চট্টগ্রাম থেকে যশোর হয়ে ভারতে ঢুকছে ইয়াবা

প্রকাশ: ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ১১:০৫ : অপরাহ্ণ

টেকনাফ নিউজ ডেক্স::  প্রথমে চট্টগ্রাম থেকে সংগ্রহ করা হয় ইয়াবা, তারপর কভার্ড ভ্যানে মালামালের আড়ালে সেগুলো যশোরের বেনাপোলে নিয়ে সীমান্ত পার করে দেওয়া হয়। ইয়াবার কারবারের নতুন এ পথটির হদিস পেয়েছে পুলিশ।

পুলিশ বলছে, প্রায় মাসখানেক আগে চট্টগ্রামের দেওয়ান হাট মোড়ে ফ্লাইওভার থেকে নিচে ফেলে দেওয়া ইয়াবাভর্তি ব্যাগের রহস্য খুঁজতে গিয়েই খোঁজ মিলেছে ইয়াবা পাচারচক্রের।

ওই ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ জয়নাল আবেদীন (৪৮) নামের এক কভার্ড ভ্যান চালককে গ্রেপ্তার করার পর তার কাছ থেকে জানতে পেরেছে ইয়াবা পাচারের আদ্যোপান্ত।

যশোরের বেনাপোলের বাসিন্দা জয়নাল চট্টগ্রাম-যশোর পথে কভার্ড ভ্যান চালান।

গত ২৯ অগাস্ট নগরীর দেওয়ান হাট মোড়ে ফ্লাইওভার থেকে নিচের রাস্তায় ফেলে দেওয়া হয় একটি চটের ব্যাগ। পরে ঘটনাস্থলে দায়িত্বরত ট্রাফিক ও থানা পুলিশ সদস্যরা ব্যাগ থেকে ৪০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার করেন।

ওই ঘটনায় পুলিশ অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে মামলা করে ডবলমুরিং থানায়। মামলার তদন্ত করতে গিয়ে সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে পুলিশ শনাক্ত করে একটি কভার্ড ভ্যান থেকে ফেলা হয়েছিল ইয়াবা ভর্তি ব্যাগটি।

ডবলুমলিং থানার ওসি সদীপ কুমার দাশ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “শনাক্তের পর আমরা শুক্রবার রাত পৌনে একটার দিকে পাহাড়তলীর গ্রিন ভিউ আবাসিক এলাকার রাস্তা থেকে চালকসহ ঢাকা মেট্রো ট-২২- ০১০১ নম্বরের কভার্ড ভ্যানটি আটক করি। থানায় এনে তাকে জিজ্ঞাসাবাদে সে পুরো ঘটনার বর্ণনা দিয়েছে।”

এই কভার্ড ভ্যানে করেই চট্টগ্রাম থেকে ইয়াবা যশোরে নিয়ে যেতেন জয়নাল

গ্রেপ্তার জয়নাল শনিবার চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম আবু সালেম মো. নোমানের আদালতে জবানবন্দিও দিয়েছেন বলে জানান ওসি।ওসি সদীপ বলেন, “জয়নাল জানিয়েছে, তার কভার্ড ভ্যানের মালিক বেনাপোলের হজরত আলী নামের এক ব্যক্তি। মালিকের পরামর্শে গত কয়েক মাসে সে তিনবার চট্টগ্রাম থেকে ইয়াবা নিয়েছে বেনাপোলে। গত ২৯ অগাস্টও সে নগরীর মাদার বাড়ি থেকে সে ইয়াবা নিয়ে বেনাপোল যাচ্ছিল।

“জয়নাল বলেছে, মালিকের পরামর্শে সে চট্টগ্রামের শাহীন নামের এক ব্যক্তির কাছ থেকে ইয়াবা সংগ্রহ করে বেনাপোল যেত। ২৯ অগাস্ট একইভাবে সে চট্টগ্রাম থেকে যশোর যাচ্ছিল। তার আগে শাহীন তার সাথে টেলিফোনে যোগাযোগ করে চারটি প্যাকেটে ৪০ হাজার ইয়াবা দিয়েছিল হজরত আলীকে দেওয়ার জন্য।”

ওসি বলেন, “ঘটনার দিন জয়নালের ছেলে ছিল কভার্ড ভ্যানের চালকের আসনে, আর সে ছিল পাশের আসনে। ফ্লাইওভার দিয়ে অলঙ্কারের দিকে যাওয়ার সময় দেওয়ান হাটে একটি মাইক্রোবাস থেকে কভার্ড ভ্যানটি থামানোর সংকেত দেওয়া হয়েছিল। মাইক্রোবাসটিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা রয়েছে ভেবে সে গাড়ি থেকে ইয়াবা ভর্তি ব্যাগ থেকে রাস্তায় ফেলে দেয়।”

পরে কয়েকজন লোক মনসুরাবাদ এলাকায় তার কভার্ড ভ্যান তল্লাশি করে কিছু না পেয়ে ছেড়ে দেয় বলেও পুলিশকে জানিয়েছেন জয়নাল।

ওসি সদীপ বলেন, “জয়নাল জানিয়েছে এর আগে প্রতিবার ইয়াবা পৌঁছে দেওয়ার বিনিময়ে মালিক তাকে ২০ হাজার টাকা করে দিয়েছে। কভার্ড ভ্যানের মালিক হজরত আলী চট্টগ্রামে থেকে আনা ইয়াবাগুলো বেনাপোল সীমান্ত দিয়ে ভারতে জালাল উদ্দিন নামের এক ব্যক্তিকে পৌঁছে দেন।”

চট্টগ্রাম থেকে বেনাপোল ইয়াবা নেওয়ার সময় জয়নালের ছেলে আব্দুল্লাহ চট্টগ্রামের ইয়াবা কারবারি শাহীনের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করত বলেও জয়নাল পুলিশকে জানিয়েছেন।


সর্বশেষ সংবাদ