকে শহরের দিকে যেতে আগে সাগরের জোয়ার ভাটা দেখতে হয়। অন্যথায় পাড়ে হেঁটে দেড় কিলোমিটার পথ পাড়ি দিতে হয়।
তিনি বলেন, মূলত পর্যটন বিকাশের জন্য মেরিন ড্রাইভ সড়কটি তৈরি করা হলেও এখন রোহিঙ্গা ক্যাম্পের কারণে এ সড়কের গুরুত্ব হাজার গুণ বেড়ে গেছে। ক্যাম্পে কর্মরত দেশি-বিদেশি সংস্থার প্রতিদিন প্রায় ১২শ প্রাইভেটকারসহ শত শত যানবাহন এখন সাগরের বালুচর দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে। তাই প্রায় প্রতিদিন ঘটছে দুর্ঘটনা। কিছুদিন আগে দেখা গেছে একটি পাথর বোঝাই ট্রাক সাগরের পানিতে রীতিমতো ভাসছে।
বালুচরে আটকে পড়ার পরে একপর্যায়ে জোয়ার চলে আসায় ট্রাকটি সাগরের পানিতে ভেসে যায়। পরে ভাটা হলে ট্রাকের ভাঙা বডি উদ্ধার করা হয়। এর আগে আটকা পড়ে একটি মাছের পোনা বোঝাই ট্রাক। এমন দৃশ্য প্রায় প্রতিদিনের- যোগ করেন আহমদ গিয়াস।
টমটমচালক আব্দুর রহিম বলেন, এই রাস্তা দিয়ে একবার গাড়ি নিয়ে আসলে গাড়ির একমাসের জীবনহানি হয়। তবুও কি করবো, নিরুপায় হয়ে আসতে হচ্ছে। সামনে বর্ষায় ভোগান্তি আরও বাড়বে। বাড়বে দুর্ঘটনার সংখ্যাও।
কক্সবাজার পৌরসভার সহকারী প্রকৌশলী টিটন দাশ বাংলানিউজকে বলেন, ড্রেনের জন্য জমি নিয়ে জটিলতা ও বারবার ডিজাইন পরিবর্তনের কারণে সঠিক সময়ে কাজটি সম্পন্ন করা যাচ্ছে না।
তিনি বলেন, এ প্রকল্পে প্রথমে কার্পেটিং সড়ক থাকলেও পরবর্তীতে মেয়র মহোদয়ের ইচ্ছার কারণে এটিকে আরসিসি ঢালাই সড়ক করা হয়। কাজ শুরু করার পর এলাকাবাসীর কাছ থেকে দাবি আসে সড়কের পাশে ড্রেন নির্মাণের। ড্রেনের জন্য জায়গা বের করতে গেলেই শুরু হয় জটিলতা। এসব কারণে মূলত সংস্কার কাজে ধীরগতি চলছে।
প্রকৌশলী টিটন দাশ আরও বলেন, এখন পর্যন্ত প্রকল্পের প্রায় ৪০ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। আশা করছি, আগামী মাস দেড়েকের মধ্যে পুরোপুরি কাজ সম্পন্ন হবে।
ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান আসাদ এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী আসাদুজ্জামান বাংলানিউজকে বলেন, দু’টি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কলাতলী সড়কের সংস্কার কাজ করছে। আমার আওতাভুক্ত ২শ মিটার আরসিসি ঢালাইয়ের কাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে।
পৌরসভার মেয়র মুজিবুর রহমান বাংলানিউজকে বলেন, অধিক যান চলাচল ও দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় পর্যটন নগরের অতি গুরুত্বপূর্ণ এ সড়কের বেহালদশা হয়েছে। ছোটখাটো দুর্ঘটনা ঘটছে প্রতিদিন। তাই সড়কটি জরুরিভিত্তিতে সংস্কারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কাজ দ্রুত শেষ করতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
জানা যায় কক্সবাজার থেকে টেকনাফ পর্যন্ত সমুদ্রের তীর ধরে হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে গড়ে ওঠা ৮০ কিলোমিটার দীর্ঘ মেরিন ড্রাইভ সড়কের উদ্বোধন হয় ২০১৭ সালের ৬ মে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সড়কটির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। তবে ১৯৯১-৯২ সালে সড়ক প্রকল্পটি গ্রহণের পর থেকেই নির্মাণ কাজ শুরু হয়। কিন্তু মেরিন ড্রাইভের স্টার্টিং পয়েন্ট কক্সবাজার শহরের কলাতলী থেকে বেইলি হ্যাচারি মোড় পর্যন্ত প্রায় ১৩শ মিটার সড়ক বিগত ২০০০ সালে সামুদ্রিক ভাঙনে বিলীন হয়ে গেলে মেরিন ড্রাইভ দিয়ে সড়ক যোগাযোগ প্রায় বন্ধ হয়ে যায়। পরে ২০০৫-০৬ সালে কলাতলী গ্রামের ভেতর দিয়ে চলে যাওয়া সংকীর্ণ সড়কটিকে সামান্য প্রশস্ত করে মেরিন ড্রাইভের সঙ্গে সংযুক্ত করে দেওয়া হয়। কিন্তু দীর্ঘদিন ধরে সড়কটি সংস্কার না হওয়ায় সড়কটি চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়লে পৌর কর্তৃপক্ষ সংস্কারের উদ্যোগ নেয়।

Leave a Response

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.