টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!

ঘুমের ওষুধ খাইয়ে ঠান্ডা মাথায় পুলিশ দম্পতিকে খুন! :বান্ধবী তৃষাসহ আটক ৬

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৩
  • ১৭১ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

sb_11

পরিবর্তন##পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের (এসবি পলিটিক্যাল শাখা) নিহত ইন্সপেক্টর মাহফুজুর রহমান ও তার স্ত্রী স্বপ্না রহমানের মেয়ে ঐশিকে নিয়ে অভিযানে বেরিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ। সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত পুলিশ ঐশির বান্ধবী তৃষা ও কাজের মেয়ে সুমিসহ ৬ জনকে আটক করেছে। তাদের গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়েছে।

পল্টন থানায় মামলা করেছেন নিহত পুলিশ কর্মকর্তার ভাই।

ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম-কমিশনার মনিরুল ইসলাম জানান, বেলা সাড়ে তিনটার দিকে ঐশিকে নিয়ে অভিযান শুরু করে পুলিশ।

পুরান ঢাকার গেন্ডারিয়াসহ আশপাশের এলাকায় অভিযান চালিয়ে ঐশির পরিচিত বা হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চালানো হবে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

এর আগে, শনিবার দুপুর আড়াইটায় পল্টন থানায় আত্মসমর্পণ করার পর তাকে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

শুক্রবার রাজধানীর মালিবাগের চামেলিবাগে ‘চামেলি ম্যানশনের’ ছয় তলা থেকে উদ্ধার করা হয় পুলিশ দম্পতির ক্ষতবিক্ষত দেহ। ঘটনার পর থেকেই ওই দম্পতির বড় মেয়ে ঐশি (১৭) নিখোঁজ ছিলেন।

শনিবার সকালে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তারা বলেছিলেন, ঐশির নিখোঁজ থাকাটা রহস্যজনক।

হত্যার রহস্য উদঘাটনে দুইটি বিষয়কে সামনে রেখে তদন্ত করছেন পুলিশ। এ খুনের রহস্য উদঘাটনে র‍্যাব-পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার একাধিক টিম মাঠে কাজ করছে বলে জানিয়েছে গোয়েন্দা সূত্র।

শনিবার দুপুরে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম-কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেন, “বাবা মায়ের মৃত্যুর খবর শুনে ঐশি ফিরে না আশা এবং তার নিখোঁজ থাকা রহস্যজনক বলে মনে হচ্ছে। মেয়েকে খুঁজে পাওয়া গেলেই খুনের রহস্য উম্মোচিত হবে।”

তিনি বলেন, “এতো বড় একটা ঘটনার পরে তাকে কেউ জোর করে আটকে রাখা ছাড়া বাসায় না ফেরার কথা না। তবে লোক মুখে শুনেছি ঐশিও বাবা-মায়ের অবাধ্য সন্তান ছিলো।”

তিনি বলেন, “গোয়েন্দা পুলিশ দুইটি বিষয়কে মাথায় রেখে রহস্য উদঘাটনে কাজ করছে। ব্যক্তিগত বিরোধ, অর্থিক লেনদেন ও পারিবারিক বিরোধ এবং তার কাজের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত কোন লোকজন জড়িত কিনা তা ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে। এছাড়া বাসার মূল্যবান স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা পয়সা যে সব আলমিরাতে থাকে তা ভাঙ্গা ও বেশ কিছু লকার খালি পাওয়া গেছে। যে কারণে দস্যূতার বিষয়ও মাথায় রেখে তদন্ত করা হচ্ছে।”

ডিবি কার্যালয় সূত্র জানিয়েছে, সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা নাগাদ ঐশিকে নিয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করবে গোয়েন্দা পুলিশ।

পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের (এসবি পলিটিক্যাল শাখা) ইন্সপেক্টর মাহফুজুর রহমান ও তার স্ত্রী স্বপ্না রহমানের হত্যাকান্ডে মেয়ে ঐশি রহমানের জড়িত থাকার প্রাথমিক সম্পৃক্ততা মিলেছে বলে দাবি করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। গোয়েন্দা পুলিশ জানায়, পুলিশ দম্পতিকে হত্যার আগে কফির সাথে চেতনা নাশক খাইয়ে আনাড়ি হাতে ঠান্ডা মাথায় খুন করা হয়।

শনিবার রাত সাড়ে আটটার দিকে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই দাবি করেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম।

মনিরুল বলেন, “ঐশি রহমান খুনের সাথে জড়িত বলে প্রাথমিক ভাবে আমরা নিশ্চিত হয়েছি। তবে সে তার অবস্থান বারবার পরিবর্তন করছে। আমরা ঐশি, ওহী এবং তার ঘনিষ্ঠ বন্ধুকে জিজ্ঞাসাবাদ করে যে অংশগুলো মিলছে সেগুলো নিয়ে অনুসন্ধান অব্যাহত রেখেছি। আশা করছি আগামীকাল পুরোপুরি নিশ্চিত করে বলতে পারবো।”

ঐশির কাছ থেকে দুটি ব্যাগ উদ্ধার করেছে পুলিশ। উদ্ধার হওয়া ব্যাগ থেকে হারিয়ে যাওয়া বেশকিছু স্বর্ণালঙ্কারও উদ্ধার করে পুলিশ।

সাংবাদিক সম্মেলনে ঐশি রহমানকে উপস্থিত করার কথা থাকলেও তদন্তের স্বার্থে তাকে উপস্থিত করা হয়নি। আটককৃত ঐশির ঘনিষ্ঠ বন্ধুর নাম নিয়ে অসংলগ্নতা পাওয়া গেছে বলে জানান পুলিশের যুগ্ম কমিশনার। তিনি জানান, “ঐশি বলছে তার বন্ধুর নাম রনি অন্যদিকে ওহী বলেছে তার নাম জনি।”

মনিরুল বলেন, “আমরা ধারণা করছি কফির সাথে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অচেতন করে ঠান্ডা মাথায় তাদের হত্যা করা হয়।”

এ ঘটনার জন্য রনি ওরফে জনিকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন মহানগর পুলিশের (গোয়েন্দা) মিডিয়া সেন্টারে উপ-কমিশনার মাসুদুর রহমান এবং মহানগর পুলিশের সহ-কমিশনার আবু ইউসুফ।

বর্তমানে পুলিশ হেফাজতে ঐশি, ওহী, কাজের মেয়ে সুমি, ঐশির ঘনিষ্ঠ বন্ধু রনি ওরফে জনিসহ মোট ছয় জনের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। পুলিশ আশা করছে আগামীকাল রোববারের মধ্যে এই হত্যাকান্ডের প্রকৃত খুনীদের চিহ্নিত করা সম্ভব হবে।

শুক্রবার রাজধানীর মালিবাগের চামেলিবাগে ‘চামেলি ম্যানশনের’ ছয় তলা থেকে উদ্ধার করা হয় পুলিশ দম্পতির ক্ষতবিক্ষত দেহ।

এরআগে পল্টন থানায় আত্মসমর্পণ করে নিহত পুলিশ দম্পতির মেয়ে ঐশি। শনিবার দুপুর আড়াই টায় পল্টন থানায় আত্মসমর্পণ করার পর তাকে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

শুক্রবার রাজধানীর মালিবাগের চামেলিবাগে ‘চামেলি ম্যানশনের’ ছয় তলা থেকে উদ্ধার করা হয় পুলিশ দম্পতির ক্ষতবিক্ষত দেহ।

 

শনিবার সকালে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তারা বলেছিলেন, ঐশির নিখোঁজ থাকাটা রহস্যজনক।

হত্যার রহস্য উদঘাটনে দুইটি বিষয়কে সামনে রেখে তদন্ত করছেন পুলিশ। এ খুনের রহস্য উদঘাটনে র‌্যাব-পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার একাধিক টিম মাঠে কাজ করছে বলে জানিয়েছে গোয়েন্দা সূত্র।

শনিবার দুপুরে ঢাকা মহানর গোয়েন্দা পুলিশের যুগ্ম-কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেন, “বাবা মায়ের মৃত্যুর খবর শুনে ঐশি ফিরে না আশা এবং তার নিখোঁজ থাকা রহস্যজনক বলে মনে হচ্ছে। মেয়েকে খুঁজে পাওয়া গেলেই খুনের রহস্য উম্মোচিত হবে।” ঐশির আত্নসমর্পনের পর এই হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন সময়ের ব্যাপার বলে পুলিশ কমিশনার জানান।

তিনি বলেন, “গোয়েন্দা পুলিশ দুইটি বিষয়কে মাথায় রেখে রহস্য উদঘাটনে কাজ করছে। ব্যক্তিগত বিরোধ, অর্থিক লেনদেন ও পারিবারিক বিরোধ এবং তার কাজের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত কোন লোকজন জড়িত কিনা তা ক্ষতিয়ে দেখা হচ্ছে। এছাড়া বাসার মূল্যবান স্বর্ণালঙ্কার ও টাকা পয়সা যে সব আলমিরাতে থাকে তা ভাঙ্গা ও বেশ কিছু লকার খালি পাওয়া গেছে। যে কারণে দস্যূতার বিষয়ও মাথায় রেখে তদন্ত করা হচ্ছে।”

যুগ্ম-কমিশনার বলেন, ঢাকা মেডিকেল কলেজ মর্গে ময়নাতদন্ত শুরু হয়েছে। রিপোর্ট পাওয়ার পরে কিছুটা তথ্য বেরিয়ে আসবে।

নিহতের ময়নাতদন্ত:

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সোহেল মাহমুদ সকাল সাড়ে ১০টা থেকে দুপুরে ১২ পর্যন্ত পুলিশ দম্পতির ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করেন।

ময়নাতদন্ত শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেছিলেন, “মাহফুজুর রহমানের শরীরে দুইটি ছুরিকাঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। একটা গলা ও পেটের মাঝামাঝিতে ক্ষত। এছাড়া স্বপ্না রহমানের শরীরে ১১টি জখমের চিহ্ন পাওয়া গেছে। চেতনানাশক ওষুধ খাওয়ানো হয়েছে কিনা সেজন্য ভিসেরা সংগ্রহ করে কলেজ পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে।

তিনি বলেন, “দুই বা ততোধিক লোক ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। খুনের আলামত দেখে মনে হচ্ছে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে তাদের মৃত্যু হয়েছে।”

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT