টেকনাফে প্রাথমিক সমাপণীতে পাশের হার কমলেও স্কুলের চেয়ে মাদ্রাসা এগিয়ে

প্রকাশ: ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ৯:৫০ : অপরাহ্ণ

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ … ২০১৮ সালে অনুষ্টিত এবারের টেকনাফ উপজেলায় পাসের হার পিইসিতে বালক ৯৬.৬৬% এবং বালিকা ৯৬.২৪%। গত বছর পাশের হার ছিল পিইসিতে ৯৯.২৫% এবং এবতেদায়ীতে ৯৫.৭৬% বলে জানা গেছে। এবারে পাশের হার কমলেও স্কুলের চেয়ে মাদ্রাসা এগিয়ে রয়েছে।
টেকনাফ উপজেলা শিক্ষা অফিসার (চলতি দায়িত্ব) মোঃ এমদাদ হোসেন চৌধুরী জানান, ২০১৮ সালে অনুষ্টিত প্রাথমিক শিক্ষা সমাপণী পরিক্ষায় (পিইসি) প্রাথমিক স্তরের ১০৫টি বিদ্যালয়ের ডিআরভুক্ত পরীক্ষার্থী ছিল ১৯০৫ জন বালক এবং ২২৩৩ জন বালিকা। মোট ৪১৩৮ জন। তম্মধ্যে সকল বিষয়ের পরিক্ষায় অংশ গ্রহন করেছিল ১৭৯৯ জন বালক এবং ২১০১ জন বালিকা, মোট ৩৯০০ জন। মোট ৩৭৬১ জন পরিক্ষার্থী পাশ করেছে। অকৃতকার্য ৬০ জন বালক এবং ৭৯ জন বালিকা, মোট ১৩৯ জন। তৎমধ্যে ‘জিপিএ-৫’ পেয়েছে ৭৩ জন বালক এবং ৬৬ জন বালিকা, মোট ১৩৯ জন। এছাড়া জিপিএ-৪-৫ বালক ৪৪২ জন, বালিকা ৩৫৫ জন, মোট ৭৯৭ জন। জিপিএ-৩.৫-৪ বালক ৩১২ জন, বালিকা ৩৬০ জন, মোট ৬৭২ জন। জিপিএ-৩.৩-৫ বালক ৩২৫ জন, বালিকা ৩৯০ জন, মোট ৭১৫ জন। জিপিএ-২-৩ বালক ৪৫৩ জন, বালিকা ৬২০ জন, মোট ১০৭৩ জন। জিপিএ-১-২ বালক ১৩৪ জন, বালিকা ২৩১ জন, মোট ৩৬৫ জন। অনুপস্থিত বালক ১০৬ জন, বালিকা ১৩২ জন, মোট ২৩৮ জন। পাশের হার বালক ৯৬.৬৬%, বালিকা ৯৬.২৪%।
এবতেদায়ী সমাপণী পরিক্ষায় ৩৬টি মাদ্রাসার ডিআরভুক্ত পরীক্ষার্থী ছিল ৫৬৮ জন বালক এবং ৮৮২ জন বালিকা। মোট ১৪৫০ জন। তম্মধ্যে সকল বিষয়ের পরিক্ষায় অংশ গ্রহন করেছিল ৫০৩ জন বালক এবং ৭৬৯ জন বালিকা, মোট ১২৭২ জন। মোট ১২৪৮ জন পরিক্ষার্থী পাশ করেছে। তৎমধ্যে ‘জিপিএ-৫’ পেয়েছে ৮ জন বালক এবং ৫ জন বালিকা, মোট ১৩ জন। অকৃতকার্য ৭ জন বালক এবং ১৭ জন বালিকা, মোট ২৪ জন। এছাড়া জিপিএ-৪-৫ বালক ২৩২ জন, বালিকা ৩৩২ জন, মোট ৫৬৪ জন। জিপিএ-৩.৫-৪ বালক ১১০ জন, বালিকা ১৯৮ জন, মোট ৩০৮ জন। জিপিএ-৩-৩.৫ বালক ৮২ জন, বালিকা ১০৯ জন, মোট ২৪৯ জন। জিপিএ-২-৩ বালক ৫৯ জন, বালিকা ১০৩ জন, মোট ১৬২ জন। জিপিএ-১-২ বালক ৫ জন, বালিকা ৫ জন, মোট ১০ জন। অনুপস্থিত বালক ৬৫ জন, বালিকা ১১৩ জন, মোট ১৭৮ জন। পাশের হার বালক ৯৮.৬১%, বালিকা ৯৭.৭৯%। ##


সর্বশেষ সংবাদ