টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

বিএনপির মির্জা ফখরুল গ্রেপ্তার

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১২
  • ১৬৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

 অবরোধে সংঘাতের মামলার পর মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

রোববার রাতে মামলা দায়েরের পর সোমবার সন্ধ্যায় নয়া পল্টনে দলীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবকে গ্রেপ্তারের খবর
নিশ্চিত করেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশের মুখপাত্র মাসুদুর রহমান।

সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে সাদা পোশাকের কয়েকজন পুলিশ সদস্য বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবকে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়।

ফখরুলকে তুলে নেয়ার সময় তার সঙ্গে ঢাকা মহানগর বিএনপির সভাপতি সাদেক হোসেন খোকা এবং কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীও ছিলেন। কিন্তু পুলিশ তাদের কিছু বলেনি।

ফখরুল বেলা ১২টা থেকে দলীয় কার্যালয়ে ছিলেন। বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী রবার্ট ব্লেকের বৈঠকে যোগ দিতে সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে দলীয় কার্যালয় থেকে নামেন তিনি।

সুমন মাহমুদ বলেন, “মির্জা ফখরুল নামার পর তাকে ঘিরে ফেলে সাদা পোশাকের কয়েকজন পুলিশ সদস্য। এক পর্যায়ে তিনি বলেন, টাচ (স্পর্শ) করবেন না। কথা কাটাকাটির মধ্যে তাকে তুলে নেয়া হয় পাশে দাঁড়িয়ে থাকা একটি মাইক্রোবাসে। এরপর দ্রুত তা এলাকা ত্যাগ করে।”

এর আগে গত ১৬ মে আরেকটি মামলায় ফখরুল কারাগারে যাওয়ায় পরদিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনের সঙ্গে খালেদার বৈঠকে যোগ দিতে পারেননি।

ফখরুলকে গ্রেপ্তারের তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া জানিয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেছে বিএনপি।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আমানউল্লাহ আমান ও রুহুল কবির রিজভী দলের মুখপাত্রকে গ্রেপ্তারের নিন্দা জানিয়ে বলেন, ফখরুলকে অবিলম্বে মুক্তি দেয়া না হলে লাগাতার কর্মসূচি দেয়া হবে।

রিজভী বলেন, “আমরা স্পষ্টভাবে সরকারকে বলতে চাই, ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবকে অবিলম্বে মুক্তি না দিলে আরো কঠোর কর্মসূচি দেয়া হবে। তাকে গ্রেপ্তার করে আন্দোলনকে স্তব্ধ করা যাবে না।”

আমান বলেন, “দ্রুত ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবকে মুক্তি দিন, নইলে লাগাতার কর্মসূচি দেয়া হবে।”

মির্জা ফখরুলকে গ্রেপ্তার করার কারণ হরতালের কর্মসূচি বাধাগ্রস্ত করা বলে মন্তব্য করেন তারা।

রোববার সহিংস অবরোধের পর মঙ্গলবারের হরতালের আগের দিন গ্রেপ্তার হলেন ফখরুল।

ফখরুল গ্রেপ্তারের প্রতিবাদে কোনো কর্মসূচি দেয়া হবে কি না- জানতে চাইলে আমান বলেন, মঙ্গলবার সকাল-সন্ধ্যা হরতালের কর্মসূচি তো রয়েছে। দলের চেয়ারপারসনের সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী কর্মসূচি জানানো হবে।

১৮ দলের অবরোধের সময় ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের একটি গাড়ি ভাংচুরের অভিযোগে রোববার রাতে ফখরুলের বিরুদ্ধে পল্টন থানায় একটি মামলা হয় ।

মো. আয়নাল নামে সিটি কর্পোরেশনের এক গাড়িচালক মামলাটি দায়ের করেন। এতে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ দুই শতাধিক নেতা-কর্মীকে আসামি করা হয়েছে।

মামলার প্রতিক্রিয়ায় দুপুরে ফখরুল সাংবাদিকদের বলেছিলেন, মামলা-হামলা করে নির্দলীয় সরকারের আন্দোলন বন্ধ করা যাবে না। বিএনপিকে দমানো যাবে না।

“আমাকেসহ নেতা-র্কর্মীদের বিরুদ্ধে একটি মামলা দেয়া হয়েছে। শুনেছি, আমাদের বিরুদ্ধে সিটি করপোরেশনের বর্জ্য অপসারণের গাড়িতে আগুন লাগানোর অভিযোগ আনা হয়েছে। গ্রাম্য মোড়লের মতো এই মিথ্যা মামলাটি করা হয়েছে। এটা আওয়ামী লীগের চিরাচরিত স্বভাব।”

মামলা আইনি ও রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করা হবে বলে গ্রেপ্তারের আগে দুপুরে বলেছিলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব।

সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, “সরকার উদ্দেশ্যমূলকভাবে আমাদের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিবের বিরুদ্ধে মামলা করেছে। দেশের মানুষ জানেন, একজন জাতীয় নেতা বর্জ্য অপসারণের একটি গাড়িতে আগুন লাগাতে পারেন কি না।”

চলতি বছরের প্রথম ভাগে হরতালে গাড়ি পোড়ানোর আরেকটি মামলায় কারাগারে যেতে হয়েছিল ফখরুলকে। ওই মামলায় কিছু দিন কারাগারে থাকার পর জামিনে ছাড়া পান তিনি।

নির্দলীয় সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহালের দাবিতে রোববার অবরোধের সময় রাজধানীসহ সারাদেশে ব্যাপক সংখ্যক গাড়ি ভাংচুর এবং অগ্নিসংযোগ হয়।

অবরোধ চলাকালে ঢাকা মহানগরে ১৬২ জনসহ সারা দেশে ২৪০ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে পুলিশের তথ্য। তাদের বিরুদ্ধে গাড়ি ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ, সরকারি কাজে বাধা দেয়াসহ বিভিন্ন অভিযোগ আনা হয়েছে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT