টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর উদ্বোধন উপলক্ষে টেকনাফে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফ্রিং টেকনাফের ফাহাদ অস্ট্রেলিয়ায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছে নিখোঁজের ৮ দিন পর বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা মিয়ানমারে পিডিএফ-সেনাবাহিনী ব্যাপক সংঘর্ষ ২শ’ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস বিল গেটসের মেয়ের জামাই কে এই মুসলিম তরুণ নাসের রোহিঙ্গাদের এনআইডি কেলেঙ্কারি : নির্বাচন কমিশনের পরিচালকের বিরুদ্ধে দুপুরে মামলা, বিকালে দুদক কর্মকর্তা বদলি সড়কের কাজ শেষ হতে না হতেই উঠে যাচ্ছে কার্পেটিং! আপনি বুদ্ধিমান কি না জেনে নিন ৫ লক্ষণে ৫৫ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশি ভোটার: নিবন্ধিত রোহিঙ্গাও ভোটার! ইসি পরিচালকসহ ১১ জন আসামি হ’ত্যার পর মায়ের মাংস খায় ছেলে

দুদেশের শক্তিশালী ইয়াবা সিন্ডিকেট বড়ধরনের ইয়াবার চালান পাচারের সাথে জড়িত

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শনিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৩
  • ১২৬ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

মোঃ আশেক উলাহ ফারুকী, টেকনাফ ::::বাংলাদেশ মিয়ানমার নাফ-নদী ও সমূদ্র জলসীমানা অরতি হয়ে পড়েছে। দুদেশের সীমান্ত পর্যায়ে শক্তিশালী ইয়াবা সিন্ডিকেট এর মাধ্যমে ইয়াবার বড় ধরনের চালান সমূদ্র পথ দিয়ে সরাসরী চট্টগ্রাম ও ঢাকায় পাচার হয়ে যাচ্ছে। নির্ভরযোগ্য সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। সূত্র মতে, ইয়াবা পাচারের জন্য দুদেশের সমূদ্র ও নাফ-নদীর জলসীমানাকে একমাত্র নিরাপদ রুট হিসাবে বেচে নিয়েছে সংঘবদ্ধ পাচারকারীরা। টেকনাফ কক্সবাজার সড়কে বিজিবি পুলিশ এবং কাষ্টমস এর একাদিক চেকপোষ্ট এবং কড়াকড়ী থাকার কারণে ইয়াবার বড় ধরনের চালান পাচারের জন্য ঝুকি বিধায় সড়কের পরিবর্তে নৌ-পথকে ওরা নিরাপদ হিসাবে বেচে নিয়েছে। সড়ক পথে চুনোপুতোড়ী ইয়াবার চালান ধরা পড়লেও বড় ধরনের ইয়াবার চালান ধরাপড়েনা। সূত্রে আরো জানা গেছে মিয়ানমারের মংডু ও আকিয়াব থেকে মাছধরা বোটে ইয়াবার বস্তা দুদেশের জলসীমানা জিরো লাইনে চলে আসে এবং সেখান থেকে বাংলাদেশের ছদ্ধবেশে জেলেদের মাধ্যমে ইয়াবার হাতবদল করে ফেলে। পরে সেখান থেকে ফিসিংবোটে ইয়াবার বড় ধরনের চালান সেন্টমার্টিন ও টেকনাফ সমূদ্রে উপকূল হতে ৬/৭ নটিকেলের ভিতর ফিসিং বোটের আড়ালে ইয়াবার চালান চট্টগ্রাম ও ঢাকার নারায়নগঞ্জে পাচার হয়ে যাচ্ছে। অপরদিকে নাফ নদীর জলসীমানার জিরোপয়েন্ট দিয়ে ইয়াবার চালান টেকনাফের ৫টি চোরাইপয়েন্ট দিয়ে ইয়াবার চালান ঢুকে। বিজিবি ও পুলিশের ভাস্যমতে নাজির পাড়া, হ্নীলা, জাদিমুড়া, লেদা, নাইথংপাড়া ও সাবরাং নয়াপাড়া এ ৫টি পয়েন্ট ও ঘাট হচ্ছে ইয়াবা ও রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের জন্য খ্যাত। এসব পয়েন্ট থেকে ইয়াবা আটকের জন্য বিজিবি সবার শীর্ষে রয়েছে। বাংলাদেশ মিয়ানমার সমূদ্র জলসীমানা দিয়ে ইয়াবার বড় ধরনের চালান সেন্টমার্টিন হয়ে সমূদ্র পথে চট্টগ্রামে কুমিরায় ইয়াবার চালান খালান হয়। এছাড়া চট্টগ্রাম বন্দরে আমদানি পণ্যের আড়ালে ও ইয়াবার চালান কৌশলে খালাস হয়। অপর এক সূত্রে প্রকাশ, টেকনাফ থেকে সমূদ্র পথে ইয়াবা বহনকারী ফিসিংবোট সরাসরী ঢাকার নারায়নগঞ্জে গিয়ে খালাস করে থাকে। ইয়াবা চালানের বিপরীত অর্থ স্থানীয় ব্যাংক ও মোবাইল ব্যাংকিং বিকাশের মাধ্যমে চলে আসে। টেকনাফ সীমান্তে হ্নীলা ও টেকনাফর পৌর এলাকায় মোবাইলে ব্যাংকিং বিকাশের রমরমা বাণিজ্য চলছে। টেকনাফ পৌর শহরে ৪/৫টি মোবাইল (ব্যাংকিং) বিকাশের মাধ্যমে প্রতিদিন ইয়াবার কোটি কোটি টাকা লেনদেন হচ্ছে। এসব টাকা আসছে বেশীরভাগ চট্টগ্রাম ও ঢাকা থেকে। উল্লেখ্য গত ২৩ সেপ্টেম্বর টেকনাফ উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে জেলা আইন শৃংখলা ও মাদক প্রতিরোধ বিশেষ কমিটির সভায় স্থানীয় উখিয়া-টেকনাফের সাংসদ আলহাজ্ব আব্দুর রহমান বদী সাগর পথে ইয়াবার বড়ধরনের চালান পাচার হয়ে যাচ্ছে বলে তার বক্তব্যে এ কথা বলেন। উক্ত সভায় উপস্থিত ছিলেন, জেলা প্রশাসক মোঃ রুহুল আমিন, পুলিশ সুপার, ইউএন ও মোজাহীদ উদ্দিন, সরকারী কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও স্থানীয় সাংবাদিকবৃন্দ। ######

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT