টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
মডেল মসজিদগুলোয় যোগ্য আলেম নিয়োগের পরামর্শ র্যাবের জালে ধরা পড়লেন টেকনাফ সাংবাদিক ফোরামের সদস্য ও ইয়াবা কারবারি বিপুল পরিমাণ টাকা ও ইয়াবা উদ্ধার রোহিঙ্গাদের তথ্য মিয়ানমারে পাচার করছে জাতিসংঘ: এইচআরডব্লিউ প্রশাসনে তিন লাখ ৮০ হাজার পদ শূন্য গোদারবিলের জামালিদা ও নাইট্যংপাড়ার ফয়েজ ইয়াবা ও নগদ টাকাসহ গ্রেপ্তার পরীমনির কান্না অথবা নিখোঁজ ইসলামি বক্তা এসএসসি-এইচএসসির পরীক্ষার সিদ্ধান্ত পরিস্থিতি দেখে : শিক্ষামন্ত্রী টেকনাফে পাহাড় ধ্বসে ৩৩ জনের মর্মান্তিক মৃত্যুর ট্রাজেডি আজ পড়ে আছে বিলাসবহুল বাড়ি,নেই দাবিদার শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ লম্বাবিলে বাস—সিএনজির মুখোমুখী সংঘর্ষে রোহিঙ্গাসহ ২ জন নিহত

টেকনাফে মন্দিরগুলোতে দুর্গাপ্রতিমার তৈরির কাজ সমাপ্তির পথে:দুর্গাপূজা উদযাপনে প্রস্তুতি সভা

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শনিবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৩
  • ১৫৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

DSC00184নুর হাকিম আনোয়ার,টেকনাফ::::টেকনাফ উপজেলার অন্যান্য বছরের ন্যায় এবারও শারদীয় দুর্গাপূজা জাঁকজমকের সাথে উদযাপনের জন্য ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এ উপজেলার ৪টি মন্দিরে শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এখন প্রতিটি মন্দিরে প্রতিমা তৈরির কাজ প্রায় সমাপ্তির পথে। কুমাররা এ কাজে ব্যস্ত রয়েছে। কে বেশি প্রতিমা তৈরি করতে পারবে- এ প্রতিযোগিতাও রয়েছে তাদের মাঝে। আগামী ১১ অক্টোম্বর থেকে এ পূজা শুরু হয়ে ১৪ অক্টোম্বর বির্সজন হয়ে সমাপ্তি হবে। উপজেলায় উপরের বাজারের বিঞু মন্দির, ডেইল পাড়ার কালী বাড়ি, হ্নীলা কালিবাড়ি ও হ্নীলা নাটমোরা মন্দিরে দূর্গাপ্রতিমার কাজ শেষ হয়েছে। পূজা উদযাপন পরিষদ ও পূজা উপ-কমিটির কর্মকর্তারা বিভিন্ন পূজামন্ডপে ঘুরে ঘুরে প্রস্তুতি ও কাজ পর্যবেণ ও তদারকি করছেন। মন্দিরে দুর্গাপ্রতিমা তৈরি করছেন চট্টগ্রামের হাটহাজারীর বিখ্যাত কারিগর মিলন অর্চায্য পুত্র বাবুল আচার্য্য (২৯)। দেখা গেছে – মন্দিরের ভিতরে বাঁশ-বেত দিয়ে সৃষ্টি করা হয়েছে প্রাকৃতিক পরিবেশ। সেখানে গাছপালা, পশুপাখি সবই আছে। দূর থেকে দেখলে মনে হবে দেবী দুর্গা ঠাঁই নিয়েছেন গুহার ভেতরে। এক সপ্তাহের পরেই দুর্গাপূজার ঢাকের বোল শোনা যাবে। আর সে জন্য জোর প্রস্তুতিও নিচ্ছেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন প্রতিমাশিল্পীরাও। টেকনাফ বিঞ্চু মন্দিরের সভাপতি দীপক সেন বলেন, টেকনাফের প্রাকৃতিক পরিবেশ সংরণে মানুষকে সচেতন করতে এমন আয়োজন। এতে প্রায় তিন লাখ টাকা খরচ হচ্ছে। সাধারণ সম্পাদক পিকলু দত্ত বলেন- কয়েক দিন পর রং লাগানো শেষ হলে এর আকর্ষণ আরও বেড়ে যাবে। গত ২৭ সেপ্টেম্বর বিকালে বিঞু মন্দির ঘুরে দেখা গেছে, শিল্পী বাবুল আচার্য্য প্রতিমা তৈরির কাজ করছেন। তার কাছে জানতে চাইলে সে জানায়- পূজামন্ডল তৈরী করতে ৫দিন সময় লেগেছে। ২৮ সেপ্টেম্বরের সকালের দিকে কাজ সর্ম্পূণ শেষ হবে। তার সহযোগী তপন ও রনি আর্চার্য্যের দাবি, এটিই উপজেলার সবচেয়ে বড় প্রতিমা। হ্নীলা কালীবাড়ি দূর্গা মন্দিরেও চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ। সেখানে গিয়ে দেখা গেছে, মন্দিরের ভিতরে প্রতিমাগুলো সারি রাখা হয়েছে। টেকনাফসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এসে প্রতিমা দেখছেন। অনেকে পূজার জন্য কিনেও রাখছেন। এখানে কারিগর বাবুল আর্চায্য তার চার সহযোগীকে নিয়ে প্রতিমা তৈরির কাজ চালাচ্ছেন। বাবুল আর্চায্য কারিগর বলেন, দণি চট্টগ্রামে প্রতিমা তৈরির তেমন কারিগর নেই। তাই পূজার সময় তাঁকে ১০০ প্রতিমা তৈরি করতে হয়। জেলা দুর্গাপূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি রণজিৎ দাশ বলেন, এবার জেলার সাতটি উপজেলায় প্রায় ২৭০টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে। আর এসব মণ্ডপের জন্য প্রতিমা তৈরি করছেন বাবুল ভট্টাচার্য। প্রতিমাশিল্পীরা জানান, নাফ নদী থেকে মাটি কিনে এনে প্রতিমা তৈরি করেন তাঁরা। তারপর কাঠ, সুতা, ঘাস, রং, কাপড় ও মুকুট দিয়ে এক সেট প্রতিমা তৈরি করতে সময় লাগে পাঁচ দিন। প্রতি সেট প্রতিমা (ছোট-বড়) তৈরি করতে খরচ হয় ১৫ থেকে ৩৫ হাজার টাকা। বিক্রি হয় ২০ হাজার থেকে এক লাখ টাকায়। এবারে ষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হবে হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। ধর্মীয় এ উৎসব ঘিরে টেকনাফে এখন আন্দনমুখর। আনন্দময়ীর আগমনী সুরে অনুরণিত চারদিক। দশভুজাদেবী দুর্গার বোধন, আমন্ত্রণ ও অধিবাস। মাতৃরূপে পূজামন্ডপে আগমন করবেন। জ্ঞানের প্রতীক দেবী সরস্বতী ধন, ঐশ্বর্যের প্রতীক দেবী লক্ষ্মী, সিদ্ধিদাতা গণেশ এবং বলবীর্য ও পৌরুষের প্রতীক কার্তিক। এতে বছর বাদে মেয়ে আসছেন বাপের বাড়ি, মেয়েকে বরণ করা হবে। ঘরের বউ-ঝিরা নারিকেলের নাড়ু, মুড়ি, চিড়া, খইয়ের মোয়া, সন্দেশসহ বিভিন্ন উপাচার বানানোর কাজে ব্যস্ত থাকবে। ইতিমধ্যে এ উৎসবের সব আয়োজনের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে বলে জানিয়েছেন পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা। সত্য ও সুন্দরের আরাধনা শারদীয় দুর্গোৎসবের প্রধান বৈশিষ্ট্য। দুর্গাপূজা শুধু হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় উৎসবই নয়। এটি আজ সার্বজনীন উৎসবে পরিণত হয়েছে। পাশাপাশি দুর্গাপূজার সময় যাতে আইনশৃঙ্খলা ঠিক থাকে, তার প্রস্তুতিও নিচ্ছে টেকনাফ উপজেলা প্রশাসন। এ বিষয়ে গত ২৬ সেপ্টেম্বর উপজেলা ইউএনও’র কার্যালয়ে এক প্রস্তুতি সভা অনুষ্টিত হয়েছিল। এ বিষয়ে উপজেলা নিবার্হী অফিসার শাহ মোজাহিদ উদ্দীন বলেন, প্রতিটি মন্দিরে কঠোর নিরাপত্তা দেওয়া হবে। পাশাপাশি সমুদ্র সৈকতে প্রতিমা বিসর্জন অনুষ্ঠান সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার প্রস্তুতি নেওয়া হবে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT