টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা সবচেয়ে বড় ভুল : ডা. জাফরুল্লাহ মাদক কারবারি, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের তালিকাভুক্ত সাংবাদিক আব্দুর রহমানের উদ্দেশ্যে কিছু কথা! ভারী বৃষ্টির সতর্কতা, ভূমিধসের শঙ্কা মোট জনসংখ্যার চেয়েও ১ কোটি বেশি জন্ম নিবন্ধন! বাড়তি নিবন্ধনকারীরা কারা?  বাহারছড়া শামলাপুর নয়াপাড়া গ্রামের “হাইসাওয়া” প্রকল্পের মাধ্যমে সচেতনতামূলক লিফলেট বিতরণ ও বার্তা প্রদান প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ঘর উদ্বোধন উপলক্ষে টেকনাফে ইউএনও’র প্রেস ব্রিফ্রিং টেকনাফের ফাহাদ অস্ট্রেলিয়ায় গ্র্যাজুয়েট ডিগ্রী সম্পন্ন করেছে নিখোঁজের ৮ দিন পর বাসায় ফিরলেন ত্ব-হা মিয়ানমারে পিডিএফ-সেনাবাহিনী ব্যাপক সংঘর্ষ ২শ’ বাড়ি সম্পূর্ণ ধ্বংস বিল গেটসের মেয়ের জামাই কে এই মুসলিম তরুণ নাসের

উপকূলে ১১দিন ব্যাপী ইলিশ সম্পদ সংরক্ষণ কার্যক্রম শুরু

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৩ অক্টোবর, ২০১৩
  • ১২৯ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

মোঃ রেজাউল করিম,ঈদগাঁও,কক্সবাজার উপকূলের ১৩ অক্টোবর থেকে ১১ দিনব্যাপী প্রধান প্রজনন মৌসুমে ইলিশ সম্পদ সংরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে। কর্মসূচি সফলভাবে বাস্তবায়নের ল্েয জেলা প্রশাসনের সার্বিক তত্ত্বাবধানে ও প্রত্য সহযোগিতা মৎস্য অধিদপ্তর কর্তৃক ব্যাপক প্রচার-প্রচারণাসহ ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে।  কর্মসূচি বাস্তবায়নের ১ম দিনে জেলা প্রশাসক, কক্সবাজার রুহুল আমিন কক্সবাজারস্থ বিএফডিসি’র মৎস্য অবতরণ কেন্দ্র পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ফেরদৌস আহ্মেদ, সদর উপজেলার সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড.মঈন উদ্দিন আহমদ, বিএফডিসির ব্যবস্থাপক রফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড, কক্সবাজার ষ্টেশনের কন্টিনজেন্ট কমান্ডার ও সদস্যবৃন্দ, কক্সবাজার ফিশিং বোট মালিক সমিতি ও বরফকল মালিক সমিতি, কক্সবাজার এর সভাপতি মোঃ মজিবুর রহমান ও কক্সবাজার ফিশিং বোট মালিক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আহমদ, স্থানীয় মৎস্য ব্যবসায়ী ও ফিশিং বোটের মালিকগণ, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। জেলা প্রশাসক ঘাটে ফিরে আসা বিপুল সংখ্যক ফিশিং বোট প্রত্য করেন এবং ফিশিং বোট মালিক সমিতির কর্মকর্তাবৃন্দ, ব্যবসায়ী ও ফিশিং বোটের মালিকদের সাথে মতবিনিময় করেন। মৎস্য অধিদপ্তরের কর্মচারীদের প্রচেষ্টায় ঘাটে ফিরে আসা ফিশিং বোটের তালিকা প্রণয়ন করায় সন্তোষ প্রকাশ করেন। উপস্থিত কেহ কেহ আশংকা ব্যক্ত করেন যে, ঘাটে ফিরে আসা বোট রাতের আঁধারে ঘাট ছেড়ে চলে গিয়ে মৎস্য আহরণের অপচেষ্টা চালাতে পারে। স্থানীয় ব্যবসায়ীগণ মত ব্যক্ত করেন যে, বরফ কলগুলো বন্ধ না করা হলে এ কার্যক্রম পুরোপুরি সফল করা কঠিন হবে। উপস্থিত ফিশিং বোট মালিক সমিতির সভাপতি জেলা প্রশাসক মহোদয়কে আশ্বস্ত করেন যে, তাঁদের সমিতির নিয়ন্ত্রণাধীন কোন বোটই এ সময়ে সাগরে মাছ আহরণে যাবেনা। তিনি তাঁর সমিতির প থেকে বরফকল গুলো যাতে কোন মাছের বোটে বরফ সরবরাহ না করে তার জন্য মাইকিং এর ব্যবস্থাসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলে জানান। জেলা প্রশাসক সরকারের এ মহতী উদ্যোগ সফল করার জন্য সকলের সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি আইন অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কোস্ট গার্ডসহ আইন প্রয়োগকারী বাহিনীসমূহের সক্রিয় ভূমিকা কামনা করেন। কোন বোট ঘাট ছেড়ে সাগরে মাছ ধরতে যাবার অপচেষ্টা করলে আটক করে নিকটস্থ থানায় সুপর্দ্দ করার জন্য কোস্ট গার্ডের প্রতিনিধিকে নির্দেশনা প্রদান করেন। গভীর সমুদ্রেও তৎপরতা চালিয়ে সরকারের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের জন্য বাংলাদেশ নৌবাহিনীর প্রতি আহ্বান জানান। নিয়মিত বাজার পরিদর্শন ও মোবাইল কোর্ট পরিচালনার মাধ্যমে আইন ভংগকারীদের শাস্তির বিধান নিশ্চয়তা করা হবে বলে তিনি জানান। ঈদগাঁওতে একই রাতে ৫ গরু চুরি মোঃ রেজাউল করিম,ঈদগাঁও,কক্সবাজার কক্সবাজার সদরের পোকখালীতে একই রাতে তিন বাড়ীতে ৫টি গরু চুরি হয়েছে। ১২অক্টোবর দিবাগত গভীর রাতে চোরের দল এসব গরু চুরি করেছে বলে জানা গেছে। প্রাপ্ত তথ্যে প্রকাশ,পোকখালী মুসলিম বাজারের পশ্চিম দিকে কমলাপাড়া নিবাসী লবণ ব্যবসায়ী নজির আহমদের গোয়ালঘর থেকে তিনটি গরু চুরি হয়ে যায়, যার আনুমানিক মূল্য ২ল টাকা। এর মধ্যে ১টি গরু ঐদিন শনিবার ঈদগাঁও বাজার থেকে কোরবাণীর জন্য ক্রয় করেছিলেন। একই এলাকার ১কিলোমিটার পশ্চিমে মালমুরা পাড়ার বজল আহমদ মেম্বারের গোয়ালঘর থেকে একই সময়ে অপর একটি গরু চুরি হয়। এছাড়াও পোকখালী উত্তর পাড়ার জনৈক ছিদ্দিক আহমদের বাড়ী থেকে চুরি হয় আরো একটি গরু। ১৩ অক্টোবর সকালে চুরির ব্যাপার টের পাওয়ার পর বিভিন্ন এলাকায় সারাদিন খোঁজাখুজি করার পরও চুরিকৃত গরুর কোন প্রকার সন্ধান পাওয়া যায়নি। সম্প্রতি বৃহত্তর ঈদগাঁওর বিভিন্ন এলাকায় গরু চোরদের উপদ্রব বেড়ে গেছে। প্রতিদিনই কোন না কোন এলাকা থেকে গরু চুরি হয়ে যাচ্ছে। গৃহস্থরা পালাক্রমে রাত জেগে গোয়ালঘর পাহারা দিয়েও চোরের হাত থেকে গবাদীপশু রা করতে পারছেনা। সম্প্রতি চোরের দল নতুন কৌশলে মাঠে নেমেছে। ঈদগাঁও বাজার সহ অন্যান্য এলাকার পশুর হাটে বিক্রির জন্য তোলা গরু টার্গেট করে গৃহস্তের বাসা চিনে নিয়ে রাতের বেলায় হানা দিয়ে গরু নিয়ে যাচ্ছে। নাপিতখালী-ইসলামপুর-খুরুস্কুল-কক্সবাজার আঞ্চলিক মহাসড়ক দিয়ে চোরাইকৃত গরু গাড়ি যোগে ইসলামপুর খালঘাটে নিয়ে গভীর রাতে বোটযোগে দুরদুরান্তে পাচার করে দেয়া হচ্ছে। ফলে চুরিকৃত এসব গরুর সন্ধান পাওয়া যাচ্ছেনা। ঈদগাঁওর বিভিন্ন এলাকার জেল ফেরত ও বিভিন্ন মামলার পলাতক আসামী সহ ইসলামপুর খাঁনঘোনা কেন্দ্রীক গরুচোর সিন্ডিকেট এ অপকর্মে জড়িত বলে জানা গেছে। ইসলামপুর শিল্প এলাকার পশ্চিম দিকে অপোকৃত নির্জন এলাকায় অবস্থিত বন্ধ হয়ে যাওয়া গোপনীয়া সল্ট ইন্ডাষ্ট্রির ঘাট থেকে বোটে তুলে এসব চোরাই গরু মহেশখালী কুতুবদিয়া সহ বিভিন্ন এলাকায় পাচার করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।  কয়েকদিন আগে ঈদগাঁওর গরু বাজারে সন্দেহ জনক ঘুরাফেরা করার সময় চোর চক্রের সদস্যদেরকে জনতা ধাওয়া করে। এ সময় চিহিৃত গরু চোর শামশুকে পাকড়াও করে ব্যাপক গণধোলাই দেয়া হয়। উক্ত শামশু ইসলামাবাদ বোয়ালখালী নিবাসী জনৈক মমতাজ আহমদের পুত্র বলে জানা গেছে। কৃষক ও গৃহস্তদের প্রতিপালিত গবাদী পশু চোরের হাত থেকে রায় জেলা পুলিশ প্রশাসনের উচ্চ পর্যায়ের হস্তপে কামনা করেছেন বৃহত্তর ঈদগাঁওর সচেতন মহল। ঈদগাঁওতে ব্রয়লার মুরগীর দরপতন মোঃ রেজাউল করিম,ঈদগাঁও,কক্সবাজার ঈদগাঁওতে পোল্টি ফার্মে উৎপাদিত ব্রয়লার মুরগির ব্যাপক দরপতন ঘটেছে। খামারী ও বিক্রেতারা রীতিমত মাইকিং করে মুরগী বিক্রি করছে। বর্তমানে প্রতিকেজি ব্রয়লার মুরগী মাত্র ১২০টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বৃহত্তর ঈদগাঁওর বিভিন্ন ইউনিয়নের পোল্টি ফার্ম মালিকরা জানিয়েছেন এ ভাবে হঠাৎ করে দরপতনে তারা ব্যাপক লোকসানের সম্মুখীন হচ্ছেন। ব্রয়লার মুরগীর একদিনের বাচ্চা,পোল্ট্রি ফিড,ভিটামিন ও ঔষুধ পত্র সহ অপরাপর উপকরণের উচ্চ মূল্যের ফলে উৎপাদন খরচ বেশী পড়ে। কিন্তু হঠাৎ এ মুল্য পতন হলেও নিরুপায় হয়েই ফার্মে উৎপাদিত মুরগী লোকসান দিয়ে বিক্রি করতে হচ্ছে। ইসলামপুর-পোকখালী-চৌফলদন্ডী ও ভারুয়াখালীসহ উপকুলীয় ইউনিয়ন সমূহের বিভিন্ন এলাকার চিংড়ি ঘের থেকে রকমারী প্রজাতির সুস্বাদু মাছ বাজারে সহজলভ্য হওয়ায় মুরগীর দাম কমে গেছে বলে জানা গেছে। এছাড়াও বিগত মাসাধিক কাল ধরে সমূদ্রে জেলেদের জালে বিপুল পরিমাণ ইলিশমাছ ধরা পড়ায় ক্রেতারা আপাতত ব্রয়লার মুরগী কিনছেন না। ফলে অবধারিত ভাবেই কমে গেছে দাম। অধিকন্ত কোরবানীর ঈদ সমাগত হওয়ায় সম্প্রতি দাম বাড়ার কোন সম্ভাবনা নেই। তাই ক্রেতা টানার কৌশল হিসাবে ঈদগাঁও বাজার সহ বিভিন্ন এলাকায় মাইকিং করছেন মুরগী ব্যবসায়ীরা।

একাধিক মামলার পলাতক আসামী জয়নাল আটক মোঃ রেজাউল করিম, ঈদগাঁও,কক্সবাজার। নারী নির্যাতন সহ একাধিক মামলার পলাতক আসামী জয়নাল আবেদিন গ্রেফতার হয়েছে। রামু উপজেলা পরিষদের সম্মুখ থেকে ১৩ অক্টোবর দুপুরে তাকে আটক করে থানা পুলিশ। আটককৃত জয়নাল রামু উপজেলার কচ্ছপিয়া ইউনিয়নের তিতার পাড়ার নুর আহমদের পুত্র। রামু থানার এএসআই মোশারফ জানান, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে দায়েরকৃত ৪৪৯ নং মামলা এবং কক্সবাজার মডেল থানার জি,আর ৩৫/১২ নং মামলায় দীর্ঘদিন সে পলাতক ছিল। প্রথমোক্ত মামলার বাদী সদর উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের নতুন অফিস হৃীলা পাড়ার হাজী সুলতান আহমদের মেয়ে কামরুন্নাহার। পলাতক থাকাবস্থায় সে মামলার বাদী ও বাদীর পরিবার পরিজনকে মিথ্যা মামলায় জড়ানো সহ বিভিন্ন হুমকি ধমকি দিয়ে আসছিল বলে অভিযোগ বাদী পক্ষের

 

 

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT