দেশের সকল বীমা কোম্পানির অফিস খোলা

প্রকাশ: ৩১ মে, ২০২০ ১:৫৫ : পূর্বাহ্ণ

আবদুর রহমান আবির: করোনা ভাইরাস সংক্রমন রোধে দীর্ঘ ৬৬ দিনের সাধারণ ছুটি শেষে রোববার থেকে খুলছে দেশের সকল লাইফ ও নন-লাইফ বীমা কোম্পানির অফিস। স্বাস্থ্য বিধি মেনে ১৫ জুন পর্যন্ত সীমিত পরিসরে দাফতরিক কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। এরইমধ্যে কর্মকর্তাদের অফিসের আসার প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে বীমা কোম্পানিগুলো।

বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের সদস্য ড. এম মোশাররফ হোসেন ইন্স্যুরেন্সনিউজবিডি’কে বলেন, সরকারি নির্দেশনা অনুসারে সকল বীমা কোম্পানির অফিস খোলা হবে। দেশের অর্থনীতির স্বার্থেই আমাদেরকে অফিস খুলতে হচ্ছে। তবে অবশ্যই স্বাস্থ্য বিধি মেনে অফিস পরিচালনা করতে হবে। এ জন্য সবাইকে ই-নথির ব্যবহার জোরদার করতে বলা হচ্ছে।

ড. এম মোশাররফ হোসেন বলেন, সরকারি প্রজ্ঞাপনে অফিস খোলা এবং স্বাস্থ্য বিধি মানার বিষয়ে সুস্পষ্টভাবে সার্বিক নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এ জন্য বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে আলাদা কোন নির্দেশনা জারি করা হয়নি। তবে যদি কোন নির্দেশনা দেয়া প্রয়োজন মনে হয় তাহলে  অফিসে গিয়ে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

তথ্য অনুসারে, দেশে করোনা রোগী প্রথম ধরা পড়ে গত ৮ মার্চ। পরিস্থিতি অবনতি হতে থাকায় ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। এরপর দফায় দফায় বাড়ানো হয় ছুটি। সর্বশেষ ৩০ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয় সাধারণ ছুটি। তবে দীর্ঘ ছুটিতে দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডে স্থবিরতা এবং এবং জনজীবন সঙ্কটে পড়ায় সীমিত পরিসরে অফিস খোলার নির্দেশনা দিয়েছে সরকার।

১৫ জুন পর্যন্ত অফিস, গণপরিবহনসহ অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড কীভাবে পরিচালিত হবে এবং কোন ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে, সেই বিষয়ে নির্দেশনা দিয়ে গত বৃহস্পতিবার (২৮ মে) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। অন্যদিকে করোনা প্রতিরোধে অধিকতর সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণে ১২টি নির্দেশনা জারি করেছে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়।

অফিস খোলার বিষয়ে ইসলামী কমার্শিয়াল ইন্স্যুরেন্সের মূখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা মীর নাজিম উদ্দিন আহমেদ বলেন, জীবনের জন্য লকডাউন যেমন দরকার তেমনি জীবিকার জন্য লকডাউন সীমিত করার কোন বিকল্প উপায় নেই। তাই সরকারি নির্দেশনা অনুসারে আমরা আগামীকাল থেকে সীমিত পরিসরে অফিস খুলতে যাচ্ছি। স্বাস্থ্য বিধি মেনে সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলবে অফিস।

মীর নাজিম উদ্দিন আরো বলেন, আপাতত পুরো মাত্রায় অফিস খোলা সম্ভব নয়। যাদেরকে না আনলেই নয় এমন জরুরি প্রয়োজনীয় কর্মকর্তাদের নিয়ে আমরা অফিস করবো। এক্ষেত্রে নিজস্ব পরিবহনে কর্মকর্তাদের আনা নেয়ার ব্যবস্থা করা হবে। প্রয়োজনে একাধিকবার ট্রিপ দেয়া হবে। এ ছাড়াও এই মুহুর্তে নারী কর্মীদের অফিসে আনা হবে না। আগামী ১৫ জুন পর্যন্ত এভাবেই চলবে আমাদের অফিস।

জেনিথ ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের মূখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম নুরুজ্জামান বলেন, বীমা গ্রাহক, কোম্পানি ও দেশের অর্থনীতির স্বার্থে আমরা আগে থেকেই স্বাস্থ্য বিধি মেনে সীমিত পরিসরে অফিস খোলার রাখার দাবি জানিয়েছি। সরকার এখন যে সিদ্ধান্ত দিয়েছে এটা সবার জন্যই ভালো। কর্মকর্তা-কর্মচারী ও বীমা গ্রাহকদের আমরা সরকারের নির্দেশনা পুরোপুরি মেনে অফিসে আসার অনুরোধ জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য, বর্তমানে দেশে সরকারি-বেসরকারি ৭৮টি লাইফ ও নন-লাইফ বীমা কোম্পানি ব্যবসা পরিচালনা করছে। নতুন আরেকটি লাইফ বীমা কোম্পানি সম্প্রতি অনুমোদন লাভ করেছে। ২০১৯ সালে দেশের লাইফ বীমা কোম্পানিগুলো ৯ হাজার ৬০৮ কোটি ২২ লাখ টাকা প্রিমিয়াম সংগ্রহ করেছে। আর নন-লাইফ বীমা কোম্পানিগুলো সংগ্রহ করেছে ৩ হাজার ৬৮২ কোটি ৭০ লাখ টাকা প্রিমিয়াম।


সর্বশেষ সংবাদ