টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা সবচেয়ে বড় ভুল : ডা. জাফরুল্লাহ মাদক কারবারি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত সাংবাদিক আব্দুর রহমানের উদ্দেশ্যে কিছু কথা! ভারী বৃষ্টির সতর্কতা, ভূমিধসের শঙ্কা মোট জনসংখ্যার চেয়েও ১ কোটি বেশি জন্ম নিবন্ধন! বাড়তি নিবন্ধনকারীরা কারা?  বাহারছড়া শামলাপুর নয়াপাড়া গ্রামের “হাইসাওয়া” প্রকল্পের মাধ্যমে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ ও বার্তা প্রদান প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর উদ্বোধন উপলক্ষে টেকনাফে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফ্রিং টেকনাফের ফাহাদ অস্ট্রেলিয়ায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছে নিখোঁজের ৮ দিন পর বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা মিয়ানমারে পিডিএফ-সেনাবাহিনী ব্যাপক সংঘর্ষ ২শ’ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস বিল গেটসের মেয়ের জামাই কে এই মুসলিম তরুণ নাসের

মহেশখালীতে জলদস্যুদের ভয়ে জেলেরা আতংকে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ২৫ আগস্ট, ২০১৩
  • ১০৩ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এম রমজান আলী মহেশখালী ###২৫ আগষ্ট ককসবাজারের মহেশখালীতে জলদস্যুদের উৎপাত প্রতিনিয়ত বৃদ্ধির ফলে জেলে পরিবার সব সময় আতংকে দিনাতিপাত। প্রাপ্ত তথ্যমতে, মহেশখালীর বিভিন্ন ইউনিয়নের এক শ্রেনীর সংঘবদ্ধ স্ব-শস্ত্র জলদস্যুরা নিয়মিত ভাবে সাগরে ডাকাতি, মাঝি মাল্লা অপহরন এবং টোকেন দিয়ে বোট প্রতি ৫০ হাজার করে চাদাঁ আদায়ের কাজে লিপ্ত রয়েছে অনাদায়ে সাগরে জেলেদের ফিশিং নিষিদ্ধের হুমকি। মহেশখালীর বোট মালিকেরা জানান, সাগরের মাছ আহরণ করার জন্য ট্রলার পাঠিয়ে দ্বীপে ফিরে না আসা পর্যন্ত জলদস্যুদের কবলে পড়ার আশংকায় থাকি। জেলেরা জানায়, বিশেষ করে  সোনাদিয়া, ঘটিভাংগা, ধলঘাটা মাতারবাড়ী, কালারমার ছড়া ও চকরিয়া এলাকার কিছু জলদস্যুদের হাতে জেলে পরিবার গুলো সব সময় জিম্মি। এ ব্যাপারে একাধিক ট্রলার মালিকরা জানান, নিয়মিত মাসোহারা দিতে অপারগ হলে পরবর্তীতে ট্রলার সাগরে মাছ ধরতে যাওয়া মাত্রই উৎপেতে থাকা জলদস্যুরা ইঞ্জিন, জাল, মাছ, তেল ও প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদি লুট করে খালি ট্রলারটি ছিদ্র করে সাগরে ডুবিয়ে দেয় যার ফলে মাঝি মাল্লারা সাতাঁর কেটে কুলে ফিরে আসলেও অনেকে সাগরে প্রান হারায়।  অপর সুত্রে জানা যায়, পুরো উপজেলায় কিছু চিহ্নিত জলদস্যু সম্্রাটের সার্বিক সহযোগীতায় এসব ঘটনা ঘটে থাকে।  জলদস্যুরা মাদক পাচার, চোরাচালান, ডাকাতি সহ নানান অপকর্ম পরিচালনার নিরাপদ জায়গা হিসাবে সোনাদিয়াকে বেছে নিয়েছে। সদ্য যোগদানকৃত মহেশখালী থানার ওসি ও পুলিশের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নেতৃত্বে বারংবার ক্রাইম এলাকা ও সোনাদিয়া চ্যানেলে অভিযান চালিয়ে যাচ্ছে তাদের দাবী যতদিনই লাগুগ এবং যত বড়ই জলদস্যু ও সন্ত্রাসীর গড়ফাদার হোক শিঘ্রিই গ্রেপ্তার করা হবে তাতে কোন ধরনের সন্দেহ নাই। এ ব্যাপারে মহেশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ আলমগীর হোছেন জানান,যে কোন কিছুর বিনিময়ে হউক মহেশখালী কে সন্ত্রাসী, জলদস্যু ও অপরাধ মুক্ত করার আপ্রান চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি জনগনের সার্বিক সহযোগীতা পেলে ইনশাল্লাহ সব অপরাধ শিঘ্রিই বন্ধ হয়ে যাবে।  ০১৮৪০২২৬০৭১/০১৭৪৯৩৪৬৮০১

 

 

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT