টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফে ছদর সাহেব হুজুরের নামাজে জানাযায় লাখো মানুষের ঢল

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই, ২০১৩
  • ২৫৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

Teknaf Pic-25-07-13মুহাম্মদ জুবাইর, টেকনাফ:::: জানাজা’য় লাখো মানুষের অংশ গ্রহনে বিশ্বের অগনিত ভক্ত, অনুরক্ত, ছাত্র ও মুরিদানকে শোক সাগরে ভাসিয়ে আধ্যাত্মিক জগতের শাহিনশাহ আজিজিয়া বাগানের সর্বশেষ পুষ্প উপমহাদেশের প্রখ্যাত আলেমেদ্বীন টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা আল-জামিয়াতুল ইসলামিয়া দারুস সুন্নাহর শায়খুল হাদিস পীরে কামেল আল্লামা শাহ মোহাম্মদ ইছহাক প্রকাশ ছদর সাহেব হুজুর(রহঃ)বৃহস্পতিবার ২৫ জুলাই দুপুরে চির নিদ্রায় শায়িত হলেন। নামাজে জানাযার পর হ্নীলা পূর্ব পানখালী প্রাচীন গোরস্থানের উত্তরাংশে জামেয়া দারুস সুন্নাহর প্রয়াত মুহতামিম শাহ আবুল মঞ্জুর(রহঃ)এর পাশে দাফন করা হয়েছে। টেকনাফের ইতিহাসে সর্ব বৃহৎ নামাজে জানাজার ইমামতি করেন হুজুরের সাহেবজাদা জামেয়া দারুস সুন্নাহর শিক্ষক মাও. আব্দুর রহমান। দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে গাড়ী রিজার্ভ করে এসে জানাযা নামাজে অংশ গ্রহন করেন।এতো বেশী মানুষের সমাগম সামাল দিতে জানাযার নামাজের স্থান মাদ্রাসা থেকে সামান্য উত্তরে উম্মুক্ত লবণ মাঠে করা হয়েছে। এমনকি দুপুর আড়াইটায় জানাযার নামাজের পূর্ব নির্ধারিত সময় হলেও দুপুর দেড়টা থেকে সোয়া তিনটা পর্যন্ত প্রধান সড়কে যানবাহন চলাচল বন্ধ ছিল। জানাযার নামাজের আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সাংসদ আব্দুর রহমান বদি, সাবেক সাংসদ শাহজাহান চৌধুরী ও অধ্যাপক মোঃ আলী, চট্টগ্রাম দারুল মা’আরিফ আল ইসলামিয়ার প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও বাংলাদেশ ইত্তেহাদুল মাদারিস এর সভাপতি আল্লামা সুলতান যওক নদভী, সেক্রেটারী ও জামেয়া পটিয়ার প্রধান মুফতি আল্লামা মুফতি শামসুদ্দিন জিয়া, আল্লামা আবু ওফা শমসী, আল্লামা হাফেজ হারুনর রশিদ, টেকনাফ উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ শফিক মিয়া, উখিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান এড. শাহজালাল চৌধুরী, হোয়াইক্যং মডেল ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ নুর আহমদ আনোয়ারী, হ্নীলা ইউপি চেয়ারম্যান মাষ্টার মীর কাসেম, সাহেবজাদা মাও. হাবিবুর রহমান, জামেয়া দারুস সুন্নাহ’র নির্বাহী মুহতামিম মাও. মোঃ আফসার উদ্দীন চৌধুরী।উল্লেখ্য ৮ জুলাই আছরের নামাজের জন্য অজুরত অবস্থায় আকস্মিক ঢলে পড়েন। সে থেকে তাঁর শারিরীক অবস্থার অবনতি ঘটলে ১৬ জুলাই মঙ্গলবার গুরুতর অবস্থায় তাঁকে চট্টগ্রামের একটি কিনিকে ভর্তি করা হয়।গত  কিছুদিন তাঁকে চট্টগ্রামের সিএইচসিআর কিনিকের আইসিইউতে নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। বুধবার ২৪ জুলাই দুপুর আড়াইটায় চট্টগ্রামের সিএইচসিআর হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৭ বছর। তিনি ১ স্ত্রী, ৯ পুত্র, ৬ মেয়ে নাতি-নাতনি ও দেশে বিদেশে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা অসংখ্য ছাত্র ও ভক্ত – মুরিদান রেখে যান। রাতে তাঁর মরদেহ সর্বপ্রথম পটিয়া মাদ্রাসায় আনা হয়। সেখানে তাঁকে গোসল ও কাফন পরানোর পর রাতেই গ্রামের বাড়ী টেকনাফের হ্নীলা পূর্ব সিকদার পাড়া আনা হয়। সেই রাত থেকেই হুজুরকে এক নজর দেখার জন্য মানুষের ঢল নামে। যা জানাযার আগ পর্যন্ত অব্যাহত ছিল।

 

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT