টেকনাফ মারোত এর ‘গৌরবের ১১১ দিন’

প্রকাশ: ২৬ জুলাই, ২০২০ ১০:৫৭ : অপরাহ্ণ

 

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ … মানসিক রোগিদের তহবিল (মারোত) এর ১১১তম দিবসের কার্যক্রম ২৬ জুলাই রবিবার রান্না করা খাবার মানসিক রোগীদের মাঝে বিতরণ করার মাধ্যমে সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়েছে। করোনাকালীন লকডাউন শিথিল হওয়ায় ১১১তম দিনের বিতরণের মধ্য দিয়ে সমাপ্তি ঘোষণা করার লক্ষ্যে মারোতের কেন্দ্রীয় কমিটির অফিস হাকিম আলী মার্কেটে এক মতবিনিময় সভা সংগঠনের সভাপতি আবু সুফিয়ানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মারোত প্রধান উপদেষ্টা অধ্যাপক কবি সন্তোষ কুমার শীল। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপদেষ্টা গ্রাম ডাক্তার জয় শংকর নাথ, উপদেষ্টা সাইফুল হাকিম।
মারোত সাধারণ সম্পাদক রাজু পালের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সহ-সভাপতি ঝুন্টু বড়ুয়া, জয়েন্ট সেক্রেটারি মোবারক হোসেন ভূঁইয়া, আইটি সম্পাদক মোহাম্মদ হোসাইন আমিরী, মোশাররফ হোসেন, অর্থ সম্পাদক আজিম উদ্দিন, কামাল হোসেন, হারুন অর রশিদ, একরাম, বস্ত্র সম্পাদক এমাদুল করিম রনি, চিকিৎসা সম্পাদক গ্রাম ডাক্তার কৃষ্ণ চন্দ্র নাথ, মুন্না প্রমুখ।
সভায় বক্তারা বলেন, ‘আমরা করোনাকালীন সময়ে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে পেরে মহান আল্লাহর দরবারে শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি। এবং যারা ধারাবাহিকভাবে মানবিক তহবিলে আর্থিক অনুদান দিয়ে সাহায্য করেছেন সকলের প্রতি আমরা ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। পাশাপাশি মিডিয়াকর্মীগণ মারোতের খবর প্রচার প্রসার করে দেশ-বিদেশে পরিচিত করেছেন তাদেরকেও ধন্যবাদ জানাচ্ছি। আমরা সংগঠনের সদস্য ভাইদের মাধ্যমে টেকনাফ পৌরসভা ও সদর ইউনিয়ন, সাবরাং বাজার ও নয়াপাড়া এলাকায় করোনাকালীন লকডাউনের ১১১ দিন পর্যন্ত প্রতিদিন অর্ধশতাধিক অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। আমাদের স্বেচ্ছাসেবী ভাইয়েরা এই অসহায় মানসিক ভারসাম্যহীন মানুষ গুলোর কাছে গিয়ে তৈরী খাবার সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছেণ। আল্লাহ নিশ্চয়ই এর উত্তম প্রতিদান দিবেন’।
সংগঠনের সভাপতি আবু সুফিয়ান বলেন, ‘আমাদের কার্যক্রম একেবারে বন্ধ হচ্ছেনা। কোন বিশেষ দিবস, কারও ইছালে ছাওয়াব, বিভিন্ন বার্ষিকী উদযাপন, জাতীয় দিবস, ধর্মীয় উৎসব সমূহে খাবার বিতরণসহ সেবামূলক কার্যক্রমে সবসময় সম্পৃক্ত থাকবে মারোত। মানসিক রোগীর সেবায় সব ধরনের কার্যক্রম চালু থাকবে। গত ২৫ মার্চ থেকে করোনার ভয়াবহতা ও লকডাউনের পরিপ্রেক্ষিতে সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা ও টেকনাফ সরকারি কলেজের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সন্তোষ কুমার শীলের নেতৃত্বে মারোতের খাদ্য বিতরণ কর্মসূচীর তহবিল গঠন করা হয়। তাহার ধারাবাহিকতায় ২৬ জুলাই ১১১তম দিন পর্যন্ত দৈনিক ৫১ জন থেকে ১০১ জন মানসিক রোগীর মাঝে তৈরি করা খাবার বিতরণ করে। এতে প্রায় ৮ লক্ষ ৪৯ হাজার ১৫০ টাকা খরচ হয়েছে’। ##


সর্বশেষ সংবাদ