টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

মানুষ পড়ছে দালালের ফাঁদে নিখোঁজের পরিবার এখনো কাঁদে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ৭ অক্টোবর, ২০১৩
  • ১৩৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

সাইফুল ইসলাম চৌধুরী,টেকনাফ :::::স্বপ্ন পূরন করতে মালয়েশিয়া যেতে গিয়েই প্রতিনিয়ত পড়ছে মানুষ দালালের ফাঁদে । যারা কর্জ,লোন,¯¦র্ণ,বিটেবাড়ী বিক্রি ও বন্দক রেখে মালয়েশিয়া যাওয়ার উদ্দেশ্যে দালালের হাত ধরে ঘর থেকে বেরিয়েছে,তাদের মধ্যে অনেক মানুষ ট্রলার ডুবে প্রাণ হারিয়েছে । আবার এখনো পর্যন্ত অনেকে নিখোজ রয়েছে । এসব নিখোজের পরিবারে চলছে নীরব কান্না । কারা গিয়ে তাদের সান্তনা দেয় কিংবা খবর নেয় তার খবর কি কেউ রাখে । কিভাবে নিখোজের পরিবার  ঋনের টাকা পরিশোধ করে বা বন্দক দেওয়া বিটেবাড়ি উদ্বার করে তা কি কেউ জানে । তবুও গ্রামের সহজ সরল লোকজন প্রতিনিয়ত পড়ছে দালালের ফাদে । দালালরা বাংলাদেশ,মিয়ানমার,থ্যাইলেন্ড ও মালয়েশিয়াই অবস্থান করে যেভাবে সাগর পথে মানব পাচার কাজ নিয়ন্ত্রন করে যাচ্ছে,সে ভাবে প্রশাসনের হাতে ধরা পড়ছেনা । যেসব দালাল ধরা পড়ছে তারা মানব পাচারকারীদের হুকুমের গোলাম । ঢাকা,নারায়নগঞ্জ,হবিগঞ্জসহ উত্তর বঙ্গের যে সব লোক সাগর পথে মালয়েশিয়া যেতে টেকনাফ আসছে তাদেরকে পাটাচ্ছে কারা নিয়ে আসছে কে বা কাদের মাধ্যমে তারা মালয়েশিয়া যাবে এরা কারা বা তারা ধরা ছোয়ার বাইরে কেন এ জবাব দেবে কে ? তাই অভিজ্ঞ মহল মনে করছে মানব পাচারের মূল গডফাদারদের ধরে আইনের আওতায় আনতে সরকারকে অনেক বড় পদপে গ্রহণ করতে হবে । সূত্রে জানাযায়, পাচাকারীরা বিভিন্ন স্থানে অবস্থান করে কৌসুলে মানুষ সংগ্রহ করে । এসব মানুষকে মাছ ধরার ছোট ছোট ফিসিং ট্রলার ভর্তি করে সাগরের মধ্যকানে অবস্থান করা জাহাজে তুলে দেয় । জাহাজে যখন ৩/৪শ লোক হয়,তখন জাহাজটি মালয়েশিয়ার উদ্যেশে রওনা দেয় ।  অনুসন্ধানে জানাযায়,সাগড় পথে মালয়েশিয়া আদম পাচারকারী সিন্ডিকেট সদস্যরা ৪টি দেশে অবস্থান করে মালয়েশিয়া আদম পাচার নিয়ন্ত্রন করে যাচেছ । দেশগুলো হচেছ বাংলাদেশ,মিয়ানমার,থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়া । বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের দালাল চক্রের সদস্যরা মানুষ সংগ্রহ করে বিভিন্ন কৌসলে টেকনাফ,ককসবাজার,মহেসখালী,বাঁশখালী,কুতুবদিয়া,চট্রগ্রাম মাঝিরঘাট সহ অসংখ্য সমুদ্রপয়েন্ট দিয়ে ট্রলার যোগে যাত্রা শুরু করে । প্রতিটি ট্রলার তিন শত থেকে ৬শত পর্যন্ত লোক বহন করে টানা ৭/৮ দিন সাগরে ট্রলার চালিয়ে থাইল্যান্ড সীমান্তে তুলে দেয়  । থাইল্যান্ডে অবস্থানরত পাচারকারী সদস্যরা এ সব নিরহ মানুষকে নিয়ে শুরু করে আরেক ব্যবসা । আবারও নিরহ লোকদের জিম্মি করে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে স্ব স্ব আত্বীয় স্বজনদের কাছে  ১ ল টাকা থেকে দেড় ল টাকা পর্যন্ত মুক্তিপন দাবী করে ল ল টাকা হাতিয়ে নিচেছ । দালালদের মুক্তিপন দাবী ও ছেলের কান্না মোবাইলে শুনে অসহায় মা বাবা বিটেবাড়ী বন্ধক ও বিক্রি করে আবারো দালালদের কাছে থাইল্যান্ডে টাকা পাটায় । দালালরা ২য় দফা টাকা নেওয়ার পর পাহাড়ের বিতর দিয়ে মালয়েশিয়া সীমান্তে যাওয়ার পথ দেখিয়ে দেয় । তবে তা সবার কেত্রে নয় । দালালদের খপ্পরে পরে যে সব নিরহ লোকজন দালালদের টাকা দিচেছ,তার মধ্যে অল্প সংখক লোক ভাগ্য ক্রমে মালয়েশিয়া পৌচে । বেশির ভাগ লোকের টাকা হাতিয়ে নিয়ে সাগরের মাঝখানে নিয়ে গিয়ে ট্রলার বিকল,প্রশাসনকে ধরিয়ে দেওয়া ও দুই এক দিন সাগরে ঘুরিয়ে টেকনাফের কোন না কোন এলাকায় মালয়েশিয়া এসেছে বলে নামিয়ে দিয়ে দালালরা পালিয়ে যাই  । এভাবেই দালালদের কাছে প্রতি নিয়ত প্রতারিত হচেছ অসহায় গরীব মানুষ । সাগর পথে মালয়েশিযা আদম পাচারের অপরাধে প্রতিবছর পাচারকারীদের বিরুদ্বে টেকনাফ থানায় মামলা হয় । কিন্তু যে পরিমান মামলা হয় সে পরিমান মামলার আসামী আটক না হওয়াতে পাচার কাজ দিন দিন বাড়তে থাকে । তবুও প্রতিদিন সাগর পথের আদম পাচারকারী দালালরা টেকনাফ শাহপরীরদ্বীপের বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে মালয়েশিয়া আদম পাচার করে যাচেছ । ইতি মধ্যে শাহপরীরদ্বীপের ফেরুজ মিয়া,উত্তর পাড়ার কাসিম,আবদু রশিদ,মোঃ শফি,দিল মোহাম্মদ,শফি(মাইন্ন),উলা মিয়া,নুরুল হক,নুর কবির,নুর হোছন,শরীফ হোছন(ভুলু আমিন)শরিফ হোছন,তুলাতুলির নুরুল বশর,সৈয়দুল বশর,রেঙ্গুরবিলের অলিহোছন,ডেইল পাড়ার ছৈয়দ আলম মাঝি,রোহিঙ্গা কেম্পের আমানুল্লা মাঝি,ইসমাইল,হাফেজ আয়ুব, নুর মোহাম্মদ মাঝি, কবির, মৌলভী মোহাম্মদ মিয়া, মোঃ জাহেদ, মোঃ হোছন মাঝি, নুর আহমদ মাঝি, নাজির হোছন, আবদুল করিম, হেলাল,জাকের হোছন মাঝি, ইমাম হোছন, রঙ্গিখালীর ঠান্ডা মিয়া, জালাল, নাজু মাঝি, লুৎফর রহমান, দুদু মিয়া, নুর মোহাম্মদ, নারায়ন গঞ্জের ইসমাইল,সাবরাং কচুবনিয়ার গুরা মিয়া, নজির আহমদসহ বেশ কয়েক মানবপাচারকারী সাগর পথে মালয়েশিয়া আদম পাচার কাজ করে যাচ্ছে  বলে অভিযোগ উঠেছে।

 

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT