টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

তত্বাবধায়ক সরকারের বিল পাশ করুন, নইলে আন্দোলন :চকরিয়ায় খালেদা জিয়া

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ১১ নভেম্বর, ২০১২
  • ১৩৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

মিজবাউল হক, চকরিয়া :
জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, আগামী ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় সংসদ নির্বাচন নির্দলীয় তত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হতে হবে। আওয়ামীলীগ সরকারের অধীনে কোন নির্বাচন হতে দেয়া হবে না। তিনি ক্ষমতাসীন দলকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, আগামী সংসদ অধিবেশনে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্বাবধায়ক সরকারের আইন পাশ করুন, নইলে এইদেশের জনগণকে সাথে নিয়ে আন্দোলন করে আদায় করা হবে। নির্বাচন অবশ্যই তত্বাবধায়ক সরকারের অধীনেই হতে হবে। আর তা আদায় করে নিতে কেন্দ্র ঘোষিত সকল কর্মসূচী বাস্তবায়ন করতে হবে। এ আন্দোলনে সবাইকে শরীক হয়ে গণতন্ত্র রক্ষা ও দেশকে বাঁচাতে হবে। তিনি আরো বলেন, আওয়ামীলীগ ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্টিত নির্বাচনের আগে বিনামূলে সার, ১০টাকা কেজি চাল, ঘরে ঘরে চাকরী দেয়ার কথা বলে ক্ষমতায় এসেছে। কিন্তু এখন জনগণকে প্রতিকেজি চাল কিনতে হচ্ছে ৩৫টাকায়। বিনামূল্যে সার দেয়াতো দুরের কথা আমাদের আমলের ৩০০টাকার ইউরিয়া সার এখন এক হাজার টাকা। ঘরে ঘরে চাকরী দেয়া হয়নি, উপরোন্ত বেকারত্ব আগের চেয়ে বেড়ে গেছে, বিদেশে কাজ করতে না পেরে লোকজন দেশে ফিরে আসছে। নানা কেলেংকারী ও দূর্নীতির কারণে দেশে বিদেশী বিনিয়োগ কমে গেছে। আওয়ামীলীগ বিশ্বচোর, দূর্নীতিতে প্রধানমন্ত্রী পরিবারের সদস্য ও মন্ত্রী পরিষদের সদস্যরা জড়িত রয়েছে। দূর্নীতির কারণে দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। তাদের কারণে বিশ্বব্যাংক টাকা বন্ধ করে দিয়েছে। ফলে পদ্ধা সেতুর নির্মাণ করতে পারছে না। সরকার শেয়ারবাজার ডেসটিনি ও ইউনিপে টু ইউ’র মাধ্যমে হাজার হাজার কোটি লুটপাট করেছে। যারা লুটপাট করেছে তাদের গ্রেফতার করলেও জামাই আদরে রাখা হয়েছে। বিরোধীদলীয় নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া দুদিনের সফরে কক্সবাজারের রামুতে সন্ত্রাসী হামলায় ক্ষতিগ্রস্থ বৌদ্ধমন্দির পরিদর্শন ও সম্প্রীতি সমাবেশে যাওয়ার পথে গতকাল ১০ নভেম্বর বেলা দেড়টায় চকরিয়া শহীদ আব্দুল হামিদ পৌর বাসটার্মিনাল মাঠে স্থানীয় বিএনপির উদ্যোগে আয়োজিত এক বিশাল জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি চট্টগ্রাম থেকে সড়ক পথে ১টা ৩০ মিনিটে চকরিয়া জনসভার মঞ্চে উঠেন। সেখানে একটানা ২০ মিনিট বক্তব্য দেন।
চকরিয়া-পেকুয়া আসনের এমপি এডভোকেট হাসিনা আহমদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ জনসভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সাবেক মন্ত্রী ড. আবদুল মইন খান, সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি সোলতান সালাউদ্দিন টুকু, সাবেক রাষ্ট্রদূত গোলাম আকবর খন্দকার, কেন্দ্রীয় শ্রমিকদলের সহসভাপতি নাজেম উদ্দিন, বিএনপির উপজাতীয় সম্পাদক ম্যামাচিং মার্মা, কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমদ, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক এড. শামীম আরা স্বপ্না, সাংগঠনিক সম্পাদক জামিল ইব্রাহিম, জেলা শ্রমিকদলের সভাপতি রফিকুল ইসলাম, চকরিয়া উপজেলা বিএনপির সভাপতি মিজানুর রহমান চৌধুরী খোকন মিয়া, পৌর বিএনপির সভাপতি মোহাম্মদ হোসেন বিএসসি, সাধারণ সম্পাদক ও চকরিয়া পৌর মেয়র নুরুল ইসলাম হায়দার, মহেশখালী বিএনপির সভাপতি এড. নুরুল আলম, পেকুয়া উপজেলা চেয়ারম্যান শাফায়েত আজিজ রাজু, লামার পৌর মেয়র আমির হোসেন মজুমদার,কক্সবাজার জেলা বিএনপি প্রচার সম্পাদক অধ্যাপক আকতার চৌধুরী, চকরিয়া বিএনপির সাবেক সভাপতি আবু তাহের চৌধুরী, ইকবাল হোসেন, হাসিনা আক্তার বকুল, কুতুব উদ্দিন, অধ্যাপক আবু তাহের, আবুল কাসেম, সালেহ বেগম, রাশেদা বেগম কমিশনার, নুরুল আমিন কমিশনার, বিএনপি নেতা বেলাল উদ্দিন, মাতামুহুরী বিএনপি নেতা আনোয়ারুল আজিম দুলাল, মোহাম্মদ আলী চৌধুরী, আবুল হোছন মনু, যুবদল নেতা শাহাজাহন মনির, প্যানেল মেয়র ফোরকানুল ইসলাম, শ্রমিকদলের আক্তার কুতুবী, পেকুয়া মহিলা দলের নেত্রী সাবিনা ইয়াছমিন ঝিনু, আবদুর রহমান। এসময় সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন, সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খান, স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাছ, যুগ্ম মহাসচিব বরকত উল্লাহ বুলু, বিএনপি নেতা খায়রুল কবির খোকন, সাবেক বন ও পরিবেশ প্রতিমন্ত্রী বাশখালীর এমপি জাফরুল ইসলাম চৌধুরী, সাতকানিয়া-লোহাগাড়ার সাবেক এমপি জামায়াত নেতা শাহাজাহান চৌধুরীসহ কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।
বিরোধীদলীয় নেত্রী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া আওয়ামীলীগকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ইয়াজ উদ্দিন, মঈনউদ্দিন ও ফখরুউদ্দিন ২২ জানুয়ারীর নির্বাচন বাতিল করে একটি প্রহসনের নির্বাচন দিয়ে আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় বসিয়েছে। তারা ক্ষমতায় গিয়ে তাদের নির্বাচনী ওয়াদা ভূলে গিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা মামলা দিচ্ছে। রাজনীতির নামে মানুষ হত্যা করেছে। এসরকারের আমলে সারাদেশে ১৬ জন সাংবাদিক খুন হয়েছে। সাগর-রুনিকে কে হত্যা করেছে ? এই সরকারের পেঠোয়া বাহিনী। সাগর-রুনি হত্যার এতোদিন পরও মুল হত্যাকারীরা অন্তরালে রয়ে গেছে। তিনি বলেন, এই সরকার ইলিয়াছ আলী ও চৌধুরী আলমকে গুম করেছে। এখনো পর্যন্ত এসব নেতাদের হদিস মেলেনি। দেশে সরকার বলে কিছুই নেই। ঘনঘন বিদ্যুত ও গ্যাসের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। দেশে বেকার বেড়ে গেছে। এই অঞ্চলে প্ররুর লবণ চাষ হয়। কৃষকরা লবণের ন্যায্য মূল পায় না। কিন্তু আমাদের আমলে লবণ চাষে খাজনা মাফ করা হয়েছে। তিনি তাদের সরকারের আমলের উন্নয়নের কথা উল্লেখ করে বলেন, পেকুয়াকে নতুন উপজেলা সৃষ্টি করা হয়েছে। এরপর থেকে এই অঞ্চলে উন্নয়নে ভরে গেছে। অনেক রাস্তাঘাট ব্রিজ ও কালর্ভাট করা হয়েছে। নতুন নতুন ভবন নির্মাণ হয়েছে। বর্তমান সরকার শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়েছে। আপনাদের ছেলে মেয়েদের ভবিষ্যৎ পড়ালেখা করতে চান তাহলে বিএনপিকে ভোট দেয়ার আহবান জানান।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT