টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

মহেশখালীতে সরকারি নির্দেশ অমান্যকরে ট্রেনিং প্রাপ্তরা নামের আগে ডাক্তার লিখে রোগীদের সাথে প্রতারণা করছে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৩
  • ১৩৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এম. রমজান আলী, মহেশখালী (কক্সবাজার)- কক্সবাজারের মহেশখালীতে সরকারি নির্দেশ অমান্য করে পল্লী চিকিৎসকের নামের আগে ডাক্তার লিখে সাধারণ রোগীদের সাথে প্রতারণা করছে। জানা যায়, ২০১০ সালে জাতীয় সংসদে বিল পাশ করে বিএমডিসি’র অন্তর্ভূক্ত এমবিবিএস ও বিডিএস ডিগ্রীধারী ছাড়া কেহ ডাক্তার লিখা যাবে না মর্মে হাইকোর্টে পিটিশন দায়ের করে। তা অনুযায়ী আইনও কার্যকর হয়। কিন্তু প্রথীত আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে মহেশখালীর প্রত্যেক আনাচে কানাচে কোন ধরনের যোগ্যতা ছাড়ায় সামান্য প্রশিক্ষন নিয়ে ডিজিটাল সাইনবোর্ড, ডিজিটাল ব্যানার, দেয়াল লিখন ও ভিজিটিং কার্ড বানিয়ে ডাক্তার লিখে সাধারণ রোগীদের সাথে প্রতারণা করছে। তাতে অসংখ্য রোগীরা প্রতারিত হচ্ছে এবং অকালে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ছে। সরকারি বিধিতে উল্লেখ্য যে, এমবিবিএস, বিডিএস ডিগ্রীধারী ছাড়া কেহ যদি নামের আগে ডাক্তার লিখে তাদের শাস্তি সরূপ ৫০ হাজার থেকে ৩ লক্ষ টাকা জরিমানা ও ২ বৎসর কারাদন্ড প্রদান করা হবে। সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে গোরকঘাটা কুদ্দুস মার্কেটের নিচে ডাক্তার শহিদুল্লাহ, পদবীতে উল্লেখ আছে ডিএইচএমএস, গোরকঘাটার ইসলামী ব্যাংক সড়কে ডিজিটাল ব্যানার করে ডাক্তার নিখিল, পদবীতে উল্লেখ আছে ডিএইচএমএস, ডাক্তার ভ্রমর, ডাক্তার হরিপদ, পদবীতে উল্লেখ আছে ডিএইচএমএস, বড় মহেশখালী নতুন বাজারে ডাক্তার পরিমল, পদবীতে উল্লেখ আছে ডিএইচএমএস, শাপলাপুরের ডাক্তার মামুন, কালারমারছড়ার উত্তর নলবিলা বড়–য়াপাড়া বাজারের ডাক্তার আলম সিকদার, পদবীতে উল্লেখ আছে এলএমএফ, ধলঘাটায় ডাক্তার সুবল সহ অসংখ্য পল্লী চিকিৎসকেরা সরকারি বিধিকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে ডাক্তার লিখে নানা অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। অতিশিঘ্রিই সরকারি নির্দেশ অমান্যকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও আইনানুগ ব্যবস্থা না নিলে দ্বীপ এলাকার অসংখ্য রোগী তাদের পাতানো ফাঁদে পড়ে অকালে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়বে। এব্যাপারে মহেশখালী হাসপাতালের টিএইচও ও উপজেলা ইনচার্জ ডাক্তার আব্দুল মাবুদ জানান সরকারি বিধিতে উল্লেখ্য যে, বিএমডিসির অন্তর্ভূক্ত এমবিবিএস ও বিডিএস ডিগ্রীধারী ছাড়া কেহ নামের আগে ডাক্তার লিখলে ৫০ হাজার থেকে ৩ লক্ষ টাকা জরিমানা ও ২ বৎসর কারাদন্ড তারই নিরিখে পল্লী চিকিৎসককে ডাক্তার না লিখার জন্য নোটিশ প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু তারা কোন ধরনের কর্ণপাত না করে তাদের গতিতে তারা পুরোদমে তাদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। বিষয়টি সরকারীভাবে বিহিত ব্যবস্থা নেওয়া একান্ত প্রয়োজন। হোমিও প্যাথিক ডাক্তার সমিতির উপজেলা সভাপতি শহিদুল্লাহ জানান, আমাদের কাছে লিখিত প্রজ্ঞাপন আছে ডিএইচএমএস পদবী ধারী চিকিৎসকদের ক্ষেত্রে ডাক্তার লিখার বিধান আছে। অসংখ্য ভূক্তভূগীরা জানান, কক্সবাজারের বিচ্ছিন্ন দ্বীপ মহেশখালীতে যত্রতত্র ভাবে ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে অনভিজ্ঞ লোক ডাক্তার লিখেই, সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে অসংখ্য রোগীদের মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া সময়ের দাবী এবং তাদের ডাক্তারী সার্টিফিকেট চেক করার একান্ত প্রয়োজন। কেননা সরলমনা লোকেরা তাদের ফাঁদে পড়ে মৃত্যুর শয্যায় সজ্জিত হচ্ছে এবং আগামীতে দ্বিগুণ রোগীর মৃত্যুর সংখ্যা বাড়বে।
০১৮৪০২২৬০৭১, ০১৭৪৯৩৪৬৮০১

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT