টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
রোহিঙ্গাদের এনআইডি কেলেঙ্কারি : নির্বাচন কমিশনের পরিচালকের বিরুদ্ধে দুপুরে মামলা, বিকালে দুদক কর্মকর্তা বদলি সড়কের কাজ শেষ হতে না হতেই উঠে যাচ্ছে কার্পেটিং! আপনি বুদ্ধিমান কি না জেনে নিন ৫ লক্ষণে ৫৫ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশি ভোটার: নিবন্ধিত রোহিঙ্গাও ভোটার! ইসি পরিচালকসহ ১১ জন আসামি হ’ত্যার পর মায়ের মাংস খায় ছেলে ব্যাংকে লেনদেন এখন সাড়ে ৩টা পর্যন্ত আগামী ১৫ জুলাই পর্যন্ত লকডাউন বাড়ল মডেল মসজিদগুলোয় যোগ্য আলেম নিয়োগের পরামর্শ র্যাবের জালে ধরা পড়লেন টেকনাফ সাংবাদিক ফোরামের সদস্য ও ইয়াবা কারবারি বিপুল পরিমাণ টাকা ও ইয়াবা উদ্ধার রোহিঙ্গাদের তথ্য মিয়ানমারে পাচার করছে জাতিসংঘ: এইচআরডব্লিউ

টেকনাফে পাঁচ হাজার লবণচাষীর ঈদ কেটেছে নিরানন্দে

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ১৬ আগস্ট, ২০১৩
  • ১২৪ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

মমতাজুল ইসলাম মনু টেকনাফ ###এবার ঈদ করতে পারেননি টেকনাফ উপজেলার অন্তত পাঁচ হাজার লবণচাষী। ফলে ঈদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন লবণ চাষে নিয়োজিত উপজেলার শ্রমিক পরিবারের দশ সহা¯্রাধিক সদস্য। জানা যায় বিগত দু’মৌসুম ধরে বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে যাওয়ায় শাহপরীরদ্বীপের প্রায় পাঁচশত একর লবণ চাষের জমি চাষের অনুপযোগী হয়ে যায়। একটি সূত্রমতে এখানে প্রতি মৌসুমে এক একর জমিতে ৮শ মণ লবণ উৎপাদন হয়। প্রতি মৌসুমে ১৬ লাখ মণ লবণ উৎপাদনের লক্ষমাত্রা থাকে। এতে পুরো উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকা থেকে এসে চাষী, ব্যবসায়ী, শ্রমিক ও পরিবহন খাতে প্রায় ১২ হাজার লোক নিয়োজিত থাকেন। দীর্ঘ সময় ধরে এ বাঁধ সংস্কার না হওয়ায় লবণের সাথে সংশ্লিষ্ট ১২ হাজার লোক বেকার হয়ে পড়েছেন বর্তমানে। এর মধ্যে ৫ সহা¯্রাধিক লবণচাষীর জীবনে নেমে এসেছে চরম অভাব অনটন। এবারের ঈদে অভাব কেড়ে নিয়েছে এসব চাষীদের ঈদের আনন্দ। টাকার অভাবে কেনাকাটা করতে না পারায় লবণচাষীরা এ বছর ঈদের আনন্দ থেকে বঞ্চিত হয়েছেন বলে জানান লবণ চাষীরা। হোয়াইক্যং, হ্নীলা, টেকনাফ, সাবরাং, বাহার ছড়া ও সেন্টমার্টিনের প্রায় প্রতিটি গ্রামের অধিক চাষীরা তাদের একমাত্র অবলম্বন লবণ উৎপাদন করে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন যুগ যুগ ধরে। লবণচাষীদের বেশীর ভাগই নেই নিজস্ব জমিজমা। যার কারণে প্রভাবশালী জমিদার, জমির মালিকদের কাছ থেকে জমি বর্গা নিয়ে লবণ চাষ করে থাকেন। দরিদ্র চাষীরা চাষে নামার আগে বিভিন্ন এনজিও সংস্থা, সুদখোর মহাজনের কাছ থেকে কর্জ করে জমি বর্গা নেন। প্রতিবছর লবণচাষীরা মোটামোটিভাবে লবণ উৎপাদন করে তাদের সুবিধামত সময়ে বিক্রি করে কোনমতে জীবিকা নির্বাহ করে এলেও গত দু’মৌসুম পড়েছেন বিপাকে। নিরবচ্ছিন্ন অভাব অনটনের কবলে পড়ে রীতিমত হিমশিম খাচ্ছেন।  শাহপরীরদ্বীপ ডাঙ্গর পাড়া গ্রামের মৃত ছৈয়দ হোছনের পুত্র নুরু লবণ চাষে একজন দক্ষ কারিগর। এ কাজে তার ১৮ বছরের অভিজ্ঞতাও রয়েছে। তার সংসারে স্ত্রী, ৩ ছেলে ও ১ মেয়ে। ছেলে-মেয়ের বয়স যথাক্রমে দেড়,৪,৭ ও ৯ বছর। লবণ চাষ দিয়েই কর্মজীবন শুরু তার। এখনো এ কাজেই লেগে আছেন। তার সাথে কথা বলে জানা গেছে-লবণ মৌসুমে কাজ করে পুরো বছর কভার করতে খুব একটা কষ্ট হয়না আমার। গত দু’মৌসুম ধরে কাজ বন্ধ থাকায় বিষম কষ্টে আছি। দিনকাল কিভাবে যে কাটে আল্লাই ভাল জানেন। সারা বছরে মুখে খাবার তো দুরের কথা গত দু’বারে ঈদে সন্তানদের গায়ে নতুন কাপড় পর্যন্ত তুলে দিতে পারিনি। ===
মমতাজুল ইসলাম মনু
টেকনাফ
মোবাইল নং-০১৮৪৩৭২৫৩৪৩

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT