টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
মডেল মসজিদগুলোয় যোগ্য আলেম নিয়োগের পরামর্শ র্যাবের জালে ধরা পড়লেন টেকনাফ সাংবাদিক ফোরামের সদস্য ও ইয়াবা কারবারি বিপুল পরিমাণ টাকা ও ইয়াবা উদ্ধার রোহিঙ্গাদের তথ্য মিয়ানমারে পাচার করছে জাতিসংঘ: এইচআরডব্লিউ প্রশাসনে তিন লাখ ৮০ হাজার পদ শূন্য গোদারবিলের জামালিদা ও নাইট্যংপাড়ার ফয়েজ ইয়াবা ও নগদ টাকাসহ গ্রেপ্তার পরীমনির কান্না অথবা নিখোঁজ ইসলামি বক্তা এসএসসি-এইচএসসির পরীক্ষার সিদ্ধান্ত পরিস্থিতি দেখে : শিক্ষামন্ত্রী টেকনাফে পাহাড় ধ্বসে ৩৩ জনের মর্মান্তিক মৃত্যুর ট্রাজেডি আজ পড়ে আছে বিলাসবহুল বাড়ি,নেই দাবিদার শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ লম্বাবিলে বাস—সিএনজির মুখোমুখী সংঘর্ষে রোহিঙ্গাসহ ২ জন নিহত

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ট্রাস্কফোস দল টেকনাফ ছেড়ে যাওয়ার খবরে আবারো মাটির গর্ত থেকে বের হচ্ছে ইয়াবা ব্যবসায়ীরা

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১ অক্টোবর, ২০১৩
  • ১৪২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

teknaf pic 30-9-13 copy টেকনাফ ::::::চট্টগ্রামস্থ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের ট্রাস্কফোস দল  টেকনাফ ছেড়ে চলে যাওয়ার খবরে আবারো গডফাদারেরা সক্রিয় হয়ে তাদের  ইয়াবা ব্যবসা চালু করেছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণের অধিদপ্তরের অভিযানে কিছুদিনের জন্য পলাতক থাকলেও তাদের আবারোও গাড়ির বহর নিয়ে দৌড়ঝাপ শুরু করেছে। একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে- ঈদুল আযহা উপল্েয ইয়াবা সরবরাহের জন্য মজুদ করেছে। টেকনাফ উপজেলা উপজেলাধীন এলাকা দিয়ে মিয়ানমার থেকে প্রবেশ করছে ইয়াবা ট্যাবলেট। উপজেলার সীমান্ত এলাকা ঘুরে স্থানীয় ব্যক্তিগনের ভাষ্যমতে জানা যায়- ভগ্ন বেড়ীবাঁধের কারণে এই সীমান্ত অরতি। ভগ্ন বেড়ীবাঁধ সংস্কার না হওয়ায় ও নাফ নদীর উচ্চ জোয়ারের  তোড় এবং প্রবল বর্ষন ও পাহাড়ী ঢলে রা করা যাচ্ছেনা। ফলে স্থানীয় চোরাকারবারীরা এর সুবিধা গ্রহন করছে। এভাবে ইয়াবা পাচার এবং ব্যবসা করে অনেকে অল্প সময়ে বিত্তবানে বনে যায়। এসব ইয়াবা গডফাদার এবং পাচারীর বিরুদ্ধে স্থানীয় ভাবে জনশ্র“তি এবং তাদের নামে তালিকা বিজিবির কাছে লিপিবদ্ধ রয়েছে।  বিজিবির সূত্র মতে সিংহভাগ ইয়াবা ও মাদক এ সীমান্ত পদে জব্দ করে থাকেন। বিজিবির ইয়াবা মামলায় অধিকাংশ আসামীকে পলাতক দেখানো হয়। এসব পলাতক আসামীরা শুধু পুলিশের লাল ফিতার মধ্যে থাকলে ও রহস্যজনক কারণে এরা গ্রেফতার হচ্ছেনা। পুলিশের বক্তব্য এদের খুজে পাওয়া যাচ্ছেনা। অথচ তারা প্রকাশ্যে ঘুরাফেরা করছে। ইয়াবা ও মাদক ব্যবসার বদৌলতে টেকনাফ এখন রাজধানীর গুলশান ও বনানীর ন্যায় পরিনত হয়েছে। প্রশ্ন উঠেছে গত ৪ বছরে এ স্বল্প সময়ে জীবন যাত্রার মান কিভাবে পরিনত হলো ? অনেকে অব্যাধুনিক ভবন ও গাড়ীর মালিক বনে গিয়েছে এখন অতীতে যারা দিনে  দিনে খেত, বর্তমানে তারা হয়ে গেছেন বাজার হালতে জীবন। দ্রুত পাল্টে গেছে জীবন যাত্রার মান। স্থানীয় কয়েকটি বেসরকারী ব্যাংকের মাধ্যমে চাকার লেনদেন চলে। তাদের কোন ধরনের বৈধ ব্যবসা বানিজ্য নেইত, তার পর তারা এতা টাকার মালিক কিভাবে বনে গেলেন এসব প্রশ্ন আজ সচেতন মহলের। এদিকে  মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের চিরুনী ট্রাস্কফোস অভিযানে গত ২১ -২৫ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পরিচালিত গণসচেতনতামূলক কর্মকান্ডের অপারেশনাল কার্যক্রম ১১টি এলাকায় ৩৩টি অভিযান করা হয়েছে। তম্মধ্যে লেঙ্গুরবিল,পুরাতন পল্লানপাড়া, দণি জালিয়াপাড়া, উত্তর জালিয়াপাড়া, কুলালপাড়া, মৌলভীপাড়া, নয়াপাড়া (জিনাপাড়া), শিলবুনিয়াপাড়া, দণি মহেশখালীপাড়া, অলিয়াবাদ এবং লেদা। ৫টি মামলায় ১টি জিডি , ২টি নিয়মিত  ১২টি মোবাইল কোর্টে মামলা ।  যা রাসায়নিক পরীক্ষার প্রতিবেদন সাপেক্ষে নিয়মিত মামলায় পরিণত করা হবে।, ১৪ জন আসামী,২জন নিয়মিত মামলার আসামী, ১২ জন মোবাইল কোর্টের আসামী। উদ্ধারকৃত ৫ কেজি এ্যামফিটামিন পাউডার, ইয়াবা- ১৫২৭ পিস, বিয়ার ০৮ ক্যান, সাজাপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার- ১ জন। স্কুল ও কলেজে পরিচালিত সচেতনতামূলক অংশ হিসাবে  ৯টি হাইস্কুল ও ১টি কলেজ টেকনাফ ডিগ্রী কলেজ, টেকনাফ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়, সাবরাং উচ্চ বিদ্যালয়, নয়াবাজার উচ্চ বিদ্যালয়, নয়াপাড়া নবী হোসাইন উচ্চ বিদ্যালয়, হৃীলা উচ্চ বিদ্যালয়, হৃীলা বালিকা উচ্চ   বিদ্যালয়, মরিশবুনিয়া এসইএসডিপি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়, টেকনাফ বর্ডারগার্ড স্কুল। এছাড়া টেকনাফ বাজার এবং লেদা বাজার লিপলেট ও পোস্টার বিতরণ করেছে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের প্রদিবেদনে বলা হয়েছে- যাদের বাড়িতে চালিয়েছে এসব লোকই অভিযুক্ত মাদক ব্যবসায়ী। অভিযুক্তরা তল্লাশী করাকালে ঘটনাস্থলে না থাকায় তাদেরকে পলাতক দেখিয়ে সেভাবে প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। এতে টেকনাফ পৌরসভার দণি জালিয়াপাড়ার মোঃ আলমের পুত্র মোঃ শাকেরকে ৪০ পিস ইয়াবা বহনের দায়ে ১ বছরের সশ্রম কারাদন্ড, একই এলাকার আব্দুর রহমানের পুত্র  মোঃ শাহজাহানের কাছ থেকে ৪০ পিস ইয়াবা উদ্ধার এবং তাকে ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ড, কামাল উদ্দিন পুত্র মোঃ আবু তাহের ৪৫ পিস ইয়াবা উদ্ধার তাকে ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ড, আব্দুল সালামের পুত্র  মোঃ আলী হোসেনকে ৪৪ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ড, টেকনাফ সদর ইউনিয়নের লেঙ্গুরবিল মৃত নবী হোসেন পুত্র মোক্তার আহমেদ ১১ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ৫হাজার টাকা জরিমানা, দণি জালিয়াপাড়ার কালা মিয়ার পুত্র  মোঃ খুরশিদ আলমের কাছ থেকে ৪২ পিস ইয়াবা উদ্ধার ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ড, উত্তর জালিয়া পাড়ার মৃত সৈয়দ নুর  নুরুল বশর প্রকাশ মিজ্জির বাড়ী থেকে ৫ কেজি সন্দেহযুক্ত এ্যামফিটামিন পাউডার (ইয়াবার মূল উপাদান) উদ্ধার, তাঁর বিরুদ্ধে টেকনাফ থানায় জিডি ২৩ সেপ্টেম্বর ১টি  জিডি -৯৯০ নং জিডি এবং উদ্ধারকৃত এ্যামফিটামিন পাউডার এর নমুনা রাসায়নিক পরীাগারে প্রেরণ করেছে এবং রাসায়নিক পরীার রিপোর্ট সাপেে জিডিটি নিয়মিত মামলায় পরিণত করা হবে। তাদের সহযোগী সৈয়দ হোসেন পুত্র মোঃ শামছু মিয়া,তার আরেক সহযোগী মোঃ আলমের পুত্র মোঃ শাকের, কবির আহমদ পুত্র মোঃ জাবেদ আলী, নুরুল বশর প্রকাশ মিজির দোতলা ভাড়াকৃত বাসা থেকে ৪৫ পিস ও ৫০, ৪০ পিস ইয়াবা উদ্ধার করে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ড, মৃত শামছুল আলম পুত্র সৈয়দ ছালামকে ৪১ পিস ইয়াবাসহ ৬ মাসের সশ্রম কারাদন্ড, আব্দুল মোতালেবের পুত্র মোঃ আলী জোহারকে  ৩৭০ পিস ইয়াবাসহ গ্রেফতার করে মামলা নং-৩০ দায়ের করেছে। পুরান পল্লানপাড়ার মৃত লালু মিয়ার পুত্র মোঃ বদি আলম,মোঃ কাদেরের পুত্র মোঃ রহুল আমিন,মৃত হাবিবুর রহমানের পুত্র মোঃ শাহ আলম ও তার স্ত্রী অভিযুক্ত ইয়াবা ব্যবসায়ী কোন ইয়াবা ট্যাবলেট পাওয়া যায়নি।  মৌলভীপাড়ার ফজল আজিজের পুত্র  মোঃ আলী হোসেন , আবদুর রহমান ও মোঃ মঞ্জুর আলম বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ব্যবসায়ীর আলামত হিসাবে রাবার,পলিথিনের প্যাকেট পাওয়া গেছে। তাঁর সুসজ্জিত অট্টালিকা রয়েছে এবং পেশায় গরু ও লবণ ব্যবসায়ী, পশ্চিম অলিয়াবাদের মৃত এমদাদ হোসেন মোঃ মনির আহমেদ, সাবরাং ইউনিয়নের নয়াপাড়ার আব্দুল মোতালিব স্ত্রী নুরুন নাহার বেগমকে ৪০ পিস ইয়াবাসহ ৬মাস সশ্রম কারাদন্ড, মোঃ হাশেমের পুত্র মোঃ নুরুল আলমের বাড়ি থেকে কোন ইয়াবা পাওয়া যায়নি তবে সে চট্টগ্রামে একটি মাদকের মামলায় (দায়রা মামলা- ১৪৬৯) ৫ বছরের সাজাপ্রাপ্ত আসামী, টেকনাফ শিলবুনিয়া পাড়ার মৃত লাল মোহাম্মদের পুত্র মোঃ ফারুকের  বাড়ী থেকে ৫৩০ পিস ইয়াবা  ইয়াবার পাউডার উদ্ধার  করে তার বিরুদ্ধে টেকনাফ থানায় মামলা নং ৩৫, দায়ের করে,মৃত কালা মিয়া মোঃ হাছান, নুর আহমেদ জ্যো¯œা বেগম বাড়ি তল্লাশী চালিয়ে কোন ইয়াবা পাওয়া যায়নি। দণি মহেশখালীপাড়ার আব্দুর শুক্কুর পুত্র মোঃ মুহিত কামালের কাছ থেকে ৮ ক্যান বিয়ারসহ গ্রেফতার করে ১মাস সশ্রম কারাদন্ড, গোলাম হোসেন স্ত্রী দিলদার বেগম ও মোঃ আইযুবের পুত্র মোঃ তৈয়ুব,মৃত কালাম পুত্র মোঃ নুর হোসেন,আবু সিদ্দিকের পুত্র মোঃ জাফর আলম, লেদার মৃত কাশেমের পুত্র মোঃ নুরুল হুদা বাড়িতে তল্লাশী করে তাঁর বাড়ীতে কোন মাদকদ্রব্য পাওয়া যায়নি। ইয়াবা ব্যবসা করে সে অতি অল্প সময়ে প্রচুর অর্থের মালিক হয়েছে। বর্তমানে সে সুসজ্জিত বাংলোয় বিলাস-বহুল জীবন যাপন করে।

 

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT