টেকনাফে জেডিসিতে ‘এ+’ নেই

প্রকাশ: ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ৯:৫৫ : অপরাহ্ণ

হাফেজ মুহাম্মদ কাশেম, টেকনাফ … এবারে টেকনাফ উপজেলায় জেএসসি ও জেডিসি উভয় পরিক্ষায় পাশের হার কমেছে। জেএসসিতে ১৮টি স্কুলের ২৪৩৮ জন পরিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ২১২৬ জন পরিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছে। পাশের হার ৮৭%। গত বছর পাশের হার ছিল ৮৯%। তম্মধ্যে মাত্র ১৪ জন ‘এ+’ পেয়েছে। গত বছর ৫৩ জন ‘এ+’ পেয়েছিল। এবারে মাত্র ১টি বিদ্যালয় শতভাগ পাশ করেছে। ১২টি স্কুলের কোন শিক্ষার্থী ‘এ+’ পায়নি। গত বছর ‘এ+’ স্কুলের সংখ্যা ছিল ৬টি।
জেডিসিতে ১০টি মাদ্রাসার ৭৫৯ জন পরিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৬৬৪ জন পরিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছে। পাশের হার ৮৭.৪৮%। গত বছর পাশের হার ছিল ৯৩%। মাদ্রাসার কোন শিক্ষার্থী ‘এ+’ পায়নি। গত বছর ‘এ+’ পেয়েছিল ১৫ জন। গত বছর পাসের হার ছিল জেএসসিতে ৯৬% জেডিসিতে ৯৮%৬৫। এ বছর জেএসসি ও জেডিসি উভয় পরিক্ষায় পাশের হার কমেছে।
টেকনাফ উপজেলা একাডেমিক সুপারভাইজার মোহাম্মদ নুরুল আবছার জানান, টেকনাফ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২৮৩ জন শিক্ষার্থী পরিক্ষায় অংশ গ্রহন করে ২৩১ জন পাশ করেছে। তম্মধ্যে ‘এ+’ পেয়েছে ১ জন, ফেল ৫২ জন। পাশের হার ৮২%। টেকনাফ এজাহার সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৯৫ জনের মধ্যে ৭৭ জন পাশ করেছে। ফেল ১৮ জন। পাশের হার ৮১%। হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৯৮ জন থেকে ১৮৮ জন পাশ করেছে। তম্মধ্যে ৫ জন ‘এ+’ পেয়েছে, ফেল ১০ জন। পাশের হার ৯৫%। হ্নীলা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ১২৬ জন অংশ গ্রহন করে ১০৬ জন পাশ করেছে। তম্মধে ২ জন ‘এ+’ পেয়েছে। ফেল করেছে ২০ জন। পাশের হার ৮৪%। হোয়াইক্যং আলহাজ্ব আলী আছিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৯৯ জন পরিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১৫৩ জন পাস করেছে। ফেল ৪৬ জন। পাশের হার ৭৭%। নয়াবাজার উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ২৪৯ জন অংশ গ্রহন করে ২৩৪ জন পাশ করেছে। তম্মধ্যে ২ জন ‘এ+’ পেয়েছে, ফেল ১৫ জন। পাশের হার ৯৪%। শামলাপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৮২ জন অংশ গ্রহন করে ১৭৩ জন পরিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছে। ফেল ৯ জন। পাশের হার ৯৫%। সাবরাং উচ্চ বিদ্যালয়ের ১৩৭ জন পরিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১৩৪ জন পাস করেছে। ফেল ৩ জন। পাশের হার ৯৮%। নয়াপাড়া হাজী নবী হোছন উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০৮ জন অংশ গ্রহন করে ৭০ জন পাস করেছে। ফেল ৩৮ জন। পাশের হার ৬৫%। শাহপরীরদ্বীপ হাজী বশির আহমদ উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৯৯ জন পরিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৯৩ জন পাস করেছে। ফেল করেছে ৬ জন। পাশের হার ৯৪%। সেন্টমার্টিন বিএন ইসলামিক উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৬১ জন পরিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৩৫ জন পাশ করেছে। ফেল ২৬ জন। কাঞ্জরপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৭১ জন পরিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১৬১ জন পাশ করেছে। ফেল ১০ জন। পাশের হার ৯৪%। লম্বরী মলকাবানু উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৩৮ জন পরিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১২২ জন পাশ করেছে। ফেল ১৬ জন। পাশের হার ৮৮%। মারিশবনিয়া এসইএসডিপি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ৫৩ জন পরিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৪৩ জন পাশ করেছে। ফেল ১০ জন। পল্লান পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ৪৭ জন অংশ গ্রহন করে ৪৩ জন পাশ করেছে। ফেল ৪ জন। বর্ডার গার্ড-পাবলিক স্কুলের ৫৬ জন পরিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে ৩ জন ‘এ+’ সহ শতভাগ পাশ করেছে। লেদা জুনিয়র উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১২৬ জন পরিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১০৫ জন পাশ করেছে। তম্মধ্যে ১ জন ‘এ+’ পেয়েছে, ফেল ২১ জন। পাশের হার ৮৩%। নাইক্ষ্যংখালী জুনিয়র উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১১০ জন পরিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ১০২ জন পাশ করেছে। ফেল ৮ জন। পাশের হার ৯৩%।
জেডিসিতে ১০টি মাদ্রাসার ৭৫৯ জন পরিক্ষার্থী অংশ গ্রহন করে ৬৬৪ জন পরিক্ষার্থী উত্তীর্ণ হয়েছে। পাশের হার ৮৭.৪৮%। তম্মধ্যে কোন মাদ্রাসাই শতভাগ পাশ করেনি। রঙ্গীখালী দারুল উলুম ফাজিল মাদ্রাসার ১৭৫ জন পরিক্ষার্থীর মধ্যে ১৬৩ পাশ করেছে। ফেল ১২ জন। পাশের হার ৯৩%। হ্নীলা শাহ মজিদিয়া আলিম মাদ্রাসার ৭০ জন পরিক্ষার্থীর মধ্যে পাশ করেছে ৫৩ জন। ফেল ১৭ জন। পাশের হার ৭৬%। মৌলভীবাজার জমিরিয়া দারুল কুরআন আলিম মাদ্রাসার ৬৬ জন পরিক্ষার্থীর মধ্যে ৫৬ জন পাশ করেছে। ১০ জন ফেল। পাশের হার ৮৫%। গোদারবিল বায়তুশশরফ মুহাম্মদিয়া রিয়াজুল জন্নাহ দাখিল মাদ্রাসার ৯৭ জন পরিক্ষার্থীর মধ্যে ৯৩ জন পাশ করেছে। ৪ জন ফেল। পাশের হার ৯৬%। বাহারছড়া তাফহীমুল কুরআন দাখিল মাদ্রাসার ৬২ জন পরিক্ষার্থীর মধ্যে ৬০ জন পাস করেছে। ফেল ২ জন। পাশের হার ৯৭%। মহেশখালীয়াপাড়া বাহারুল উলুম দাখিল মাদ্রাসার ৬৩ জন পরিক্ষার্থীর মধ্যে ৫২ জন পাশ এবং ১১ জন ফেল করেছে। পাশের হার ৮৩%। রঙ্গীখালী খদিজাতুল কুবরা মহিলা মাদ্রাসার ৭০ জন পরিক্ষার্থীর মধ্যে ৪৯ জন পাশ এবং ২১ জন ফেল করেছে। পাশের হার ৭০%। মহেশখালীয়াপাড়া দারুত তওহীদ বালিকা মাদ্রাসার ৫৯ জন পরিক্ষার্থীর মধ্যে ৪৯ জন পাশ করেছে। ফেল ১০ জন। পাশের হার ৮৩%। কাটাখালী রওজতুন্নবী (সাঃ) দাখিল মাদ্রাসার ৫৪ জন পরিক্ষার্থীর মধ্যে ৪৭ জন পাশ করেছে। ফেল ৭ জন। পাশের হার ৮৭%। শামলাপুর দারুল ইসলাম মাদ্রাসার ৪৩ জন পরিক্ষার্থীর মধ্যে ৪২ জন পাশ করেছে। ফেল ১ জন। পাশের হার ৯৮%।

শতভাগ পাস স্কুল ও মাদ্রাসা :
জেএসসিতে শতভাগ পাশ করা একমাত্র স্কুল হচ্ছে বর্ডার গার্ড-পাবলিক স্কুল। স্কুলটি সাফল্যের ধারাবাহিকতা এবছরও অক্ষুন্ন রেখেছে।

‘এ+’ বিহীন স্কুল ও মাদ্রাসা :
এবারের জেএসসি ও জেডিসি পরিক্ষায় ‘এ+’ বিহীন স্কুল হচ্ছে ১২টি এবং মাদ্রাসা হচ্ছে ৭টি। স্কুলগুলো হলো টেকনাফ এজাহার সরকারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, হোয়াইক্যং আলহাজ্ব আলী আছিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, শামলাপুর উচ্চ বিদ্যালয়, সাবরাং উচ্চ বিদ্যালয়, নয়াপাড়া হাজী নবী হোছন উচ্চ বিদ্যালয়, শাহপরীরদ্বীপ হাজী বশির আহমদ উচ্চ বিদ্যালয়, সেন্টমার্টিন বিএন ইসলামিক উচ্চ বিদ্যালয়, লম্বরী মলকাবানু উচ্চ বিদ্যালয়, কাঞ্জরপাড়া হাইস্কুল, মারিশবনিয়া এসইএসডিপি উচ্চ বিদ্যালয়, পল্লান পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, নাইক্ষ্যংখালী জুনিয়র উচ্চ বিদ্যালয়।
মাদ্রাসাগুলো হলো রঙ্গীখালী দারুল উলুম ফাজিল মাদ্রাসা, হ্নীলা শাহ মজিদিয়া আলিম মাদ্রাসা, মৌলভীবাজার জমিরিয়া দারুল কুরআন আলিম মাদ্রাসা, গোদারবিল বায়তুশশরফ মুহাম্মদিয়া রিয়াজুল জন্নাহ দাখিল মাদ্রাসা, বাহারছড়া তাফহীমুল কুরআন দাখিল মাদ্রাসা, মহেশখালীয়াপাড়া বাহারুল উলুম দাখিল মাদ্রাসা, রঙ্গীখালী খদিজাতুল কুবরা মহিলা মাদ্রাসা, মহেশখালীয়াপাড়া দারুত তওহীদ বালিকা মাদ্রাসা, কাটাখালী রওজতুন্নবী (সাঃ) দাখিল মাদ্রাসা, শামলাপুর দারুল ইসলাম মাদ্রাসা। ##


সর্বশেষ সংবাদ