হটলাইন

01787-652629

E-mail: teknafnews@gmail.com

সর্বশেষ সংবাদ

ক্রীড়াপ্রচ্ছদ

ব্রাজিলের শত্রু সার্বিয়াও কিন্তু কম বিপজ্জনক নয়!

টেকনাফ নিউজ ডেস্ক []

এবারের বিশ্বকাপে সার্বিয়ার প্রথম ম্যাচটি ছিল কোস্টা রিকার বিপক্ষে। ১৭ জুনের সেই খেলায় তারা জিতেছে ১-০ গোলে। জয় দিয়ে বিশ্বকাপ শুরু করলেও পরের ম্যাচে জোর লড়েও সুইজারল্যান্ডের বিপক্ষে তারা পেরে ওঠেনি। হেরেছিল ২-১ গোলে। এবার শেষ ষোলতে ওঠার লড়াইয়ে নেইমারদের ৫বারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলের বিপক্ষে পরীক্ষা তাদের। যেন তেন পরীক্ষা তো নয়। এত বাঁচা-মরার লড়াই সেই সাথে বিশ্বকাপের ইতিহাসেরই সবচেয়ে সফল দলের সাথে যুদ্ধ। বুধবার বাংলাদেশ সময় রাত ১২টায় মস্কোতে ‘ই’ গ্রপে দুই দল নিজেদের শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে। কোনো দলেরই নক আউট পর্ব নিশ্চিত হয়নি এখনো।

ফিফা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিংয়ে সার্বিয়া ৩৫তম জায়গায় আছে। বেশ তরুণ এক দল। ২০০৬ এ সার্বিয়া অ্যান্ড মন্টেনেগ্রোর পর এখন স্বাধীন সার্বিয়া হিসেবে খেলছে তারা। কিন্তু মনে রাখতে হবে সার্বিয়া অ্যান্ড মন্টেনেগ্রো কিংবা তারো আগে যুগোস্লাভিয়ার হিসেবে এই দল বরাবর বিশ্বকাপের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ অংশ হয়ে আছে। সব মিলে এরা ১১বার বিশ্বকাপে খেলেছে। দুইবার চতুর্থ হয়েছে।

অবশ্য ২০১০ বিশ্বকাপে সার্বিয়া হিসেবে খেলে তারা হতাশা নিয়েই ফিরেছিল দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে। গ্রুপপর্বেই সলিল সমাধি হয়েছিল সব স্বপ্নের। কিন্তু ভুলে গেলে চলবে না সেবার কিন্তু তারা উদ্বোধনী ম্যাচেই জার্মানিকে হারিয়ে দিয়েছিল। শক্তিমত্তার একটা ধারাবাহিকতা তাদের মাঝে আছে। বিশ্বকাপ বাছাই পর্বও এই ইউরোপিয়ান দলটি বেশ স্বাচ্ছন্দের সাথে পেরিয়েছে। তাদের তারকা খেলোয়াড় আলেকসান্দার কোলারভ গুরুত্বপূর্ণ সময়ে দারুণ সব ভূমিকা পালনে অভ্যস্ত।

গ্রুপ ‘ই’র হিসেব বলছে সার্বিয়ার জন্য শেষ ষোলর দরজা এখনো বেশ খোলা যদিও গ্রুপপর্বের শেষ ম্যাচে প্রতিপক্ষ ব্রাজিলের মতো সর্বগ্রাসী দল। তবে অসম্ভব বলে তো কিছু নেই। সুযোগ কাজে লাগানোই তাদের জন্য বড় হয়ে দাঁড়াবে। ৪৪ বছরের কোচ ম্লাদেন ক্রাস্টাজিচ শুরুতে একটু হচকচিয়ে ছিলেন। এখন গুছিয়ে উঠেছেন।

শেষ চারটি প্রীতি ম্যাচে তারা দুটি জয় তুলে নিয়েছে। একটিতে ড্র করেছে। হেরেছে একটিতে। নাইজেরিয়া ও চীনকে সমান ২-০ গোলে বব্যধানে হারিয়েছিল তারা। যে নাইজেরিয়াকে হারিয়ে বিশ্বকাপে টিকে থাকতে লিওনেল মেসিদের আর্জেন্টিনার মঙ্গলবার ঘাম ছুটে গেছে। তবে মরক্কোর কাছে তারা ১-২ গোলে হেরেছিল। আর দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে করেছিল ১-১ গোলের ড্র।

মরক্কোর বিপক্ষে ওই হারের ম্যাচে কোচ ৪-৩-৩ ফরমেশন পরীক্ষা করে দেখতে চেয়েছিলেন। সাফল্য মেলেনি। এরপর তিনি তাদের জন্য সুবিধাজনক নিয়মিত ৪-২-৩-১ ফরম্যাটেই ফিরে যান। এবং পরের ম্যাচে ২-০ গোলের জয় আসে তাতে।

সার্বিয়ার বিশ্বকাপের বেশিরভাগ খেলোয়াড়ই বড় বড় ইউরোপিয়ান লিগগুলোতে খেলেন। তাদের মধ্যে ২৯ বছরের মহাতারকা নেমানিয়া মাতিচ তো ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের মাঝমাঠে অপরিহার্য খেলোয়াড়। সাউদাম্পটনের মিডফিল্ডার দুসান তাদিচ সার্বিয়ার হয়ে ৫১ ম্যাচে ১৩ গোল করেছেন। আক্রমণভাগে সবসময় তার ভালো অবদান থাকে। উঠতি তারকা আলেকসান্দার মিতরোভিচ এখন ফুলহামে খেলেন। ধারে ওখানে গেছেন নিউক্যাসল ইউনাইটেড থেকে। জাতীয় দলে তার জায়গা নেওয়ার মতো এখন কেউ নেই। ৩৫ ম্যাচে ২৩ বছরের খেলোয়াড় ১৩ গোল করে নিজেকে অন্যতম নির্ভরযোগ্য স্কোরার করে তুলেছেন।

ব্রানিসলাভ ইভানোভিচ ও আলেকসান্দার কোলারভ যথাক্রমে দলের সাবেক ও বর্তশান অধিনায়ক। ৩৪ বছরের ইভানোভিচ চেলসির হয়ে ৯ বছরে ২৬১ ম্যাচ খেলে এখন আছেন জেনিত সেন্ট পিটার্সবার্গ ক্লাবে। দেশের পক্ষে সর্বোচ্চ ১০৫ ম্যাচ খেলা এই বহুমুখী প্রতিভা ডিফেন্সে রাইট ব্যাক এবং সেন্ট্রাল সামলাতে জানেন নিপুণভাবে। ১৩টি গোলও আছে তার নামের পাশে। আর ম্যানচেস্টার সিটিতে ৭ মৌসুম কাটিয়ে কোলারভ এখন ইতালির এএস রোমার গুরুত্বপূর্ণ অংশ। ডিফেন্সের বাঁদিকটা তার হলেও ওখানে যেকোনো জায়গায় দুর্দান্তভাবে মানিয়ে নিয়ে খেলেনও দারুণ।

সব মিলে এই সার্বিয়ানদের হালকাভাবে নিলে ব্রাজিলিয়ানরা যে ভুল করবে তা তো বোঝাই যায়। বিশ্বকাপ যে দারুণ অঘটনেরও মঞ্চ। আর যেখানে শেষ ষোলতে খেলার হাতছানি সেখানে শক্ত সামর্থ্য দীর্ঘকায় সার্বিয়ানরা শেষ কামড়টা দিতে যে মরিয়া হয়ে আছে তা তো বোঝাই যায়।

বিশেষ দ্রষ্টব্য : এর আগে ব্রাজিল ও সার্বিয়া ইতিহাসে একবারই মুখোমুখি হয়েছে। ২০১৪ সালের জুনে অনুষ্ঠিত সেই প্রীতি ম্যাচে ব্রাজিলিয়ানরা ১-০ গোলে হারিয়েছিল সার্বিয়ানদের।

Leave a Response

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.