টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

জামায়াতের নিবন্ধন নিয়ে রায় কাল

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ৩১ জুলাই, ২০১৩
  • ১৯১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

gggg

রাজনৈতিক দল হিসেবে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধনের বৈধতা নিয়ে করা রিটের রায়ের জন্য এটি কার্যতালিকায় এসেছে। কার্যতালিকা অনুসারে কাল বৃহস্পতিবার বেলা দুইটায় রায় ঘোষণা করার কথা।

আজ বুধবার প্রকাশিত হাইকোর্টের কার্যতালিকায় দেখা যায়, বিচারপতি এম মোয়াজ্জাম হোসেন, বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি কাজী রেজা-উল হকের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ আগামীকাল বেলা দুইটা থেকে তিনটা ১৫ মিনিট পর্যন্ত অ্যানেক্স ২৪ নম্বর বিচারকক্ষে বসবেন। ওই দিন রায় দেওয়ার জন্য রিট আবেদনটি কার্যতালিকায় রয়েছে।

রাজনৈতিক দল হিসেবে জামায়াতে ইসলামীকে দেওয়া নিবন্ধনের বৈধতা প্রশ্নে রুলের ওপর চূড়ান্ত শুনানি গত ১২ জুন শেষ হয়। ওই দিন তিন বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চ শুনানি গ্রহণ শেষে বিষয়টি রায়ের জন্য অপেক্ষমাণ (সিএভি) রাখেন।

রাজনৈতিক দল হিসেবে জামায়াতকে নির্বাচন কমিশনের দেওয়া নিবন্ধনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে ২০০৯ সালে রিট আবেদন করেন তরিকত ফেডারেশনের তত্কালীন মহাসচিব সৈয়দ রেজাউল হক চাঁদপুরীসহ ২৫ জন বিশিষ্ট ব্যক্তি। প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ওই বছরের ২৫ জানুয়ারি হাইকোর্টের একটি দ্বৈত বেঞ্চ রুল জারি করেন।

রুলে রাজনৈতিক দল হিসেবে ২০০৮ সালের ৪ নভেম্বর বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর নিবন্ধন গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের ৯০বি (১)(বি)(২) এবং ৯০সি অনুচ্ছেদের সঙ্গে সাংঘর্ষিক ও সংবিধান-পরিপন্থী ঘোষণা করা হবে না কেন, তা জানতে চাওয়া হয়। জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদ, মতিউর রহমান নিজামী, নির্বাচন কমিশনসহ চার বিবাদীকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়।

সংশ্লিষ্ট অনুচ্ছেদগুলোতে কোনো রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন ও নিবন্ধনীকরণের যোগ্য না হওয়ার বিষয়ে বলা আছে। এই রুলের ওপর ১২ জুন পর্যন্ত নয় কার্যদিবস শুনানি হয়।

চলতি বছরের ১৮ ফেব্রুয়ারি রিট আবেদনকারী পক্ষ উপযুক্ত বেঞ্চ গঠনের জন্য প্রধান বিচারপতির কাছে আবেদন করে। এর পরিপ্রেক্ষিতে গত ৫ মার্চ আবেদনটি বিচারপতি এম মোয়াজ্জাম হোসেনের নেতৃত্বাধীন দ্বৈত বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠানো হয়। ১০ মার্চ সাংবিধানিক ও আইনের প্রশ্ন জড়িত থাকায় বৃহত্তর বেঞ্চে শুনানির প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে আবেদনটি প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠানোর আদেশ দেন দ্বৈত বেঞ্চ। ওই দিন প্রধান বিচারপতি তিন বিচারপতির সমন্বয়ে বৃহত্তর বেঞ্চ গঠন করে দেন।

আদালতে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী তানিয়া আমীর। নির্বাচন কমিশনের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মহসীন রশিদ; সঙ্গে ছিলেন আইনজীবী তৌহিদুল ইসলাম। জামায়াতের পক্ষে শুনানি করেন আবদুর রাজ্জাক। তাঁকে সহায়তা করেন আইনজীবী বেলায়েত হোসেন।

শুনানিতে আইনজীবী তানিয়া আমীর বলেন, যে গঠনতন্ত্রের ওপর ভিত্তি করে জামায়াতে ইসলামীকে নিবন্ধন দেওয়া হয়েছিল, তা ছিল নিবন্ধনের অযোগ্য। তাই নিবন্ধনের পর ওই গঠনতন্ত্র সংশোধনের সুযোগ নেই। জামায়াতের নিবন্ধন সংবিধানের ৭ ও ২৬ নম্বর অনুচ্ছেদের পরিপন্থী। সংবিধানে রাজনৈতিক দল করার মৌলিক অধিকার দেওয়া হয়েছে। তবে কোনো দলের গঠনতন্ত্র সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক হলে, দলের নীতিতে ধর্ম-বর্ণ-লিঙ্গবৈষম্য থাকলে সংগঠন বা রাজনৈতিক দল করা যাবে না। তিনি বলেন, সংবিধানের মূল বক্তব্য হলো সব ক্ষমতার মালিক জনগণ। কিন্তু জামায়াতের গঠনতন্ত্র সংবিধানের এই ধারার সঙ্গে সাংঘর্ষিক। জামায়াতের জন্ম হয়েছে ভারতে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে দলটির শাখা রয়েছে। তাই ইসি দলটিকে নিবন্ধন দিতে পারে না।

আইনজীবী আবদুর রাজ্জাক বলেন, এখনো নিবন্ধনের বিষয়ে ইসি পরিপূর্ণ কোনো সিদ্ধান্তে আসেনি। তারা কোনো সিদ্ধান্ত দেওয়া না পর্যন্ত রিট আবেদনটি অপরিপক্ব। তিনি বলেন, ২০১২ সালে ইসি একটি স্মারক তৈরি করে। সেখানে মাত্র দুটি রাজনৈতিক দল আওয়ামী লীগ ও জাসদ ছাড়া বাকি সব দলের গঠনতন্ত্র ছিল ত্রুটিপূর্ণ। তাই জামায়াতের নিবন্ধন বাতিল করতে হলে বাকি ১০টি রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বাতিল করার প্রয়োজন হবে। তিনি বলেন, রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বিষয়ে ২০০৮ সালে আইন হয়। এ আইন পরিপূর্ণ নয়। পাকিস্তানে রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন নিয়ে আইন হয়েছিল। কিন্তু সেটা পরিপূর্ণ না হওয়ায় সে দেশের আদালত নিবন্ধন আইন বাতিল ও অবৈধ বলে রায় দিয়েছেন।

আইনজীবী মহসীন রশিদ বলেন, ২০০৮ সালের ৪ নভেম্বর জামায়াতে ইসলামীকে সাময়িক নিবন্ধন দেওয়া হয়। ওই সময় সংবিধানে আল্লাহর ওপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস, বিসমিল্লা হির রহমানির রাহিম ও রাষ্ট্রধর্ম ইসলামের কথা ছিল। তখনকার পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে সাময়িক নিবন্ধন দেওয়া হয়। গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করতে সব দলের অংশগ্রহণের মাধ্যমে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে তখন ইসি সিদ্ধান্ত নেয়। তখন ইসির সিদ্ধান্ত সঠিক ছিল। সংবিধানের পঞ্চদশ সংশোধনী হয়েছে জামায়াতকে সাময়িক নিবন্ধন দেওয়ার অনেক পরে।

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT