টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

‘বাবা’র কুলে ফেরার প্রহর গুনছে প্রবাল দ্বীপের নিষ্পাপ শিশু ‘মঈন উদ্দিন’

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০১৩
  • ১৪৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

Saintmartin Taslima akterহাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ  :::ছয় মাসের ফুটফুটে শিশু নিষ্পাপ চেহারায় তাকিয়ে কেবল ‘বাবা’কে খুঁজে ফিরে বারবার। প্রাকৃতিক সব কিছুই আছে তার। কিন্তু ‘বাবা’ নেই। দেশের সর্ব দক্ষিণের সীমানা প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিনে জন্ম নেয়া শিশু ‘মঈন উদ্দিন’ অদ্যবধি তার জন্মদাতা পিতাকে দেখেনি। জন্মের পর থেকে সে পিতার কুলে যাবার প্রহর গুনছে।
তার বাবাহীন সন্তানের জীবন পুরোটাই ব্যর্থ বুঝে চরম হতাশায় দিন কাটছে তার মা’র। সেন্টমার্টিনের ৪নং ওয়ার্ডের মাঝর পাড়ার এই ঘটনায় এলাকায় তোলপাড় চলছে।
সুত্র জানায়, ওই এলাকার অসহায় দরিদ্র পরিবারের মৃত নুরুল ইসলামের মেয়ে তছলিমাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে স্থানীয় আমিন উল্লাহ’র ছেলে নেজাম উদ্দিন প্রকাশ সুমন অবৈধ সম্পর্ক গড়ে তুলে। এরই মধ্য দিয়ে পৃথিবীতে আসে ‘মঈন উদ্দিন’। কিন্তু এখন নেজাম উদ্দিন স্ত্রী হিসেবে তছলিমাকে মেনে নিতে অস্বীকার করছে।
এনিয়ে বারবার সমাজপতিদের হাতে ধর্ণা দিয়েও কোন সুরাহা হয়নি বিধায় মানবাধিকার কর্মীদের কাছে অভিযোগ দেন এতিম ও অসহায় পরিবারের মেয়ে তছলিমা আকতার।
বাংলাদেশ মানবাধিকার কাউন্সিল (বামাকা) কক্সবাজার জেলা সভাপতি বরাবরে দেয়া এক অভিযোগে জানা যায়, নেজাম উদ্দিন ভালোবাসার ভান করে তছলিমার অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে গড়ে তুলে প্রেমের সম্পর্ক। বিগত ২০১১ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর শপথের মাধ্যমে তাদের সম্পর্ক আরো গভীরে চলে যায়। একপর্যায়ে অন্ত:স্বত্তা হয়ে পড়ে তছলিমা। বিষয়টি নেজাম উদ্দিনকে জানালে তিনি তাতে কর্ণপাত না করে এড়িয়ে যান।
স্ত্রী হিসেবে ঘরে বরণ করে নেয়ার চাপ দিলে একপর্যায়ে নেজাম উদ্দিন যোগাযোগও বিচ্ছিন্ন করে দেন। অনেক দেন দরবারের পর ২০১২ সালের ১২ জুলাই কাবিননামা মূলে বিয়ে করবে বলে তছলিমাকে তাদের দোকানে যেতে বলে। পরে তছলিমা আকতার দোকানে গেলে নেজাম উদ্দিন প্রকাশ সুমন, তার পিতা ও অপর এক ভাই মিলে তাকে বেদম মারধর করে। ওই সময় তার গর্ভের সন্তান নষ্ট করার অপচেষ্টা চালায়। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করে।
তছলিমা আকতার অভিযোগে আরো বলেন, বিষয়টি নিয়ে তছলিমা আকতার স্থানীয় চেয়ারম্যান নুরুল আমিনকে অভিযোগ দিলেও কোন সুরাহা না করে বরং তাকে কার্যালয়ে ডেকে চরিত্র নিয়ে নানা রকম অপবাদ দেয়।
অভিযোগে আরো বলা হয়, ইতোমধ্যে তছলিমা আকতারে গর্ভের সন্তান দুনিয়ার মুখ দেখে। মঈন উদ্দিন নামের সন্তানটির বযস এখন ৬ মাস। সন্তান জন্মের সমাজের লোকজন তাকে নানাভাবে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য ও তিরস্কার করছে।
বৃদ্ধা মা’র আয়-জোরগারের উপর নির্ভর করে জীবন চলছে অসহায় তছলিমার।
অভিযোগ পত্রে তছলিমা আরো যোগ করেন, মামলা-মোকাদ্দমা করে বিচার চাইবে, অবুঝ শিশু পিতৃত্ব ফিরিয়ে আনবে-এই টাকাও তার নেই।
বাংলাদেশ মানবাধিকার কাউন্সিল (বামাকা) এর কক্সবাজার জেলা সভাপতি ও কক্সবাজার জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আ জ ম মাঈন উদ্দিন জানিয়েছেন, আমরা অভিযোগ পাওয়ার পর সরেজিমনে সেন্টমার্টিন গিয়ে তদন্ত করি। অভিযুক্ত নেজাম উদ্দিন প্রকাশ সুমন ও তার পিতার সাথে কথা বলি। নেজাম উদ্দিন স্বীকার করে যে তার সাথে তছলিমার সম্পর্ক ছিল এবং সন্তানটিও তার।
কিন্তু সে জানায়, তছলিমা ও তাদের মাঝে সামাজিক অবস্থান অর্থাৎ ধনী-দরিদ্র বিবেচ্য হওয়ায় তার পরিবার তছলিমাকে স্ত্রী হিসেবে মেনে নিচ্ছে না।
এডভোকেট আ জ ম মাঈন উদ্দিন আরো জানান, তিনি বিষয়টির সত্যতা যাচাইয়ের পর পুলিশ প্রশাসন, জেলা প্রশাসন সহ সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরে প্রতিবেদন প্রেরণ করেছেন। এদিকে স্থানীয় চেয়ারম্যানের ছলচাতুরীর কারণে বিষয়টি সুরাহা হচ্ছে না বলে তিনি মন্তব্য করেন।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT