টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

টেকনাফের হ্নীলায় ভূয়া রোহিঙ্গা ডেন্টাল চিকিৎসক ঃ প্রতারিত হচ্ছে সাধারণ জনগণ

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : শনিবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৩
  • ২৫৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

Teknaf pic-(A)-14-09-2013জসীম উদ্দিন টিপু,টেকনাফ::::টেকনাফের হ্নীলায় এক বর্মী নাগরিকের ডেন্টাল চিকিৎসার নামে ধোকাবাজি দিয়ে হাজার হাজার টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। জানাগেছে, অক্ষর জ্ঞানহীন, সনদবিহীন অপ্রশিক্ষিত, কোন প্রকার ট্রেনিং ছাড়া, যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদনবিহীন বাহারী সাইন বোর্ড লাগিয়ে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের মাধ্যমে উন্নত মানের দন্ত ও টিউমারের চিকিৎসা দেওয়ার নামে চেম্বার বসিয়ে প্রতারণা করে যাচ্ছে। হ্নীলা ষ্টেশনে দিবারাত্রী এ হাতুড়ে ডাক্তারের অপচিকিৎসায় সাধারণ রোগীরা অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। সাইন বোর্ড লাগিয়েছে এক জনের নামে চিকিৎসা দিচ্ছে আরেক জন। আবার যে চিকিৎসা দিচ্ছে সে নিজেই রোগীর ব্যবস্থাপত্র লিখতে না পারলেও নয়-ছয় করে টাকা ঠিকই হাতিয়ে নিচ্ছে। এতে বাজার কমিটি, ইউনিয়ন উপ স্বাস্থ্য কেন্দ্রে কর্মরত ডাক্তার সহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোন প্রকার খেয়াল নেই। কর্তৃপক্ষের উদাসীনতায় এ প্রতারক যুবক দন্ত চিকিৎসার নামে হ্নীলার  সাধারণ রোগীদের মন গলানো উক্তি “উন্নত প্রযুক্তিতে টিউমার ও দন্ত” সেবা দেওয়ার নাম ভাঙ্গিয়ে“বশির ডেন্টাল কেয়ার” নামে মিনি কিনিকে রোহিঙ্গা মহিলাদের অবৈধ কাজে ব্যবহার করছে বলেও গুরুতর অভিযোগ উঠছে। ডেন্টাল কেয়ারটিতে বড় বড় ডাক্তারের নাম ব্যবহার করলেও আসলে এখানে চিকিৎসা দিচ্ছে কেবল লেদা রোহিঙ্গা টালের “এ” ব্লকের খাইরুল বশির নামের এক বর্মী নাগরিক। এতে গ্রামীণ সাধারণ মানুষ চিকিৎসার নামে প্রতারিত হলেও মার্কেট মালিক, বাজার কমিটি সহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসন কাজের কাজ না করায় দিন দিন উক্ত ভূয়া বর্মী চিকিৎসক আরো বেপরোয়া হয়ে উঠছে। জেলার এমন কোন এলাকা নেই যে উক্ত ভূয়া বর্মী ডেন্টিষ্ট প্রতারণা করেনি। প্রতারণা করতে করতে সে এখন হ্নীলার সহজ সরল মানুষদের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। হ্নীলা ষ্টেশনের “ভাই ভাই সুপার মার্কেটে” আল বারাকা ফার্মেসীর দক্ষিণ পাশের কক্ষে নামে বশির ডেন্টাল কেয়ার হলেও আসলে এখানে জমে রোহিঙ্গা নেতাদের আড্ডা। চলে দেশ বিরোধী নানান চক্রান্ত। স্থানীয় কতিপয় প্রভাবশালীর নাম ভাঙ্গিয়ে খাইরুল বশর নামের এই ভূয়া চিকিৎসক যে অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে তাতে প্রকৃত ডাক্তারী পেশার সেবকদের সুনাম ক্ষুন্ন হচ্ছে। ক্ষুন্ন হচ্ছে চেম্বারের অনুমোদন তথা ট্রেড লাইসেন্স প্রদানকারী প্রতিষ্টানের। কোন প্রকার তদন্ত না করেই একজন বর্মী নাগরিক কি করে পৌর ও ইউনিয়ন পরিষদের ট্রেড লাইসেন্স পাই তা সচেতন এলাকাবাসীদের ভাবিয়ে তুলছে। এ ব্যাপারে হ্নীলার ইউপি চেয়ারম্যান মাষ্টার মীর কাশেম জানান, কোন বার্মাইয়্যা নাগরিক ইউনিয়ন পরিষদের ট্রেড লাইসেন্স পাওয়ার কোন অধিকার রাখেনা। কেউ তথ্য গোপন করে কারো সহযোগীতায় এধরণের লাইসেন্স নিয়ে চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা দিয়ে থাকলে তার বিরুদ্ধে শক্ত আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি ইউপি কার্য্যালয়ে গিয়ে তদন্ত সাপেক্ষ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিচ্ছেন বলে এ প্রতিবেদককে জানান। টেকনাফ মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) দিদারুল ফেরদৌস জানান, রোহিঙ্গা কর্তৃক এধরণের চেম্বার করার কোন প্রশ্নই আসেনা। দ্রুতই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবে পুলিশ। এব্যাপারে হ্নীলার সর্বস্তরের জনসাধারণ জরুরী ভিত্তিতে উক্ত ভূয়া নাগরিক কর্তৃক অবৈধ চেম্বারের মাধ্যমে চিকিৎসার নামে অপচিকিৎসা, সেবার নামে রোহিঙ্গা মহিলাদের আস্তানায় অভিযান চালিয়ে জরুরী ভিত্তিতে দৃষ্টান্তমূলক পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ########

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT