টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
২৩ জন রোহিঙ্গা ও টেকনাফের ৬ জনসহ ১৭ মে জেলায় ১১০ জন করোনা রোগী শনাক্ত কোয়ারেন্টাইনে তরুণীকে ধর্ষণ : সেই এএসআই বরখাস্ত ফিলিস্তিনে মানবাধিকার লঙ্ঘন চোখে পড়েনি হিউম্যান রাইটস ওয়াচের’ সচিবালয়ে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রাখল প্রথম আলোর সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে সাবরাংয়ের জাফর ও রফিক ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার বাড়ছে তাপমাত্রা সঙ্গে দাবদাহ ও অস্বস্তি: থাকবে ৫ দিন টেকনাফে শাহজাহান চৌধুরীর ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়,ইউনিটে ইউনিটে খালেদা জিয়ার জন্য দোয়া কওমি মাদ্রাসায় সব ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রাখার নির্দেশ লকডাউনে ব্যাংকিং কার্যক্রম চলবে যেভাবে টেকনাফে শাহজাহান চৌধুরীর ঈদ শুভেচ্ছা বিনিময়, ইউনিটে ইউনিটে খালেদা জিয়ার জন্য দোয়া

দু’নেত্রী ও দু’জোটের প্রতি খোলা চিঠি…

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : সোমবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১২
  • ২৬৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

সাইফুল ইসলাম……..

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বিরোধী দলীয় নেত্রী!

আসাসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহ,

আশা করি ভাল আছেন, কিন্তু আমরা সাধারণ জনগণ কি ভাল আছি? আপনাদেরকে কিছু প্রশ্ন করার অধিকার কি আমাদের আছে? যে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা থাকা-না থাকা নিয়ে আমাদের শান্তি কেড়ে নিচ্ছেন, তা আপনাদের ক্ষমতায় যাওয়ার সিড়ি ছাড়া আমাদের কোন্ কোন্ মৌলিক সমস্যা সমাধানকারী, বুঝিয়ে বলবেন কি? আপনারা প্রত্যেকেই একাধিকবার ক্ষমতা ভোগ করেছেন, তাতে কি আমাদের সব সমস্যার সমাধান দিতে পেরেছন? আমাদের খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, শিক্ষা, চিকিৎসা, কর্মসংস্থান, বিবাহ, নিরাপত্তা, ন্যায়বিচার ইত্যাদি কোন্ প্রয়োজন পূরণে কার অবদান কত শতাংশ, তা কি তুলনামূলক চিত্র দিয়ে দেখিয়ে দেবেন? আপনাদেরকে ভালবাসি বলেই কি আমাদের জানমাল হরণ করেন? এ সব আমাদেরকে আর কতদিন সহ্য করতে হবে দয়া করে বলবেন কি?

 

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী!

আপনি আপনার নির্বাচনী ওয়াদা কতটুকু বাস্তবায়ণ করতে পেরেছেন? বিডিআর বিদ্রোহ, শেয়ারবাজার-ইউনিপেটু-হলমার্ক-পদ্মা সেতু ইত্যাদি কোন্ কেলেংকারীর সমাধান কিভাবে করেছেন? কার কী স্বার্থে গ্রামীণ ব্যাংক ও ডেসটেনীর লক্ষ লক্ষ সদস্যের বিনিয়োগকে ঝুকির মধ্যে ফেলেছেন? আপনার ছেলে জয়ের অবদানে ডিজিটাল অগ্রগতি দেখা গেলেও আপনার অবদান দেখার জন্য ই-গভর্মেন্ট কতটুকু চালু করতে পেরেছেন? বিরোধীরা হরতাল-অবরোধ-জনসভা করলে আপনার পক্ষ থেকে প্রতিরোধ ও ধরপাকড়ের দরকারটা কী? প্রতিরোধ না করলে সংঘাত হয় কিভাবে? সংঘাতে হতাহতের জন্য আপনিও কি দায়ী নন? আসল যারা যুদ্ধাপরাধী সেসব পাকিস্তানী আর্মিদের ক্ষমা করে দিয়ে ৪০ বছর পরের গুটি কয়েক বিরোধী দলীয় নেতার ফাসি হয়ে গেলে কি জামায়াত-শিবিরকে কলংকমুক্ত ঘোষণা করবেন? আপনার হাতে সাঈদীর মৃত্যু হলে দুনিয়া-আখেরাত উভয় জাহানে আপনি ও আপনার বংশধর কি নিরাপদ হয়ে যবে? আপনি ক্ষমতায় আসার পেছনে আপনার আন্দোলনের ফসল তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অবদান নেই কি? এখন কি আপনার আত্মবিশ্বাসের ঘাটতি আছে? তবে তত্ত্বাবধায়ক সরকার থাকলে আপনার সমস্যা কী? আগামীতে যে দিনই হরতাল-অবরোধ হবে সে দিনই জাতীয় দলের খেলা দিতে পারেন।

 

মাননীয় বিরোধী দালীয় নেত্রী!

বাংলাদেশের মানুষ এমনিতেই এক দলকে লাগাতার দু’বার ক্ষমতায় পাঠায় না। তা সত্য হলে আগামী বার আপনার পালা। তা সত্ত্বেও কেন আপনি হরতাল-অবরোধ করে জনগণের জান-মাল ও স্বাধীনতা হরণ করছেন? আমাদের উপকারের জন্য আমাদের ক্ষতি করার অধিকার কি আমরা আপনাকে দিয়েছি? আপনাকে বিরোধী দলীয় নেত্রী বানিয়েছি সংসদে গিয়ে সরকারের ভূলক্রটি ধরিয়ে দেয়ার জন্য। তা না করে আমাদেরকে কষ্ট দিচ্ছেন কেন? আপনাদেরকে কথা বলতে না দিলে তা তো আমরা দেখছি এবং তার জবাব ভোটের মাধ্যমে আমরাই দেব। তারপরও কেন আপনি এত অধর্য্য হচ্ছেন? তত্তাবধায় ইস্যু ছাড়া আর কোন গণসম্পৃক্ত ইস্যু কি আপনার হাতে নেই? আপনাদের ডাকা হরতাল-অবরোধে কেউ হতাহত হলে তার ক্ষতিপূরণ দেয়া কি আপনাদের নৈতিক দায়িত্ব নয়? জনগণের জান মাল ইজ্জত ও স্বাধীনতা হরণের ক্ষতিপূরণ দিতে রাজী না থাকলে এ কথা কি প্রমাণ হয় না যে, আপনারা জনগণের কল্যাণের নামে মূলত তাদেরকে বলির পাঠা বানিয়ে নিজেদের উন্নতির জন্যেই রাজনীতি করেন? আপনি আপনার ছেলে তারেকের চেয়েও অনেক বেশি জনগণের নাগালের বাইরে থাকেন, তা নয় কি? আপরানা ক্ষমতায় না থাকলেও আপনাদের কোটি কোটি নেতা কর্মী সমর্থক থাকা সত্ত্বেও জনগণের উপকারের জন্য কিছুই কি করার চিন্তা বা যোগ্যতা রাখেন না? আপনারা কি সরকারের বাইরে মন্ত্রণালয় ভিত্তিক ডামি সরকার গঠন করতে পারেন না?

 

সম্মানিত ইসলামী নেতৃবৃন্দ!

একমাত্র “এ’লায়ে কালিমাতিল্লাহ” বা “আল্লাহর জমিনে আল্লাহর আইন প্রতিষ্ঠা” ছাড়া অন্য কোন কারণে প্রাণ বিসর্জন দেয়া জায়েজ আছে কি? তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাস্তবায়িত হওয়া-না হওয়া বা কোন ব্যাক্তি বিশেষের উপর কি আল্লাহর আইন প্রতিষ্ঠা নির্ভরশীল? তা না হলে এ জন্য প্রাণ বিসর্জন দেয়া বা দিতে উদ্ভোদ্ধ করা আর জাহেলিয়াতের যুগে গোত্রীয় সংঘাতে জড়িয়ে মৃত্যু হওয়ার মধ্যে পার্থক্য কী? এ ধরনের মৃত্যুকে কি শহীদী মৃত্যু বলা যাবে? কুরআন-হাদীসে “ফী ছাবিলিল্লাহ” বা “আল্লাহর পথে” বলতে কি “বাংলাদেশের রাজপথ”কেই বুঝানু হয়েছে? বাংলাদেশে যত ইসলামী রাজনৈতিক দলের যত শহীদের নাম শুনা যায় তাদের অধিকাংশের বয়স কম কেন? তাতে কি প্রমান হয় না যে, নবীনদের ধর্মীয় আবেগকে রাজনৈতিক কারণে ব্যবহার করা হচ্ছে? যে মারছে সেও জানেনা কেন মারছে এবং যে মার খাচ্ছে সেও জানেনা কেন মার খাচ্ছে, হাদীস মতে “আল কাতিলু ওয়াল মাকতূলু ,কিলাহুমা ফিন্নার, অর্থাৎ ঘাতক ও নিহত উভয়েই জাহান্নামী, এটাই কি সেই কিয়ামতের আলামত নয়? আপনারা ইসলামের জন্যেই সংগ্রাম করলে “ইসলামী জোট” করতে পারেন না কেন? আল্লাহ রাসূল কুরআন হাদীম এক হলেও তা বাস্তবায়নের জন্য ইসলামী দলগুলো কেন এক হতে পারেন না? কে কোন্ ইসলাম বাস্তাবায়ন করতে চান? ধর্ম রক্ষার নামে নারী নেতৃত্ব মেনে নিতে পারলেও ধর্ম বাস্তবায়ণের স্বার্থে পুরুষ নেতৃত্ব কেন মেনে নিতে পারেন না? শুধুমাত্র জামায়াতের পক্ষে বা বিপক্ষে বললেই কি ইসলাম কায়েম হয়ে যাবে? বর্তমানে ইসলামী দলগুলোই ইসলামের ক্ষতির কারণ নয় কি? জনগণ কেন আপনাদেরকে ভোট দেয় না? আপনারা ক্ষমতা পেলেও যে দেশ চালাতে পারবেন তার প্রমান কি? সবধরনের যোগ্য লোক কি আপনাদের তৈরী হয়েছে?

 

সম্মানিত পল্লীবন্ধু এরশাদ!

আপনি হরতাল-অবরোধমুক্ত পজেটিভ রাজনীতি করলেও আপনার অবস্থান স্পষ্ট হওয়া উচিত। স্বতন্ত্র জোট করার ক্ষমতা থাকলেও আপনি সে পথে না গিয়ে একবার এদিকে আরেকবার ওদিকে যাওয়াটা দেশবাসী ভাল চোখে দেখে না। তৃতীয় শক্তি হতে চায়লে শুধু নির্বাচনের আগে মাঠে নামলে যথেষ্ট হবে না, এখন থেকেই নামতে হবে। দু’জোটের বাইরে যারা আছে তাদেরকে, বিশেষ করে ইসলামী দলগুলোকে সাথে নিয়ে আপনি আগাতে পারেন। তবে তাদের মনে আপনার উপর ভরসা আনার দায়িত্ব আপনারই। আপনার প্রস্তাবিত প্রাদেশিক ও রাষ্ট্রপতি শাসিত সরকার ব্যবস্থা শুধু দেশ-জাতির জন্যেই নয়, বরং প্রতেক দলের জন্যেও উপকারী হতে পারে। তখন কেন্দ্রে যে দলই ক্ষমতায় যাক না কেন, একেক দল একেক প্রদেশে সরকার গঠন করবে, আবার প্রত্যেকেই কেন্দ্রীয় সরকারের প্রতি মুখাপেক্ষি থাকবে। ফলে কেউ নিছক বিরোধিতার জন্য বিরোধীতা করতে পারবে না। আপনি কি শেষ বয়সে এসে শুধুমাত্র একটি ঘোষণা দিতে পারবেন যে, ‘ক্ষমতায় গেলে সুদমুক্ত যাকাত ভিত্তিক অর্থনীতি বাস্তবায়ণ করবেন”? তাহলে আপনার সাথে কোন দল থাকুক বা না থাকুক সাধারণ ধর্মপ্রীয় জনগণ আপনার সাথেই থাকবে ইনশাআল্লাহ।

 

সবাইকে দেশ-জাতি নিয়ে ভাবার জন্য ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে আজকের মত এখানেই শেষ করছি। ভাল থাকুন, ভাল করুন, আমীন।

 

ইতি, সাইফুল ইসলাম, আহবায়কঃ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান মুসলিম ঐক্য পরিষদ। ই-মেইলঃ

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT