টেকনাফ নিউজ:
বিশ্বব্যাপী সংবাদ প্রবাহ... সবার আগে টেকনাফের সব সংবাদ পেতে টেকনাফ নিউজের সাথে থাকুন!
শিরোনাম :
মডেল মসজিদগুলোয় যোগ্য আলেম নিয়োগের পরামর্শ র্যাবের জালে ধরা পড়লেন টেকনাফ সাংবাদিক ফোরামের সদস্য ও ইয়াবা কারবারি বিপুল পরিমাণ টাকা ও ইয়াবা উদ্ধার রোহিঙ্গাদের তথ্য মিয়ানমারে পাচার করছে জাতিসংঘ: এইচআরডব্লিউ প্রশাসনে তিন লাখ ৮০ হাজার পদ শূন্য গোদারবিলের জামালিদা ও নাইট্যংপাড়ার ফয়েজ ইয়াবা ও নগদ টাকাসহ গ্রেপ্তার পরীমনির কান্না অথবা নিখোঁজ ইসলামি বক্তা এসএসসি-এইচএসসির পরীক্ষার সিদ্ধান্ত পরিস্থিতি দেখে : শিক্ষামন্ত্রী টেকনাফে পাহাড় ধ্বসে ৩৩ জনের মর্মান্তিক মৃত্যুর ট্রাজেডি আজ পড়ে আছে বিলাসবহুল বাড়ি,নেই দাবিদার শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ লম্বাবিলে বাস—সিএনজির মুখোমুখী সংঘর্ষে রোহিঙ্গাসহ ২ জন নিহত

উখিয়ায় চাউলের মূল্য বেড়ে যাওয়ার সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস

Reporter Name
  • সংবাদ প্রকাশের সময় : বুধবার, ২ অক্টোবর, ২০১৩
  • ১২০ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

এম বশর চৌধুরী, উখিয়া (কক্সবাজার)        প্রতিকেজি মোটা চাউল বিক্রি হচ্ছে ৩৬/৩৮ টাকায়                                            চাউল অত্যন্ত স্পর্শ কাতর একটি পন্য। যার প্রয়োজন সর্বাগ্রে। অন্যান্য পন্যের চেয়ে চাউলের মূল্য মানুষকে খুব সহজেই স্পর্শ করে। উখিয়ায় চাউলের মূল্য অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ার সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। এখানকার হাটে-বাজারে প্রতি কেজি মোটা চাউল বিক্রি হচ্ছে ৩৬/৩৮ টাকা দামে। গত ১ বছর পূর্বে তা বিক্রি হত কেজি প্রতি ৩০/২২ টাকা দামে। বিএনপি সরকারের শাসনামলে তা বিক্রি হত ১৪/১৬ টাকা দামে। ৩ মাসের ব্যবধানে চাউলের মুল্য কেজি প্রতি ৬/৮ টাকা বেড়েছে। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে এত উচ্ছ মুল্যে আর চাউল বিক্রি হয়নি। যা অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। বর্তমান মহাজোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১০ টাকা দামে চাউল বিক্রির ঘোষনা দিয়ে সাধারণ মানুষের ভোট আদায় করে মতা গ্রহন করে। মতা গ্রহনের পর তিনি চাউলের মূল্য কমানোর তেমন একটা উদ্যোগ না নেওয়ায় সারা দেশে এর প্রভাব মারাত্মকভাবে পড়েছে বলে অভিযোগ সাধারণ মানুষের। একটি অশুভ চক্রের মুঠো বন্দি এখানকার চাউলের বাজার। তারা গুদাম ভর্তি ধান-চাউল মওজুদ রেখে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে  চাউলের মূল্য বাড়িয়ে দেয়। তাদের টার্গেট কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে উচ্চ মুল্যে চাউল বিক্রি করে রাতা রাতী কোটিপতি বনে যাওয়া। এমন অভিমত প্রকাশ করেছেন সচেতন মহল। নাম প্রকাশে হলদিয়া পালং এর জনৈক মহিলা প্রার্থী জানান, পাড়ালিয়া এক ছেলেকে বিদেশ পাঠানোর জন্য টাকা সংকুলান না হওয়ায় মরিচ্যা বাজারের ফজল করিম সওদাগরের নিকট ২২ হাজার টাকা দামের ধান বাধ্য হয়ে ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করেছে।  উখিয়ার বিভিন্ন হাট বাজারে গুরে দেখা গেছে, এখানে বাজার দর নিয়ন্ত্রনে প্রশাসনিক ভাবে কোন ব্যবস্থা নেই। ব্যবসায়ীদের ইচ্ছামত চাউল সহ অন্যান্য পণ্য বিক্রি করে থাকে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গেল বছর মোটা চাউল বিক্রি হয়েছিল কেজি প্রতি ২০/২২ টাকা দামে, বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৩৬/৩৮ টাকা। সরু চাউলের দাম পুর্বে ছিল ৩৮/৪০ টাকা, বর্তমানে ৪৫/৫০ টাকা। মাঝারী মানের চাউল পুর্বে ছিল ৩২/৩৪ টাকা, বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৪০/৪২ টাকা। উন্নত মানের চাউলের মুল্য পুর্বের তুলনায়  কেজি প্রতি বেড়েছে ১০/১৫ টাকা। গত ৩ মাস পুর্বেও কেজি প্রতি ৬/৮ টাকা কমে চাউল বিক্রি হয়েছিল। খুচরা ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন, তারা উচ্চ মুল্যে গুদাম থেকে চাউল ক্রয় করে কেজি প্রতি ৫০ পয়সা /১ টাকা লাভ ধরে বিক্রি করে। চাউলের গুদামের মালিকদের দাবী, পুর্বে মিয়ানমার থেকে চাউল আমদানী ছিল। তখন কম মুল্যে চাউল বিক্রি করা যেত। এখন তারা বেশি দাম দিয়ে কিনছে, পাশাপাশী পরিবহন ব্যয়ও পড়ছে পূর্বের তুলনায় দ্বিগুন। চাউল ব্যবসায় তারা লোকসান গুনছেন বলে দাবী করেন। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, চাউলের মুল্য অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ার দরিদ্র ও অতী দরিদ্র ঘরের লোকেরা ৩ বেলার পরিবর্তে ২ বেলা খাচ্ছে। মধ্যভিত্ত পরিবার গুলোতেও অবস্থা নাজুক। সচেতন মহলের মতে, এখানকার প্রতিটি হাট বাজারের চাউলের গুদামে বিপুল পরিমান ধান চাউল মজুদ রেখে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করেছে সিন্ডিকেট ব্যবসায়ীরা। কি কারণে ব্যবসায়ীর এত ধান চাউল মজুদ রেখেছে তা খতিয়ে দেখা প্রয়োজন বলে মনে করেছেন সচেতন মহল।

 

সংবাদটি আপনার পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন...

Comments are closed.

More News Of This Category
©2011 - 2020 সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | TekNafNews.com
Developed by WebArt IT