টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

ফলোআপ: শূন্য থেকে কোটিপতি কতিপয় পুলিশের আসকারা পেয়ে বেপরোয়া হাবিব!

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৭ আগস্ট, ২০১৩
  • ২৫২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এ এইচ সেলিম উল্লাহ, কক্সবাজার #### HABIB YABA গতকাল স্থানীয় ও অনলাইন এ অবশেষে গোমর ফাঁস ইয়াবা ব্যবসা করে কোটিপতি টেকনাফের বাহারছড়ার হাবিব। শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদ নিয়ে এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। বেরিয়ে এসেছে তার অজনা আরো নানা কাহিনী। স্থানীয়দের মতে এক সময়ের কেটে খাওয়া পরিবারের সন্তান রাতারাতি কি ভাবে এতো টাকার হলো তা নিয়ে এলাকার মানুষের মাঝে নানা জল্পনা কল্পনার শেষ ছিল না। দীর্ঘদিন পর হলে তার এতো টাকার উৎস কি তা তলের বেড়াল বেরিয়ে এসেছে জনতার মাঝে। গত দু’ মাস পূর্বেও ইয়াবার সরঞ্জামসহ কলাতলী এলাকায় পুলিশের জালে কয়েক মিনিটের জন্য গ্রেফতার হলেও বর্তমানে সিলেটে কর্মরত এক পুলিশ কর্মকর্তার লাল টেলিফোনে তিনি ছাড়া পায়। এ ভাবে পুলিশের উধ্বর্তন মহলে তার রয়েছে ব্যাপক পরিচিতি। অনেক পুলিশ কর্মকর্তাকে মাসিক মাসোহারা দিয়ে তার পরিচয় ঘটে বলে এলাকায় জনশ্রুতি রয়েছে। বলতে গেলে দারোগা, সহকারী দারোগা তার জন্য মামুলি ব্যাপার। উর্ধ্বতন পুলিশ কর্মকর্তা ছাড়াও হাতে গুনা কয়েক জন দারোগার সাথে তার মধুর সর্ম্পক রয়েছে। তৎমধ্যে এস আই মাশরুল ও ডিএসবিতে কর্মরত একজন। নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক স্থানীয় লোকজন জানান, হাবিব ছোট কাল থেকে  সাইকেলের পার্টস, সিডির দোকান, কাকরা ব্যবসা, ঝিনুক ব্যবসা করে আসলেও বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির সাবেক আইসি মাশরুল এর হাত ধরে ইয়াবার মতো জঘন্য ব্যবসায় জড়িয়ে পড়ে। এ সুবাদে পুলিশের উর্ধ্বতন মহলের সাথে পরিচয় ঘটে ওই হাবিব এর সাথে। ফলে হাবিব দিন দিন বেপরোয়া হয়ে উঠে। ইয়াবার পাশাপাশি  জমি বেচা-বিক্রি  করে কিছু টাকা কামাই করে। স্থানীয়দের মতে পুলিশের কাছ থেকে সল্পদামে ইয়াবা ক্রয় করে বেশি মূল্যে বিক্রি করে তিনি এখন কোটিপতি বললে চলে। তার যাবতীয় উত্থাণ কাহিনী অবশেষে ফাঁস করে দিলো হিমছড়ি পুলিশ। আটককৃত ব্যাক্তির স্বীকরোক্তি মতে হাবিবকে আসামী করে বিপাকে পড়েছে ইনানী পুলিশের দায়িত্বরত কর্মকর্তারা। এমকি ওই পুলিশ কর্মকর্তারা রিতিমতো বদলীর ভয়ে রয়েছে বলে জানা গেছে। বলে দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা এ বিষয়ে মুখ খুলতে রাজি হয়নি। তবে হাবিবকে আসামী করার ঘটনায় রিতিমতো এক পুলিশ কর্মকর্তা ইনানী পুলিশের একজনকে ডেকে নিয়ে নাজেহাল করেছে বলে জানা গেছে।  টেকনাফ বাহারছড়া শাপলাপুর এলাকার হাবিব উল্লাহ হাবিব। তিনি ওই এলাকার মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে। এলাকার লোকজনের নানা সমস্যার পাশ্বে দাঁড়ালেও তার এতো টাকা উত্থান কি ভাবে হলো তা সন্দেহ আলোচনা সমালোচনা ঝড় উঠে দীর্ঘদিন ধরে। সাধারন মানুষের মাঝে ধান খরাতের পাশাপাশি ওই এলাকার লোকজনের সেবার জন্য একটি হাসপাতাল খুলে বসে ও হাবিব। দীর্ঘদিন পর হলেও উক্ত হাবিব এতো টাকার মালিক কিভাবে হলো তার গোমর ফাঁস করলো উখিয়ার ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ। গত শনিবার দুপুর দেড় ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির কাছাকাছি এলাকা থেকে ৪০৫ পিচ ইয়াবাসহ শাপলাপুর মাথা ভাঙা এলাকার মৃত বদিউজ্জামান এর ছেলে খাইরুল বশরকে আটক করেন উখিয়ার ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপ-পরিদর্শক  (এ এস আই) বোরহান উদ্দিন জানান।এ ঘটনা নিয়ে ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির সহকারী উপ-পরিদর্শক  (এ এস আই) বোরহান উদ্দিন বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় টেকনাফ বাহারছড়া শাপলাপুর এলাকার মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে হাবিব উল্লাহ হাবিবকে আসামী করা হয়। পুলিশ মতে হাবিব দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা ব্যবসা করে আসছে। দীর্ঘদিন পর হলেও পুলিশ হাবিবের উত্তাণ কাহিনীর গোমর ফাঁস করেন  এদিকে উক্ত হাবিবের সাথে জেলার কতিপয় পুলিশ কর্মকর্তার সাথে তার দহরমহরম সম্পর্ক রয়েছে। যে কারনে দীর্ঘদিন ধরে ইয়াবা ব্যবসা করে আসলেও ধরাছোয়ার বাইরে থাকেন হাবিব। এ প্রসঙে ইনানী পুলিশ ফাঁড়ির ইনর্চাজ সাঈদ হোসেন জানান, খাইরুজ্জামানকে ইয়াবাসহ আটকের পর হাবিবের ইয়াবা বলে জানান। এছাড়া আদালতে হাজির করা হলে তিনি হাবিব ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত বলে স্বীকার করেন। তার প্রেক্ষিতে তাকে পলাতক আসামী করা হয়েছে। বরাবরে মতো গতকাল রাতে হাবিবের বক্তব্য নেয়ার জন্য তার কয়েকটি মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তাকে না পাওয়ায় বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

এ এইচ সেলিম উল্লাহ  কক্সবাজার ০১৮১৭১২০৬০৬

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT