টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা সবচেয়ে বড় ভুল : ডা. জাফরুল্লাহ মাদক কারবারি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত সাংবাদিক আব্দুর রহমানের উদ্দেশ্যে কিছু কথা! ভারী বৃষ্টির সতর্কতা, ভূমিধসের শঙ্কা মোট জনসংখ্যার চেয়েও ১ কোটি বেশি জন্ম নিবন্ধন! বাড়তি নিবন্ধনকারীরা কারা?  বাহারছড়া শামলাপুর নয়াপাড়া গ্রামের “হাইসাওয়া” প্রকল্পের মাধ্যমে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ ও বার্তা প্রদান প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর উদ্বোধন উপলক্ষে টেকনাফে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফ্রিং টেকনাফের ফাহাদ অস্ট্রেলিয়ায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছে নিখোঁজের ৮ দিন পর বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা মিয়ানমারে পিডিএফ-সেনাবাহিনী ব্যাপক সংঘর্ষ ২শ’ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস বিল গেটসের মেয়ের জামাই কে এই মুসলিম তরুণ নাসের

নিজ হাতে খুন, ৬০টি ঘুমের ওষুধে অচেতন :ঐশীর স্বীকারোক্তি

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শনিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৩
  • ২০২ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

বাংলামেইল২৪:image_50971_0পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের (এসবি) ইন্সপেক্টর মাহফুজ ও তার স্ত্রী স্বপ্না খুনের ঘটনায় গ্রেপ্তার তাদের মেয়ে ঐশী রহমান ও কাজের মেয়ে সুমি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে ঐশী জানায়, নিজ হাতে বাবা-মাকে খুন করেছে সে। অন্যদিকে সুমি জানায়, লাশ সরাতে সে ঐশীকে সহযোগিতা করেছে।

শনিবার সন্ধ্যায় ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য দেন যুগ্ম-কমিশনার মনিরুল ইসলাম।

মনিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ঐশী ও কাজের মেয়ে আদালতে স্বীকাররোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। জবানবন্দিতে ঐশী জানায়, সে নিজেই ঘুমের ওষুধ খাইয়ে বাবা-মাকে অচেতন করে। পরে ছুরি দিয়ে তাদের হত্যা করে।

বাবা-মাকে অচেতন করতে সে দুই ধরনের ৬০টি ওষুধ কফির সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়ায়। রাত ২টার দিকে প্রথমে মাকে পরে বাবাকে খুন করে সে।

কাজের মেয়ে সুমি খুনের পর লাশগুলো সরাতে তাকে সহযোগিতা করে।

এদিকে যে দোকান থেকে ঐশী ঘুমের ওষুধগুলো কিনেছে তাদেরও চিহ্নিত করা হয়েছে। তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে।

মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘আদালতে ঐশীর এই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি খুনকে সম্পূর্ণ প্রমাণিত করে না। ঘটনাস্থলে পাওয়া আলামত ও তার সহযোগী ও আশ্রয়দাতাদের স্বীকারোক্তি পেলে আরও নিশ্চিত হওয়া যাবে। তবে ঘটনাস্থলে পাওয়া আলামতের ফরেনসি রিপোর্ট, ঐশীর রক্তেমাখা কাপড়ের ডিএনএ টেস্ট আসলেই মূল ঘটনা জানতে পারবে পুলিশ।

এছাড়াও ঐশীর আরও এক বন্ধুকে খুঁজছে পুলিশ। তাকে পেলে ঘটনার আরও বিষয় সম্পর্কে জানা যাবে বলে জানান তিনি।

এদিকে পাঁচ দিনের রিমান্ড শেষে শনিবার দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আনোয়ার সাদাতের আদালতে ঐশী ও সুমিকে নেয়া হয়। সেখানে বিকেলে ৪টা পর্যন্ত তারা জবানবন্দি দেয়।

এর আগে বয়স সংক্রান্ত জটিলতার কারণে গত বুধবার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) ফরেনসিক বিভাগে ঐশী ও গৃহকর্মী সুমির সঠিক বয়স নির্ণয়ের জন্য পরীক্ষা করা হয়।

উল্লেখ্য, গত ১৬ আগস্ট সন্ধ্যায় পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের (এসবি) ইন্সপেক্টর মাহফুজ ও তার স্ত্রী স্বপ্নার মরদেহ রাজধানীর মিন্টো রোডের চামেলিবাগে নিজ বাসা থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। ওই হত্যাকাণ্ডের পর তাদের মেয়ে ঐশী রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ ছিল। পরদিন সে পল্টন থানায় উপস্থিত হয়।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT