টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :

টেকনাফ স্থল বন্দরে ৪ মাসে সাড়ে ৯ কোটি টাকা রাজস্ব ঘাটতি

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শনিবার, ৩ নভেম্বর, ২০১২
  • ১০৩ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

হাফেজ মুহামম্মদ কাশেম, টেকনাফ / টেকনাফ স্থল বন্দর দিয়ে চলতি অর্থ বছরের প্রথম ৪ মাসে (জুলাই, আগষ্ট, সেপ্টেম্বর,অক্টোবর) ৬৮ কোটি ৩৯ লাখ ১৭ হাজার ৬৪৩ টাকা মূল্যের পণ্য মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আমদানী এবং ২ কোটি ৫৭ লাখ ৩৯ হাজার ৪৯ টাকা মূল্যের বাংলাদেশী পণ্য মিয়ানমারে রপ্তানী হয়েছে। সে হিসাবে গত ৪ মাসে টেকনাফ স্থল বন্দর দিয়ে ৭০ কোটি ৯৬ লাখ ৫৬ হাজার ৬৯২ টাকা মূল্যের পণ্য আমদানী ও রপ্তানী হয়েছে। এই ৪ মাসে বিল অব ইনপোর্ট সংখ্যা ৪০৬টি এবং বিল অব এক্সপোর্ট সংখ্যা ১২২টি। পণ্য আমদানী খাতে সরকার উক্ত ৪ মাসে সব মিলে রাজস্ব আয় করেছে ১৬ কোটি ৪৪ লাখ ৮৮ হাজার ১৫২ টাকা। এদিকে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) টেকনাফ স্থলবন্দর কাস্টম্সকে ২০১২-২০১৩ অর্থবছরের জন্য বার্ষিক রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করে দিয়েছে ৬৫ কোটি টাকা। সেহিসাবে মাসিক রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্রা হচ্ছে ৫ কোটি ৪১ লাখ ৬৬ হাজার ৬৬৭ টাকা। মাসিক লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী বিগত ৪ মাসে রাজস্ব আয় করার কথা ছিল ২১ কোটি ৬৬ লাখ ৬৬ হাজার ৬৬৮ টাকা। কিন্তু   ৪ মাসে রাজস্ব আয় হয়েছে শুধু কাস্টম্স খাতে ১২ কোটি ২৪ লাখ ৪৬ হাজার ৫৪৯ টাকা। নতুন অর্থ বছরের প্রথম ৪ মাসেই রাজস্ব ঘাটতির পরিমাণ ৯কোটি ৪২ লাখ ২০ হাজার ১১৯ টাকা। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে- গত ৪ মাসে মাসওয়ারী সব মিলিয়ে রাজস্ব আয় ও রপ্তানী পণ্যের খতিয়ান হচ্ছে- জুলাই মাসে ১০৮টি বিল অব এন্ট্রির মাধ্যমে ৪ কোটি ১২লাখ ৮০৪ টাকা রাজস্ব আয় এবং রপ্তানী হয়েছে- ১৫টি বিল অব এক্সপোর্টের মাধ্যমে ১৮ লাখ ১৮ হাজার ৩১০টাকা মূল্যের পণ্য। আগষ্ট মাসে ৫৩টি বিল অব এন্ট্রির মাধ্যমে ৮ কোটি ৬৫ লাখ ৯৬ হাজার ৭৬৬ টাকা রাজস্ব আয় এবং রপ্তানী হয়েছে- ১৮টি বিল অব এক্সপোর্টের মাধ্যমে ৩৮ লাখ ৭ হাজার ৫২৮ টাকা মূল্যের পণ্য। সেপ্টেম্বর মাসে ১৪০টি বিল অব এন্ট্রির মাধ্যমে ৫ কোটি ৬৮ লাখ ১৩ হাজার ৪৯ টাকা রাজস্ব আয় এবং রপ্তানী হয়েছে- ৫৪ টি বিল অব এক্সপোর্টের মাধ্যমে ১কোটি ২১ লাখ ৪৫ হাজার ৭১৮ টাকা মূল্যের পণ্য। অক্টোবর মাসে ১০৫টি বিল অব এন্ট্রির মাধ্যমে ৪ কোটি ৫ লাখ ১২ হাজার ৯১৫ টাকা রাজস্ব আয় এবং ৩৫টি চালানে ৭৯ লাখ ৬৭ হাজার ৪৯৩ টাকা মুল্যের বাংলাদেশী পণ্য মিয়ানমারে রপ্তাণী হয়েছে । টেকনাফ স্থল বন্দর সরেজমিন পরিদর্শন এবং সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে এসব তথ্য । মিয়ানমারের আরকান রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিম-রাখাইন জাতিগত সংঘাত, টেকনাফ স্থল বন্দরে ব্যবসায়ী তথা আমদানীকারক-রপ্তাণীকারকদের আধিপাত্য বিস্তার, ইয়াবা ব্যবসার আগ্রাসন, ব্যবসায়ীদের বহুমূখী হয়রানী, বিরাজমান নানাবিধ সমস্যার কারণে রাজস্ব আয়ে ধ্বস নেমেছে বলে জানা গেছে । টেকনাফ স্থল বন্দরের জিএম মাকসুদুর রহমান বলেন- সরকারী ও কোম্পানীর যাবতীয় নিয়ম-কানুন অনুসরন করে বন্দর ব্যবহারকারীদের উন্নত সেবা দেয়ার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি । টেকনাফ স্থল বন্দরের কাস্টমস সুপার কাজী আবুল হোসেন বলেন- সরকারী রাজস্ব বৃদ্ধির জন্য যা যা করা দরকার তা অব্যাহত রয়েছে । ###########

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT