খাও টেকনাফটাকে, লুটেপুটে খাও

প্রকাশ: ১৩ জুন, ২০২০ ১১:৫৯ : অপরাহ্ণ

টেকনাফটাকে খেয়ে দেওয়ার আর কী বাকি আছে?

:: শাহীন সরওয়ার ::

সীমান্ত দিয়ে অতি সহজে ঢুকতে পারা ইয়াবা খেয়ে দিয়েছে প্রজন্মকে।

রোহিঙ্গারা খেয়ে দিয়েছে ছয় শ’ একরের বেশি বনভূমিকে।

রোহিঙ্গারা খেয়ে দিয়েছে টেকনাফের নিম্ম শ্রেনীর ব্যবসায়ীদের আয় রোজগার কে।

এনজিওরা খেয়ে দিয়েছে ছাত্র সমাজের পড়ালেখাকে।
নাফনদীতে মাছ শিকার নিষিদ্ধ করণ খেয়ে দিয়েছে জেলেদের রিযিককে।
পাহাড়ে রোহিঙ্গা ডাকাতদের অপহরণ ভয় খেয়ে দিয়েছে কাঠুরিয়াদের রিযিককে।
এনজিওদের যত্রতত্র গাড়ি যাতায়াত খেয়ে দিয়েছে রাস্তাগুলোকে।
চেকপোস্টগুলো খেয়ে দিয়েছে যাতায়াতের শান্তিকে।
4G নেটওয়ার্ক টেকনাফবাসীর একটি স্বপ্ন, তাও খেয়ে দেওয়া হয়েছে অনেক আগেই।
ভোটার হওয়া, জন্মনিবন্ধন বা অন্যান্য কাগজ সংগ্রহ দুরূহ ব্যাপার, সেগুলোর সহজলভ্যতা খেয়ে দেওয়া হয়েছে অনেক আগেই।
পল্লী বিদ্যুতের কথা না-ই বললাম।

জল-স্থলকে খেয়ে দেওয়া শেষ হওয়ায় অন্তিমলগ্নে পাহাড়ে কিছু প্রাণী অবশিষ্ট ছিল, রোহিঙ্গারা পাহাড়গুলো দখল করলে কিছু বন্য হাতি মিয়ানমারে পাড়ি জমায় আর বাকিগুলোকেও এভাবে মানুষ নামের পশুরা খেয়ে দিচ্ছে।

খাও টেকনাফটাকে, লুটেপুটে খাও, গোগ্রাসে গেলো, রক্ষা করার কেউ নেই।


সর্বশেষ সংবাদ