টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

দালাল নিয়ন্ত্রণে পুলিশের অনেক কর্মকর্তা

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৩
  • ১০৩ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

 pppp

কক্সবাজার রিপোর্ট: কক্সবাজারে পুলিশ ক্রমাগত বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। দালাল নিয়ন্ত্রিত অনেক পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সাধারণ মানুষকে জিম্মি করে টাকা আদায় সহ নানাভাবে হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে। একই সঙ্গে বিভিন্ন স্পটে থেকে মাসিক চাঁদা আদায় সহ নানা অপকর্ম করে বেড়াচ্ছে কতিপয় পুলিশ কর্মকর্তা। অনুসন্ধানে জানা যায়, কক্সবাজার সদর থানার এসআই সুনীল সম্প্রতি পরপর ২ টি ঘটনা সংঘটিত করেছে। এর মধ্যে কলাতলী হোটেল মোটেল জোন থেকে মহেশখালীর এক যুবককে ইয়াবা তল্লাশীর নামে সিভিল পোষাকে থানা আনার নামে থানার পেছনের একটি আবাসিক হোটেল কক্ষে নিয়ে যায়। আবাসিক হোটেল কক্ষে আটকে রেখে ওই যুবকের কাছ থেকে নগদ ১৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেয়া হয়। ওই যুবক অভিযোগ করেন, তার কাছ থেকে কোন প্রকার ইয়াবা না পেলেও পুলিশ কর্মকর্তা নানাভাবে হুমকি দিয়ে পকেটে থাকা ১৫ হাজার টাকা নিয়ে নেয়। বিষয়টি তিনি পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করেছেন। একই পুলিশ কর্মকর্তা গত ৫ সেপ্টেম্বর রাত দেড় টার দিকে শহরের প্রধান সড়কের তাজসেবা সড়কের মোড়ে এক যুবককে প্রকাশ্যে মারধর করেছে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ওই যুবক একটি মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামী। এসআই সুনীল ওই যুবককে আটক করে ছেড়ে দিয়েছিল। এর বিনিময় টাকা দেয়ার কথা থাকলেও টাকা না দেয়ায় ওই যুবককে মারধর করা হয়। এর আগে গত ৪ সেপ্টেম্বর কক্সবাজার শহরের টেকপাড়া এলাকা থেকে এক ঠিকাদারকে কোন কারণ ছাড়াই আটক করে পুলিশের একটি দল। শহর ফাঁড়ি হাবিলদার দেলোয়ার, সদর থানার এক এসআই ও চিহ্নিত দালাল আবছার এ ঠিকাদার ধরে গাড়ি করে এনে টকি হাউজ সিনেমা হল সংলগ্ন নিয়ে আসে। ওখানে ঠিকাদারের পকেট থেকে নগদ ১৫ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে ওই ঠিকাদারকে তাড়িয়ে দেয়া হয়। বিষয়টি পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের অবহিত করে ঠিকাদারের এক আত্মীয় থানা যান। পরিস্থিতির বেগতি দেখে পুলিশ কর্মকর্তা এসব টাকা ফিরে দেয়। গত ১০ সেপ্টেম্বর রাতে শহরের বাজারঘাটা এলাকায় পুলিশের ২ কনস্টেবলের উপস্থিতি ঢাকার এক পর্যটকের মোবাইল ছিনিয়ে নেয় কথিত দালাল আবছার। পরে প্রত্যক্ষদর্শী এগিয়ে গেলে কনস্টেবলের হেফাজত থেকে মোবাইলটি ফিরে দেয়া হয়। একই সঙ্গে কক্সবাজার পর্যটন পুলিশের টিএসআই সোলেমানের বিরুদ্ধে ব্যাপক চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। সমুদ্র সৈকতের ব্যবসায়ী, পর্যটকরা অভিযোগ করেছেন টিএসআই সোলেমানের নেতৃত্বে একটি চক্র ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে নানা অজুহাতে টাকা আদায়, পর্যটকদের হয়রানী করছে। অভিযোগ উঠেছে, কক্সবাজার শহর পুলিশের ওসির ভুমিকা পালন করতে শুরু করেছে চিহ্নিত দালাল আবছার। এ আবছারের সাথে কক্সবাজার সদর থানার কয়েকজন এসআই এর সাথেও রয়েছে বিশেষ সখ্যতা। প্রতিদিন কক্সবাজার শহরের গোলদিঘীর পাড়, মাছবাজার, টেকপাড়া সহ বিভিন্ মাদক স্পটে ঘুরে আবছার পুলিশের নামে চাঁদা আদায় করছে। একই কি বিভিন্ন মানুষকে মিথ্যা মামলা হয়রানী সহ নানা অজুহাতে টাকা আদায়ের অভিযোগও উঠেছে এ আবছারের বিরুদ্ধে। প্রতিদিন থানার আশে-পাশে এবং পুলিশের গাড়ি দেখা মিলে এ দালালের। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিশ কর্মকর্তা সম্প্রতি পুলিশের বেপরোয়া হওয়ার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এব্যাপারে অভিযুক্ত পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের প্রক্রিয়াও চলছে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT